kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ওষুধের মূল্যবৃদ্ধি ও ভোক্তা অধিকার

২ অক্টোবর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ওষুধের মূল্যবৃদ্ধি ও ভোক্তা অধিকার

বর্তমানে নিত্যপ্রয়োজনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ একটা পণ্য হলো ওষুধ। অসুস্থতার জন্য অনেককেই প্রতিদিন কোনো না কোনো ওষুধ সেবন করতে হয়। ওষুধ কোনো বিলাসী ভোগ্যপণ্য নয়। এটা জীবন রক্ষাকারী উপকরণ।

বিজ্ঞাপন

দেশের মানুষের স্বাস্থ্যসেবার জন্য তালিকাভুক্ত ১১৭টি ওষুধের দাম বাড়ানোর ক্ষমতা রয়েছে সরকারের। তার মধ্যে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবায় বহুল ব্যবহৃত ২০টি জেনেরিকের মধ্যে পূর্বঘোষণা ছাড়া শুধু সুপারিশের ভিত্তিতে ৫৬টি ওষুধের দাম বাড়িয়েছে বিভিন্ন ওষুধ কম্পানি। দেশে আইনের দুর্বলতার কারণেই ওষুধের দাম নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে না। এ জন্য আইন সংশোধন করা প্রয়োজন।

ওষুধের দাম বেশি নেওয়া, মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রি করা, পণ্যের প্যাকেটে মূল্য লেখা না থাকা এবং দোকানে মূল্যতালিকা না রাখা ভোক্তাবিরোধী কাজ। যার ফলে ক্ষুণ্ন হচ্ছে ভোক্তা অধিকার।

ওষুধ রপ্তানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। বিশ্বে ১৫১টি দেশে ওষুধ রপ্তানি করছে। আমরা চাই দেশীয় ওষুধ বিদেশে রপ্তানি করে আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার ভাণ্ডার আরো সমৃদ্ধ হোক। একই সঙ্গে এটাও চাই, নিয়মিত বাজার তদারকির মাধ্যমে এবং প্রয়োজনে নতুন আইন প্রণয়ন করে সরকার ওষুধের দাম নির্দিষ্ট করে দিক, যাতে ওষুধ সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকে এবং ভোক্তা অধিকার নিশ্চিত হয়।

উম্মে কুলসুম কাইফা

শিক্ষার্থী, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।



সাতদিনের সেরা