kalerkantho

শনিবার । ২৭ চৈত্র ১৪২৭। ১০ এপ্রিল ২০২১। ২৬ শাবান ১৪৪২

নাম বিড়ম্বনা

৯ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশের প্রথম ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়’ হচ্ছে কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ। বেশ কিছু লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে যাত্রা শুরু করা এই বিদ্যাপীঠের বর্তমান শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৮ হাজার প্রায়। কিন্তু স্বনামধন্য একটি বিদ্যাপীঠের নাম বা নামের বানান নিয়ে যে বিড়ম্বনা চলছে তা সত্যিকার অর্থে অত্যন্ত দুঃখজনক। চাকরির আবেদন ফরমসহ বিভিন্ন ওয়েবসাইটে আমরা দেখতে পাই, কোথাও ‘ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়’ কোথাও ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়’ বানান উল্লেখ করা হয়। ইসলামী বানান দুই রকমভাবে লেখা ছাড়াও এর পরবর্তী অংশ আরো বিভ্রান্তিকর। যেমন—কোথাও উল্লেখ করা হয় ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া’, কোথাও ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, ঝিনাইদহ’, কোথাও ইসলামী/ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ বা কোথাও শান্তিডাঙ্গা, কোথাও আবার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ। এ ধরনের নানা নাম ও বানান ব্যবহার করা হয়। আবার বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের সামনের ব্যানার এবং একান্ত নিজস্ব কাজের ক্ষেত্রেও ভিন্ন ভিন্ন বানান ও নাম ব্যবহার করা হয়। দেশের পত্রপত্রিকা, বিভিন্ন টিভি চ্যানেলসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে অনেক সময় শুধু ‘কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়’ বলেও উল্লেখ করা হয়। আমি মনে করি, বিভ্রান্তি এড়াতে ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ’ নামটি ব্যবহার করাই যুক্তিসংগত। এই বিভ্রান্তি দূর করতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

আবু তালহা আকাশ

শিক্ষার্থী, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ।

মন্তব্য