kalerkantho

শনিবার । ৯ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৭ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বিকল্প জ্বালানি ব্যবহার প্রসঙ্গে

২৬ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



বর্তমানে দেশে মোট গ্যাসক্ষেত্র ২৭টি। গ্যাসক্ষেত্রগুলোর মোট মজুদের পরিমাণ ৩৯.৯ ট্রিলিয়ন ঘনফুট, যার মধ্যে উত্তোলনযোগ্য গ্যাসের পরিমাণ ২৭.৭৬ ট্রিলিয়ন ঘনফুট। গত কয়েক বছরে দেখা গেছে, প্রতিবছর প্রায় এক ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উৎপাদিত হচ্ছে। এখন প্রাপ্য গ্যাসের পরিমাণ হিসাব করলে মজুদ শেষ হতে আর প্রায় ১২ বছর বাকি। গ্যাসের মিটার সিস্টেম না থাকায় গ্যাস ব্যবহারে মানুষ একদমই সচেতন নয়। একটি ম্যাচের কাঠি বাঁচাতে সারা দিন গ্যাসের চুলা চালু করে রাখে বেশির ভাগ মানুষ। গ্যাসের চাহিদা মেটাতে বর্তমানে সরকার তরল গ্যাস আমদানি করা অব্যাহত রেখেছে। রান্নাবান্নার কাজে প্রাকৃতিক গ্যাসের বিকল্প হিসেবে বায়োগ্যাস এবং ইলেকট্রিসিটি ব্যবহার করা যেতে পারে। উল্লেখ্য, বর্তমানে দেশে ইলেকট্রিসিটি উদ্বৃত্ত থাকছে। নতুন করে গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার না হলে এবং দেশের মানুষ সচেতন না হলে যে পরিমাণ গ্যাস মজুদ আছে, তা নির্ধারিত অনুমিত সময়ের আগেই শেষ হয়ে যাবে। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি চাই।

জাকির মাহমুদ

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা