kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

মেডিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং প্রসঙ্গে

১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ১ মিনিটে



মেডিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট ট্রেনিং কোর্স (MATS) গ্রামবাংলার মানুষের স্বাস্থ্যসেবা দেওয়ার লক্ষ্যে ১৯৭৬ সালে চালু হয়। এর মাধ্যমে সরকার মানসম্পন্ন চিকিৎসক তৈরির উদ্দেশ্যে তিন বছর মেয়াদি চিকিৎসা অনুষদ ডিপ্লোমা কোর্স চালু করে। এটি এমন কোর্স, যার মাধ্যমে ডিপ্লোমাপ্রাপ্ত চিকিৎসকরা বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল কর্তৃক অনুমোদিত হন। দীর্ঘদিন ধরে তাঁরা সাধারণ মানুষের চিকিৎসাসেবা দিয়ে আসছেন। যেকোনো স্বাস্থ্যসম্পর্কিত সমস্যায় বহু উচ্চ ডিগ্রিপ্রাপ্ত ডাক্তার রয়েছেন, যাঁরা শহরাঞ্চলে বসবাস করেন। নার্সিং পেশাকে সরকার যত গুরুত্বসহ বিবেচনা করে, ম্যাটস ঠিক ততটাই অবহেলিত। নার্সিং পেশাকে দ্বিতীয় শ্রেণির চাকরির মর্যাদা দেওয়া হয়েছে, কিন্তু ম্যাটস থেকে পাস করা শিক্ষার্থীরা সুযোগই পাচ্ছে না। নিয়োগপ্রক্রিয়াও বন্ধ রয়েছে। কোনো বিষয়ে সময় ও অর্থ ব্যয় করে ডিগ্রি লাভ করে যদি কর্মসংস্থান না হয়, তাহলে বছরের পর বছর অজস্র টাকা খরচ করে লাভ কী? এ বিষয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

বিলকিছ আক্তার, সরকারি ম্যাটস, টাঙ্গাইল ১৯০০।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা