kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৮ জুলাই ২০১৯। ৩ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৪ জিলকদ ১৪৪০

ধর্ষণের বিচার

১২ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ধর্ষণের একটি ভয়াল কাহিনি স্মৃতিপট থেকে মুছতে না মুছতেই আরেকটি ধর্ষণের ঘটনা সামনে এসে হাজির হচ্ছে। শহর থেকে গ্রাম—প্রতিদিন দেশের কোথাও না কোথাও ঘটছে ধর্ষণের ঘটনা। ছয় বছরের শিশু থেকে ৭০ বছরের বৃদ্ধা, কেউ রেহাই পাচ্ছে না ধর্ষকের হাত থেকে। শুধু তা-ই নয়, ধর্ষণ শেষে নির্যাতন, এমনকি চলন্ত বাস থেকে ফেলে দিয়ে কিংবা আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনাও ঘটছে। চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে দুই হাজারেরও বেশি নারী ও শিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। ২৭৬ জন নারী ও শিশুকে হত্যা করা হয়েছে। দিন দিন ধর্ষণের ও ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনা বাড়ছে। স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, অফিস, রাস্তাঘাট, পরিবহন—নারীরা কোথাও নিরাপদ নয়। ধর্ষণের জন্য দায়ী ধর্ষকের ধর্ষকামী মানসিকতা। নারীর প্রতি ক্ষমতা দেখানো, তাকে দখল করার মনোবৃত্তি এবং অবদমিত কাম চরিতার্থ করতে ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। বিচারহীনতার সংস্কৃতি ধর্ষণ বৃদ্ধির বিশেষ কারণ বলে ভাবছে অনেকে। দেশে নারীশিক্ষার হার বাড়ছে। বাড়ছে কর্মজীবী নারীর সংখ্যা। নারীদের অবাধ ও স্বাধীন চলাফেরা উন্নয়নের স্বার্থেই দরকার। এ বিষয়ে সরকারি সিদ্ধান্ত ও সামাজিক সচেতনতা প্রয়োজন।

মোজাম্মেল হক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।

মন্তব্য