kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির দুই নেতাকে মারধরের অভিযোগ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

৪ অক্টোবর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির দুই নেতাকে মারধরের অভিযোগ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে পদপ্রত্যাশীদের বিরুদ্ধে বিলুপ্ত কমিটির দুই নেতাকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণার পর গত রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে কোটবাড়ী এলাকার কুমিল্লা সিটি কলেজের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগীরা হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম হল শাখা ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি ইমরান হোসেন এবং শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হল শাখা ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ আবির রায়হান। হামলাকারীরা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং নতুন কমিটিতে পদপ্রত্যাশী রেজা-ই-ইলাহীর অনুসারী বলে অভিযোগ উঠেছে।

বিজ্ঞাপন

জানা যায়, গত রবিবার সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে ছাত্রদের এবং গতকাল সকাল ৯টার মধ্যে ছাত্রীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। নির্দেশ পেয়ে রবিবার সন্ধ্যায় হল ছাড়া শুরু করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা। অন্য ছাত্রদের মতো বাড়ি যাচ্ছিলেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ইমরান ও আবির। কিন্তু পথিমধ্যে হামলার শিকার হন তাঁরা।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ১০ থেকে ১৫ জনের একটি দল কুমিল্লা সিটি কলেজের সামনে ইমরানকে মারধর করে। অন্যদিকে আবিরকে গাড়ি থেকে নামিয়ে মারধর করা হয়। পরে অস্ত্র ঠেকিয়ে মোবাইল ফোন কেড়ে নেওয়া হয়। এক পর্যায়ে তাঁর ফোন থেকে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজকে খালেদ সাইফুল্লাহর ‘খুনি’ আখ্যা দিয়ে স্ট্যাটাস দেওয়ানো হয়।

মারধরের শিকার আহমেদ আবির রায়হান বলেন, ‘বাড়ি যাওয়ার সময় গাড়ি থেকে নামিয়ে আমাকে মারধর করা হয়। এরপর অস্ত্র ঠেকিয়ে মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে ইলিয়াস ভাইয়ের বিরুদ্ধে স্ট্যাটাস দেওয়ায় তারা। ’

আহত ইমরান হোসেন বলেন, ‘আমি এখন কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আছি। বাড়ি যাওয়ার সময় গাড়ি থেকে নামিয়ে আমাকে মেরেছে। যারা মেরেছে, তাদের মধ্যে কয়েকজন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী। তবে বেশির ভাগই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছিল না। ’

অভিযোগ অস্বীকার করে রেজা-ই-ইলাহী চৌধুরী বলেন, ‘আমার অনুসারীরা এমন কোনো কাজ করেনি। এগুলো তারাই করেছে, এখন আমাদের ওপর দোষ চাপাচ্ছে। ’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর কাজী ওমর সিদ্দিকী বলেন, ‘আবিরকে জিম্মি করে স্ট্যাটাস দেওয়া এবং ইমরানকে মারধরের অভিযোগ পেয়েছি। ’

শাখা ছাত্রলীগের কমিটি ‘বিলুপ্তি’র ঘটনাকে কেন্দ্র করে কয়েক দিন ধরেই কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছিল। গত শনিবার বিকেলে রেজা-ই-ইলাহীর অনুসারীরা অর্ধশতাধিক মোটরসাইকেল নিয়ে ক্যাম্পাসে মহড়া দেয়। জবাবে ইলিয়াস হোসেন সবুজের অনুসারীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মহড়া দেয়। অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য আবাসিক হল সিলগালা করে দেয় এবং ১০ থেকে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত সব পরীক্ষা স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয়।

 



সাতদিনের সেরা