kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০২২ । ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

পূজার কেনাকাটায় মুখর শাঁখারীবাজার

শিহাবুল ইসলাম   

১ অক্টোবর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পূজার কেনাকাটায় মুখর শাঁখারীবাজার

দুর্গাপূজা উপলক্ষে রাজধানীর মার্কেটগুলো এখন বেচাকেনায় বেশ সরগরম। গতকাল আজিজ সুপার মার্কেটে। ছবি : কালের কণ্ঠ

শারদীয় দুর্গাপূজা সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব। দেশব্যাপী আজ শনিবার শুরু হবে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা। তার আগে গতকাল শুক্রবার দুর্গাপূজা উপলক্ষে সনাতন ধর্মাবলম্বী প্রায় সবাই নতুন পোশাক কেনার পালা শেষ করেছে। ছুটির দিন হওয়ায় রাজধানীর বিপণিবিতানগুলোতে গতকাল ছিল স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বেশি ভিড়।

বিজ্ঞাপন

বিকিকিনিও হয়েছে যথেষ্ট। ব্যবসায়ীরা জানান, এরই মধ্যে কেনাকাটা শেষ করে অনেকে নিজ নিজ গন্তব্যে চলে গেছে।

পুরান ঢাকার শাঁখারীবাজার। পূজা আয়োজনের প্রায় সব ধরনের উপকরণ পাওয়া যায় এখানে। গতকাল দুপুরে শাঁখারীবাজার ঘুরে দেখা গেছে, সড়কের দুই পাশের দোকানগুলোয় উপচে পড়া ভিড়। কেউ কিনছে নতুন শাঁখা, কেউ বা কিনছে পূজার উপকরণ। প্রতিমাকে পরাতে নতুন শাড়ি, সিঁদুর সংগ্রহ করছে অনেকে। স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে বিক্রি বেশ ভালো বলে জানালেন বিক্রেতারা।

শাঁখারীবাজারের আশীর্বাদ পোশাক দোকানের কর্ণধার অরুণ সুর। কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ‘অনেকের কাছেই যথেষ্ট টাকা-পয়সা নেই। ফলে পোশাক কিনতে সাশ্রয়ী হচ্ছে। আগে যেখানে দুই হাজার টাকা বাজেট ছিল, এবার অনেকে সেটাকে করেছে এক হাজার টাকা। পূজার মধ্যে সাদা রং ও লালপাড় শাড়ি বেশি পরা হয়। এসব শাড়ি এবার আমরা বিক্রি করেছি ৫০০ থেকে দুই হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত। গত ১০ থেকে ১২ দিন বেশ ভালো বিক্রি হয়েছে। আগে হয়তো প্রতিদিন ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা বিক্রি হতো, এখন সেটা হয়েছে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা। ’

সদ্য বিয়ে করেছেন সুস্মিতা। পূজা উপলক্ষে স্বামীকে সঙ্গে নিয়ে শাঁখারীবাজারে এসেছেন শাঁখা কিনতে। কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ‘আমার অনেক শাঁখা থাকলেও পূজা উপলক্ষে নতুন শাঁখা কিনতে এসেছি। শাড়ি-ব্লাউজ আগেই কিনেছি। পূজার কেনাকাটা শেষ। আজ ছুটির দিন বলে আবারও বের হয়েছি। একটু ঘোরাঘুরির সঙ্গে নতুন শাঁখাটাও কেনা, এই তো। ’

সেখানকার নাগ ভাণ্ডারে পিতলের তৈরি পূজার উপকরণ ধূপতি, ঘণ্টা, আগরদানি, কাঁসর, ঠাকুর, প্রদীপ, ঘটি বেশ ভালো বিক্রি হচ্ছিল। ওই দোকানের পল্লব চন্দ্র দাশ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘পূজা এলে ভালো বেচাকেনা হয়। এ কারণে ভালো লাগে। এক মাস ধরে প্রত্যাশিত বিক্রি করেছি। ’

এদিকে গুলিস্তান, নিউ মার্কেট, বঙ্গবাজার, ইসলামপুরসহ রাজধানীর বড় শপিং মলগুলোতে পূজার কেনাকাটায় গতকাল লোকসমাগম ছিল চোখে পড়ার মতো।

পূজা উপলক্ষে নামি ব্র্যান্ড যেমন লা রিভ, কে-ক্র্যাফট, রঙ বাংলাদেশ, সারা লাইফস্টাইল, সাতকাহন পূজার বিশেষ পোশাক এনেছে বাজারে। যমুনা ফিউচার পার্কে রঙ বাংলাদেশের ম্যানেজার কামরুল হাসান বলেন, ‘আমাদের বিশেষ আয়োজনের প্রায় সব পোশাকই বিক্রি হয়ে গেছে। পূজা উপলক্ষে আমরা যে শাড়ি এনেছি বাজারে, সেগুলোর দাম এক হাজার ৮০০ থেকে তিন হাজার ৫০০ টাকা, পাঞ্জাবি ৮৯০ থেকে চার হাজার ৫০০ টাকা, ধুতি এক হাজার ৫০ থেকে এক হাজার ২৫০ টাকা, রেডি ব্লাউজ ৯৫০ থেকে এক হাজার ২৫০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। ’

 

 



সাতদিনের সেরা