kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৯ নভেম্বর ২০২২ । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিয়ের আয়োজন

ওয়েডিং এক্সপোর জমকালো শুরু

জিনাত জোয়ার্দার রিপা   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ওয়েডিং এক্সপোর জমকালো শুরু

রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় গতকাল শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী ওয়েডিং এক্সপো। প্রথম দিনের অন্যতম আকর্ষণ ছিল তারকাদের ফ্যাশন শো। ছবি : কাকলী প্রধান

“ইদানীং বিয়ের অনুষ্ঠানে, বিশেষ করে গায়েহলুদের অনুষ্ঠানে নাচ-গানের আয়োজন করে পরিবারের সদস্যরা। কিন্তু আমার পরিবারের প্রায় সবাই দেশের বাইরে। তারা বিয়েতে এলেও আসবে একেবারে শেষ সময়ে। তখন এসে প্র্যাকটিস করে অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া তাদের জন্য সহজ হবে না।

বিজ্ঞাপন

এ নিয়ে খুব মন খারাপ ছিল। তবে ‘থার্ড স্টেপ’ আমার সে সমস্যার সমাধান করে দেবে। তারাই নাচ-গানের আয়োজন করে দেবে,” বলছিলেন রাজধানীর জিগাতলা থেকে আসা তরুণ স্থপতি আফরীনা নাজনীন।

বিয়েশাদির জন্য পুরো আয়োজন করে দেন ‘থার্ড স্টেপ’-এর ফারাহ হায়দার ও অন্বেষা সরকার তাথৈ। তাঁদের এই আয়োজন সবার কাছে পৌঁছে দিতেই আরো কিছু প্রতিষ্ঠানের মতো বাংলাদেশ ওয়েডিং এক্সপো ২০২২-এ অংশ নিয়েছে ‘থার্ড স্টেপ’। ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) শুরু হওয়া এই এক্সপো চলবে ১ অক্টোবর রাত ৮টা পর্যন্ত।

কেন এই আয়োজন? বিয়েশাদিতে থাকে হাজারটা কাজ। আনন্দ আয়োজন, নিরাপত্তা, কার্ড ছাপানো, মিষ্টিসহ নানা জিনিসপত্র কেনা—তালিকার শেষ নেই।

‘বিয়েবাড়িতে চুরি হতে পারে বা কেউ কিছু হারিয়ে ফেলতে পারে, তার জন্য চাই সিসিটিভি। অতিথিদের গাড়ি সুশৃঙ্খলভাবে রাখতেও লাগে সঠিক ব্যবস্থাপনা, দরকার ট্রাফিক কন্ট্রোল। এই সব সেবাই আমরা দিয়ে থাকি,’ জানালেন ম্যাক সিকিওর লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. বজলুল হক বায়েজিদ।  

‘আসলে সবাই চান তাঁর বিয়ের আয়োজন হবে মনের মতো। সে অনুযায়ী সবাই আয়োজন করে থাকেন। তবে বিয়েতে থাকে হাজার রকমের চাহিদা। পোশাক, গয়না, মিষ্টি, গাড়ি, ইভেন্ট, কার্ড, আসবাব, হানিমুন, কত কী! এই সব কিছুর জন্য ঘুরতে হয় নানা জায়গায়। যদি সব কিছুর খোঁজ মিলে যায় এক জায়গাতেই, তাহলে কতই না সুবিধা! সেই চিন্তা থেকেই এই আয়োজন,’ বললেন আয়োজকদের অন্যতম ডিজাইনার নুজহাত নাওয়ার।

৫৮টি স্টলের এই আয়োজনে কী নেই! পোশাক, প্রসাধনী, গয়না, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট, ডেকর, মিষ্টি, আসবাব, হানিমুন প্যাকেজের রিসোর্ট, ফটোগ্রাফি, এমনকি নিরাপত্তাসেবা দেওয়া প্রতিষ্ঠান পর্যন্ত হাজির এ মেলায়। কমবেশি সবাই তাদের প্যাকেজে মূল্যছাড়ের ব্যবস্থা রেখেছে মেলা উপলক্ষে।

নিজের মনমতো বিয়ের কার্ড বানিয়ে দেয় দ্য পেপার বুটিক। কার্ডের সঙ্গে ফুল, মিষ্টিও পাঠায়। শুধু তাই নয়, বিয়ের ডালা-কুলা সাজানো, বিয়েবাড়ি লাইটিং করা, কেক বানানো—সব কিছুতেই আছে তারা। এমনকি বিয়ের কনেও সাজায়। ধানমণ্ডি থেকে এই প্রতিষ্ঠান মেলায় এসেছে তাদের সব সেবার কথা জানাতে। মেলায় তারা দিচ্ছে ছাড়ও।

বারিধারা জে-ব্লক থেকে এসেছে আসবাবের প্রতিষ্ঠান ভিনটেজ। প্রতিষ্ঠানের সহকারী ব্যবস্থাপক রাফিজা পারভীন ইলা বলেন, ‘আমাদের প্রতিষ্ঠানের ওয়েডিং প্যাকেজ আছে। আছে বেডরুম, ডাইনিংরুম ও ড্রয়িংরুমের আলাদা প্যাকেজ। দাম নির্ধারিত হয় কাঠের ওপর। মেলা উপলক্ষে চলছে ২০ শতাংশ মূল্যছাড়। তবে কেউ যদি দুটি বা তার বেশি প্যাকেজ নেন তবে ছাড় আরো বাড়বে। ’

বিয়েতে রাজসিক কেতার জুতা পরতে ইচ্ছা হলে ঢুঁ মারতে পারেন ইবাদাহ্র স্টলে। আর জমকালো গয়নার খোঁজে ঘুরে আসুন ড্যাজেল বাই সোনিয়া বা মেহেরানের স্টলে। আর হ্যাঁ, গ্রামীণফোন গ্রাহক হলে সব স্টলেই পাবেন কিছু ছাড়।

মেলার টাইটেল স্পন্সর আইসিসিবির ব্র্যান্ড ম্যানেজার মেহেদী হাসান মোল্যা জানালেন, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ওয়েডিং হলসহ ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটিতে আছে পাঁচটি হল। সেখানে বিয়ে অনুষ্ঠানের জন্য হল, খাবার, ডেকরসহ সব সেবা দেওয়া হয়ে থাকে।

কালের কণ্ঠকে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম বলেন, ‘এই মেলায় আসতে পেরে খুবই ভালো লাগছে। নতুন ধরনের সুন্দর আয়োজন। বিয়ে সম্পর্কিত সব কিছু এক ছাদের নিচে। এতে ভোক্তা যেমন উপকৃত হচ্ছেন, তেমনি এর উদ্যোক্তারাও উপকার পাচ্ছেন। বাণিজ্যের বিকাশ ঘটছে। ’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো ছিল বিয়ের পোশাকের জমকালো ফ্যাশন শো।



সাতদিনের সেরা