kalerkantho

শুক্রবার । ২ ডিসেম্বর ২০২২ । ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

মিয়ানমারে অস্ত্র বিক্রি বন্ধ করার আহবান জাতিসংঘ সংস্থার

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মিয়ানমারে অস্ত্র বিক্রি বন্ধ করার আহবান জাতিসংঘ সংস্থার

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক দপ্তর বলেছে, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর কাছে অস্ত্র বিক্রি বন্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আরো বেশি কিছু করা উচিত। কারণ সামরিক জান্তা দেশটির জনগণকে দমন ও সন্ত্রাসের মাধ্যমে শাসন করছে।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ মিয়ানমারে অস্থিরতা বিরাজ করছে। সামরিক বাহিনী নির্বাচিত সরকার হটিয়ে ক্ষমতা দখল করে হাজার হাজার প্রতিবাদী মানুষকে গ্রেপ্তার করে।

বিজ্ঞাপন

সেনা ও পুলিশের কঠোর দমন অভিযানে অনেক হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। এর প্রতিক্রিয়ায় দেশটির বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠেছে সশস্ত্র প্রতিরোধ আন্দোলন।  

জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থা শুক্রবার এক প্রতিবেদনে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীকে আরো একঘরে করার আহবান জানিয়েছে। সংস্থাটি অভিমত দিয়েছে, দেশটির জান্তা অর্থবহ ও

টেকসই উপায়ে দেশ পরিচালনা করতে পারেনি। গভীর আর্থিক সংকট সমাধান করতেও ব্যর্থ।

মানবাধিকার সংস্থা জাতিসংঘের সদস্যদের মিয়ানমারে অস্ত্র বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার সুপারিশ করেছে। সংস্থা জানায়, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত মিয়ানমারের জনগণকে সমর্থন করার জন্য এবং সামরিক বাহিনীকে আর্থিকভাবে একঘরে করে রাখতে নিজস্ব ক্ষমতার সবটুকু করা।

মিয়ানমারের সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ তুলেছে জাতিসংঘ। যদিও জান্তার দাবি, তারা দেশের ক্ষতি করার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ‘সন্ত্রাসীদের’ বিরুদ্ধে লড়াই করছে।

যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, যুক্তরাজ্য ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন মিয়ানমারের ওপর এরই মধ্যে ব্যাপক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। কিন্তু মিয়ানমার তার প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে বাণিজ্য অব্যাহত রেখেছে। কিছু দেশ তাদের অস্ত্র-সরঞ্জামও সরবরাহ করছে।

জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমারকে যুদ্ধবিমান ও সাঁজোয়া যান সরবরাহ করেছে রাশিয়া। চীনও যুদ্ধবিমান দিয়েছে। সূত্র : রয়টার্স



সাতদিনের সেরা