kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

এটিএম বুথে ছিনতাইকারীর ছুরিতে ব্যবসায়ী খুন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এটিএম বুথে ছিনতাইকারীর ছুরিতে ব্যবসায়ী খুন

গ্রেপ্তারকৃত আবদুস ছামাদ

রাজধানীর উত্তরায় একটি বেসরকারি ব্যাংকের এটিএম বুথে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে এক ব্যবসায়ী খুন হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত পৌনে ১টার দিকে বুথের নিরাপত্তাকর্মীর উপস্থিতিতে এ ঘটনা ঘটে।

মো. শরিফ উল্লাহ (৪৫) নামের ওই ব্যবসায়ী বুথ থেকে টাকা তুলে গোনার সময় ছিনতাইকারী অতর্কিতে তাঁর ওপর হামলা চালান। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে আবদুস ছামাদ (৩৮) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

শরিফ উল্লাহ লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার মধুপুর গ্রামের মোহাব্বত আলীর ছেলে। উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টরের ৬/সি সড়কের ২৪ নম্বর প্লটে টাইলসের ব্যবসা করতেন তিনি। প্রতিষ্ঠানের নাম জাকিয়া টাইলস গ্যালারি অ্যান্ড স্যানিটারি। টঙ্গী পশ্চিম থানার দেওড়া এলাকায় স্ত্রী ও দুই শিশুপুত্র নিয়ে থাকতেন তিনি।

এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার সকালে নিহতের ভাই আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি রক্তমাখা ছুরি এবং নিহতের কাছে থাকা রক্তমাখা আট হাজার টাকা উদ্ধার করেছে।

এসব তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে গতকাল উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন কালের কণ্ঠকে বলেন, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে শরিফ উল্লাহ বাসায় যাওয়ার জন্য উত্তরা ১২ নম্বর সেক্টরের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে বের হন। পথে উত্তরা ১১ নম্বর সেক্টরের সোনারগাঁও জনপথ সড়কে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের এটিএম বুথে টাকা তুলতে ঢোকেন। এ সময় এটিএম বুথে ছিনতাইকারী ঢুকে ধারালো ছুরি দিয়ে তাঁকে উপর্যুপরি আঘাত করেন। শব্দ পেয়ে নিরাপত্তা প্রহরী ঘটনাস্থলে গেলে আবদুস ছামাদ দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেন। এরপর তাঁকে ধাওয়া করে জমজম টাওয়ারের সামনে থেকে অন্যদের সহায়তায় ধরে ফেলেন ওই নিরাপত্তা প্রহরী। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তাঁকে আটক করে।

ছুরিকাঘাতে আহত শরিফকে উদ্ধার করে রাতেই দ্রুত উত্তরা আধুনিক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশের একটি টহল দল। চিকিৎসকরা পরীক্ষা করে শরিফকে মৃত ঘোষণা করেন। ময়নাতদন্তের জন্য তাঁর মরদেহ শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।

ওসি বলেন, ছুরিকাঘাত করলেও শরিফের কাছ থেকে টাকা নিতে পারেননি ওই ছিনতাইকারী। এটিএম বুথ থেকে রক্তমাখা আট হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। তিনি বলেন, আটক করা ব্যক্তির নাম আবদুস ছামাদ। পরে তাঁকে হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

গতকাল বিকেলে ছামাদকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। আদালতে তিনি হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।

ছামাদের গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা উপজেলার বিশকাকলী এলাকায়। তিনি পেশাদার ছিনতাইকারী কি না, এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে।

শরিফের ভাই আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘ব্যাংকের বুথে টাকা তুলতে গেলেও যদি খুন হতে হয়, তাহলে আর নিরাপত্তা কোথায়! আমার ভাইকে যে হত্যা করেছে, তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। ’

 

 

 



সাতদিনের সেরা