kalerkantho

শনিবার । ১৩ আগস্ট ২০২২ । ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৪ মহররম ১৪৪৪  

সবিশেষ

কৃত্রিমভাবে জন্ম নিল বিপন্ন কমোডো দ্বীপের ড্রাগন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৯ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কৃত্রিমভাবে জন্ম নিল বিপন্ন কমোডো দ্বীপের ড্রাগন

ইন্দোনেশিয়ার সুরাবায়া চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ একটি প্রজনন কর্মসূচির আওতায় ২৯টি কমোডো ড্রাগনের বাচ্চার জন্ম দিতে সক্ষম হয়েছে। চিড়িয়াখানার পরিচালক ছাইরুল আনোয়ার বলেন, এই সফলতা বিপন্ন প্রজাতিটি সংরক্ষণে নতুন আশা দেখাচ্ছে।

বিশ্বের বৃহত্তম এই গিরগিটি প্রজাতির প্রাণীটি শুধু ইন্দোনেশিয়ার বিশ্ব ঐতিহ্য তালিকাভুক্ত কমোডো ন্যাশনাল পার্ক এবং এর পার্শ্ববর্তী ফ্লোরেস দ্বীপে পাওয়া যায়। ভয়ংকর চেহারার জন্য লোককথার প্রাণী ড্রাগনের নামে নাম রাখা হয়েছে কমোডো দ্বীপের ওই গিরগিটির।

বিজ্ঞাপন

সরীসৃপটি প্রায় ১০ ফুট লম্বা এবং ৯০ কেজি পর্যন্ত ওজনের হতে পারে। প্রাণীটির প্রধান খাদ্য হরিণ। আনুমানিক মাত্র সাড়ে তিন হাজারের মতো কমোডো ড্রাগন এখন বেঁচে আছে। মানবসৃষ্ট বিপর্যয় এবং জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে তাদের আবাসস্থল হুমকির মুখে।

ইন্দোনেশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর সুরাবায়ার একটি চিড়িয়াখানা কমোডো দ্বীপের সংরক্ষণ কর্মসূচি এগিয়ে নিতে কাজ করছে। তাদেরই একটি প্রজনন কর্মসূচির মাধ্যমে ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চের মধ্যে সফলভাবে ২৯টি কমোডো ড্রাগনের বাচ্চা ফোটানো সম্ভব হয়েছে।

চিড়িয়াখানার পরিচালক ছাইরুল আনোয়ার বলেন, ‘গত ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চের মধ্যে ২৯টি কমোডো ড্রাগনের জন্ম হয়েছে। এর প্রাকৃতিক আবাসস্থলের অবিকল পরিবেশ আমরা তৈরি করেছি। এতে সঠিক আর্দ্রতা ও তাপমাত্রা রাখা হয়েছে। ’

দুই স্ত্রী কমোডো ড্রাগনের পাড়া ডিমগুলো নিয়ে ইনকিউবেটরে রাখা হয়। সেখানেই বাচ্চাগুলো হয়। পুরুষ প্রাণীর সঙ্গ ছাড়াই স্ত্রী কমোডো ড্রাগনের ডিম নিষিক্ত হওয়া সম্ভব। কিছু অমেরুদণ্ডী প্রাণী (এবং অতি বিরল ক্ষেত্রে মেরুদণ্ডী) ও অনুন্নত শ্রেণির উদ্ভিদের এ প্রক্রিয়ায় প্রজনন হতে পারে। একে বলা হয় পার্থেনোজেনেসিস।

বিরল কমোডো ড্রাগন রক্ষায় ১৯৯০ সালে এই প্রকল্প চালু করে সুরাবায়া চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে সেখানে ১৩৪টি কমোডো ড্রাগন আছে।

তবে কৃত্রিমভাবে কমোডো ড্রাগনের জন্ম এবারই প্রথম নয়। ২০২১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের ব্রংকস চিড়িয়াখানায় প্রথমবার ছয়টি কমোডো ড্রাগনের জন্ম হয় ইনকিউবেটরে।

গত বছর বন্য প্রাণী সংরক্ষণ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর দ্য কনজারভেটিভ অব নেচার (আইউসিএন) সতর্ক করে জানায়, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ায় কমোডো ড্রাগনের সংখ্যা প্রায় ৩০ শতাংশ কমে যাবে। সূত্র : এএফপি ও নিউজউইক

 

 



সাতদিনের সেরা