kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

সংসদে আলোচনা

আগামী নির্বাচনেও জনগণ ষড়যন্ত্রকারীদের প্রত্যাখ্যান করবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে




আগামী নির্বাচনেও জনগণ ষড়যন্ত্রকারীদের প্রত্যাখ্যান করবে

জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য বাজেটের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে মন্ত্রী-এমপিরা বলেছেন, সাহস, আত্মমর্যাদা ও সক্ষমতার প্রতীক পদ্মা সেতু করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা বিশ্বকে দেখিয়ে দিয়েছেন, কেউ আর বাংলাদেশকে দাবায়ে রাখতে পারবে না। পদ্মা সেতু বহু অর্জনের পথ খুলে দিয়েছে। পদ্মা সেতু দেখে বিএনপিসহ বিরোধিতাকারী-ষড়যন্ত্রকারীদের বুক ফেটে যাচ্ছে। তারা অন্তর্জ্বালায় ভুগছে।

বিজ্ঞাপন

তারা দেশের উন্নয়ন দেখে না, কারণ তারা পাকিস্তানের চর-দালাল। আগামী নির্বাচনেও দেশের জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করবে।

গতকাল সোমবার প্রথমে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এবং পরে প্যানেল সভাপতি শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে এই আলোচনায় অংশ নেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহ্মুদ, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, সাবেক চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ, হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, সরকারি দলের শহীদুজ্জামান সরকার, মনোয়ার হোসেন চৌধুরী, ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন, এ কে এম রহমতুল্লাহ্, আশেক উল্লাহ রফিক, স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য রেজাউল করিম বাবলু, বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা প্রমুখ।

হাছান মাহ্মুদ বলেন, ‘বিএনপি, টিআইবিসহ অন্যরা প্রতিবার বলে, বাজেট বাস্তবায়িত হবে না। কিন্তু প্রতিটি বাজেট ৯৫-৯৭ শতাংশ বাস্তবায়ন করে আওয়ামী লীগ সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের ৩১তম অর্থনৈতিক শক্তিশালী দেশ। বহুমুখী পদ্মা সেতু হচ্ছে মানুষের আবেগ, গর্ব, সক্ষমতা ও ষড়যন্ত্রকারীদের জবাব দেওয়ার সেতু। একজন শেখ হাসিনা না থাকলে কোনো দিনই পদ্মা সেতু হতো না। ’ তিনি বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক যখন অর্থায়ন বন্ধ করে, তখন খালেদা জিয়ারা বলেছেন আওয়ামী লীগ পদ্মা সেতু করতে পারবে না। পদ্মা সেতু নির্মাণ হয়েছে, তাঁদের মুখে চুনকালি পড়েছে। সমগ্র পৃথিবী পদ্মা সেতু নির্মাণে প্রশংসা করেছে। বিএনপি কিন্তু অভিনন্দন জানাতে পারেনি। তাদের গায়ে জ্বালা ধরেছে। নাট-বল্টু যে খুলেছে সেই টিকটককারী ছাত্রদল করত। এখন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরদের মুখে কোনো কথা নেই। অনেকে মানবাধিকারের কথা বলে। অথচ যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশের মানবাধিকার অনেক উন্নত। ২০২২ সালে যুক্তরাষ্ট্রে আড়াই শর মতো গুলির ঘটনা ঘটেছে। বিএনপি-জামায়াত জোট অগ্নিসন্ত্রাস করে শত শত মানুষকে পুড়িয়ে মেরেছে। তাদের মুখে মানবাধিকারের কথা মানায় না। ’

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, বাঙালি জাতির জীবনে দুটি হিমালয়সম অর্জন রয়েছে। প্রথমটি হলো লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জন। এ স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আরেকটি হলো নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ।

খাদ্যমন্ত্রী প্রস্তাবিত বাজেটকে ‘আত্মনির্ভরশীল ঘুরে দাঁড়ানোর বাজেট’ উল্লেখ করে বলেন, ‘আজ আর উত্তরাঞ্চলে মঙ্গার কথা কেউ বলে না। শেখ হাসিনা দেশে খাদ্যের অভাবকে নিরুদ্দেশ করেছেন। সবার জন্য খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশনারি নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশ মজবুত অর্থনৈতিক শক্তির ওপর দাঁড়িয়ে আছে। বিএনপি কোনো উন্নয়নই দেখতে পায় না। দলটি একটি জগাখিচুড়ির দল, মার্কাটাও মওলানা ভাসানীর ধানের শীষ নিয়েছে। পদ্মা সেতু করে প্রধানমন্ত্রী বিশ্বকে দেখিয়ে দিয়েছেন, কেউ আর আমাদের দাবায়ে রাখতে পারবে না। ’

মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, ‘সব ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত মোকাবেলা করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করে বিশ্বকে শেখ হাসিনা দেখিয়ে দিয়েছেন যে আমরাও পারি। এই সক্ষমতার প্রতীক দেখে বিরোধিতাকারী অনেকে অন্তর্জ্বালায় ভুগছে। উত্তরাঞ্চলে আর মঙ্গা নেই, সেখানেও ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। জাতীয় পার্টিই সংসদে বিরোধী দল, বিএনপি নয়। ’

আ স ম ফিরোজ বলেন, ‘শেখ হাসিনা জনকল্যাণে যতবার বাজেট দিয়েছেন, তা বাস্তবায়ন করে দেশকে দুর্বার গতিতে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। বিশ্বের অর্থনৈতিক ৪১তম শক্তিশালী দেশ বাংলাদেশ। পদ্মা নদী বাংলাদেশকে দুই ভাগে বিভক্ত করে রেখেছিল। শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু নির্মাণ করে দেশকে এক কাতারে নিয়ে এসেছেন। ’

আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেন, ‘শেখ হাসিনা সমতার ভিত্তিতে দেশকে উন্নয়নে ভরে দিয়েছেন। বিএনপি পাকিস্তানের প্রেমে অন্ধ। তাই সংসদে দাঁড়িয়ে বিএনপির একজন এমপি বলেন, পদ্মা সেতু গোল্ডেন টয়লেট। এই বক্তব্য এক্সপাঞ্জ করতে হবে। আমরা দেখতে চাই বিএনপি নেতারা পদ্মা সেতুতে ওঠে কি না। ’

এ কে এম রহমতুল্লাহ্ বলেন, পদ্মা সেতু একটা চেতনার নাম, পদ্মা সেতু মানেই শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সক্ষমতার প্রতীক। খালেদা জিয়া বলেছিলেন, আওয়ামী লীগ পদ্মা সেতু করতে পারবে না, করলেও ভেঙে পড়বে। কিন্তু শেখ হাসিনা তার জবাব দিয়েছেন।

 



সাতদিনের সেরা