kalerkantho

রবিবার । ৩ জুলাই ২০২২ । ১৯ আষাঢ় ১৪২৯ । ৩ জিলহজ ১৪৪৩

কুষ্টিয়ায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের স্ত্রীর লাশ উদ্ধার

আলাদা ঘটনায় শিক্ষার্থীর অস্বাভাবিক মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, কুষ্টিয়া ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২৫ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কুষ্টিয়ায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের স্ত্রীর লাশ উদ্ধার

কুষ্টিয়ায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার সকালে শহরের পুলিশ লাইন স্কুলের পেছনে কমলাপুর এলাকার নিজ বাড়ি থেকে নুরজাহান পারভিন মিনু (৪০) নামের ওই নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নুরজাহান পারভিন মিনু ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নজরুল ইসলামের স্ত্রী। এই দম্পতির এক মেয়ে ও এক ছেলে রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

মিনু স্বামী-সন্তানসহ কুষ্টিয়া শহরের পুলিশ লাইন স্কুলের পেছনে কমলাপুর এলাকায় নিজ বাড়িতে বসবাস করতেন। তাঁর বাবার বাড়ি মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার মিনাপাড়া গ্রামে।

মিনুর বাবার বাড়ির স্বজনদের অভিযোগ, নির্যাতনের পর তাঁকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। স্বজন ও স্থানীয়রা জানায়, ১৭ বছর আগে নজরুল ইসলামের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় মিনুর। বিয়ের পর থেকেই মিনুকে মারধর করতেন নজরুল। মিনুর বড় ভাই জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, গত সোমবার রাত ৮টার দিকে মেঝেতে মিনুর মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাঁর শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারপিটের চিহ্ন রয়েছে।

জাহাঙ্গীর বলেন, নজরুল ইসলাম মাদকাসক্ত। মিনুকে মারপিট ও শ্বাসরোধে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার জন্য ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয় বলে তাঁদের ধারণা।

তবে মিনুর স্বজনদের অভিযোগের বিষয়ে সহযোগী অধ্যাপক নজরুল ইসলামের বক্তব্য জানার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

কুষ্টিয়া সদর মডেল থানার ওসি সাব্বিরুল আলম বলেন, স্বামীর সঙ্গে ওই গৃহবধূর পারিবারিক কলহ ছিল। তাঁর মৃত্যু কিভাবে হয়েছে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ : বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসসংলগ্ন মেস থেকে আবিদ আজাদ নামের এক ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। গত সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকের সামনের ‘ব্রাদার্স হাউস’ মেসের নিজ কক্ষ থেকে লাশ উদ্ধার করে ইবি থানা পুলিশ। আবিদ আজাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার বাসিন্দা জহুরুল হক প্রামাণিকের ছেলে।



সাতদিনের সেরা