kalerkantho

সোমবার । ২৭ জুন ২০২২ । ১৩ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৬ জিলকদ ১৪৪৩

কুমিল্লা সিটি নির্বাচন

মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন ছয়জন

‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী হলেন আ. লীগ নেতা ইমরান

কুমিল্লা প্রতিনিধি   

১৮ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন ছয়জন

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) নির্বাচনে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ছয়জন প্রার্থী। মনোনয়নপত্র সংগ্রহ ও জমা দেওয়ার শেষ দিন গতকাল মঙ্গলবার উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে তাঁরা মনোনয়নপত্র জমা দেন।

বিকেল ৩টায় রিটার্নিং অফিসারের কাছে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত। রিফাতের কোনো চিন্তাই ছিল না দলের বিদ্রোহী নিয়ে।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু ‘বিদ্রোহী’ (স্বতন্ত্র) প্রার্থী হিসেবে গতকাল দুপুরে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে বিকেল ৪টায় তা জমা দেন আওয়ামী লীগ নেতা মাসুদ পারভেজ খান ইমরান। নির্বাচনসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, এতে কুসিক নির্বাচনে ভোটের হিসাব পাল্টে গেল।

মেয়র পদে আরো যাঁরা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তাঁরা হলেন কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সদ্যোবিদায়ি মেয়র মো. মনিরুল হক সাক্কু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি নিজাম উদ্দিন কায়সার, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. রাশেদুল ইসলাম ও স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল আহসান বাবুল। আওয়ামী লীগ ও ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী ছাড়া বাকি চারজন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। জাতীয় পার্টির প্রার্থী মামুনুর রশীদ মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করলেও জমা দেননি। আরফানুল হক রিফাত কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। মাসুদ পারভেজ খান ইমরান কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি এবং আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা উপকমিটির সদস্য। ইমরানের বোন সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ও মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আঞ্জুম সুলতানা সীমাসহ ১৪ জন নেতা আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন।

সন্ধ্যায় কুসিক নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মো. শাহেদুন্নবী চৌধুরী জানান, মেয়র পদে ছয়জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এ ছাড়া সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৭টি ওয়ার্ড থেকে ১২০ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ৯টি পদের জন্য ৩৮ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। মনোনয়নপত্র বাছাই ১৯ মে।

আরফানুল হক রিফাত বলেন, ‘আমার পক্ষে তৃণমূলের সব নেতাকর্মী ঐক্যবদ্ধ। কুমিল্লার মানুষ আমাকে ভালোবাসে। আশা করছি মানুষ আমাকেই নির্বাচনে বেছে নেবে। আমি মেয়র না, মানুষের সেবক হতে চাই। ’

মাসুদ পারভেজ খান ইমরান বলেন, ‘আমার নির্বাচন করার ইচ্ছা ছিল না। কিন্তু আমার নেতাকর্মী ও নগরীর মানুষ আমাকে শেষ পর্যায়ে এমনভাবে ধরেছে যে আমি তাদের কথা ফেলতে পারিনি। ’



সাতদিনের সেরা