kalerkantho

সোমবার । ২৭ জুন ২০২২ । ১৩ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৬ জিলকদ ১৪৪৩

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়

দুর্নীতিবাজদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞার দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



দুর্নীতিবাজদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞার দাবি

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্নীতিগ্রস্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে গতকাল রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন করে আইন ও মানবাধিকার সুরক্ষা ফাউন্ডেশন। ছবি : কালের কণ্ঠ

দেশের অন্যতম শীর্ষ বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্থিক কেলেঙ্কারিতে জড়িত অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) এজাহারভুক্ত আসামিদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞার দাবি জানিয়েছে আইন ও মানবাধিকার সুরক্ষা ফাউন্ডেশন। গতকাল মঙ্গলবার ফাউন্ডেশন আয়োজিত মানববন্ধন ও সমাবেশে বক্তারা বলেছেন, দুর্নীতি, অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতা ও জঙ্গি তৈরির কারখানায় পরিণত হওয়াসহ নানা অভিযোগে বিপর্যস্ত নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়কে বাঁচাতে অবিলম্ব এজাহারভুক্ত সব আসামিকে গ্রেপ্তার ও তাঁদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

রাজধানীর সেগুনবাগিচায় শিল্পকলা একাডেমির সামনে অনুষ্ঠিত কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা ড. সুফী সাগর সামস, বাংলাদেশ সংবাদপত্র (গণমাধ্যম) কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি মতিউর রহমান তালুকদার, বাংলাদেশ পরিবেশ ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সোসাইটির চেয়ারম্যান এম ইব্রাহিম পাটোয়ারি, সাংবাদিক নেতা কালিমুল্লা ইকবালসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী ও তাঁদের অভিভাবকরা।

সুফী সাগর সামস বলেন, ‘নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান আজিম উদ্দিন আহমেদ, বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য এম এ কাশেম, বেনজীর আহমেদ, রেহানা রহমান, মোহাম্মদ শাহজাহান এবং আশালয় হাউজিংয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিন মো. হিলালীর বিরুদ্ধে ৩০৪ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে মামলা করেছে দুদক।

বিজ্ঞাপন

আজিম-কাশেম সিন্ডিকেটের কারণেই বিশ্ববিদ্যালয়টি দুর্নীতি-অনিয়ম ও জঙ্গিবাদের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। তাই তাঁদের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। কিন্তু অভিযুক্তদের ঠিক কী কারণে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে না, সেটা আমাদের বোধগম্য নয়। ’ তিনি আরো বলেন, অভিযুক্ত প্রত্যেকেই সমাজের প্রভাবশালী ও ক্ষমতাশালী। তাঁরা যেন বিচারিক প্রক্রিয়ায় কোনো প্রভাব বিস্তার করতে না পারেন। তাঁরা বাংলাদেশকে শ্রীলঙ্কা বানানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। সরকারের বিরুদ্ধে নানামুখী তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। তাঁদের প্রতিহত করার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

আসামিদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা ও গ্রেপ্তার করে দ্রুত বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে সুফী সাগর সামস বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেক ট্রাস্টি আজিজ আল কায়সার টিটোও দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। তাঁর পিতা এম এ হাসেম এই বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকাকালে এই সিন্ডিকেটের সদস্য ছিলেন। টিটোও সিন্ডিকেটের বাইরে নন। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে টিটোকে মামলা থেকে বাইরে রাখা হয়েছে। টিটোর মতো আরো যাঁরা নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত তাঁদের সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। টিটোর সিঙ্গাপুরে বিপুল পরিমাণ অর্থের হিসাব নেওয়ার জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতি আবেদন জানান তিনি।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়টির শীর্ষ ব্যক্তিদের কম দামের জমি বেশি দামে ক্রয়, ডেভেলপার্স কম্পানি থেকে কমিশন, ছাত্রদের টিউশন ফি থেকে অবৈধভাবে ট্রাস্টি বোর্ডের ৯ সদস্যের জন্য বিলাসবহুল গাড়ি ক্রয়, এক লাখ টাকা করে সিটিং অ্যালাউন্স, অনলাইনে মিটিং করেও সমপরিমাণ অ্যালাউন্স গ্রহণ, নিয়ম ভেঙে বিশ্ববিদ্যালয় ফান্ডের ৪০৮ কোটি টাকা নিজেদের মালিকানাধীন ব্যাংকে এফডিআর, মঞ্জুরি কমিশনের নির্দেশনা অমান্য করে কয়েক গুণ শিক্ষার্থী ভর্তিসহ নানা অনিয়ম ও জঙ্গি মদদ বিষয়ে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে জমেছে অভিযোগের পাহাড়। বিশেষ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ট্রাস্টি ও প্রতিষ্ঠাতা সদস্য আজিম উদ্দিন আহমেদ ও এম এ কাশেম সিন্ডিকেটের হাতে গোটা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনই যেন জিম্মি হয়ে আছে।

বক্তারা বলেন, ট্রাস্টি বোর্ডের সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টির ২৫ হাজার শিক্ষার্থীর জীবন। এত বেশি অনিয়মের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার মানও ক্রমেই নিম্নমুখী। নর্থ সাউথের বিরুদ্ধে জঙ্গি সম্পৃক্ততার পুরনো অভিযোগ কর্তৃপক্ষ বারবারই অস্বীকার করে এসেছে। কিন্তু আদতে নর্থ সাউথ এখনো জঙ্গি পৃষ্ঠপোষকতার খোলস থেকে বের হতেই পারেনি। ব্লগার ও লেখক রাজীব হায়দারকে ২০১৩ সালে জঙ্গিরা কুপিয়ে হত্যা করে। সেই মামলার সাজাপ্রাপ্ত জঙ্গি নাফিস ইমতিয়াজকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মদদে ১০ বছর পর আবারও ভর্তির সুযোগ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হলেও মিডিয়া সরব হওয়ায় আবার তা বাতিল করা হয়। এমন হীন কাজের মাধ্যমে এ বিশ্ববিদ্যালয় কার্যত জঙ্গিবাদকে উৎসাহিত করছে। এঁদের (অভিযুক্ত ট্রাস্টিদের) এখনই দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান না করলে ভবিষ্যতে এ ধরনের কর্মকাণ্ড বেড়েই চলবে।

 

 



সাতদিনের সেরা