kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

সড়ক দুর্ঘটনা

ট্রাক্টরচাপায় মা বাবা মেয়েসহ নিহত ৪

আরো ৯ জেলায় নিহত ১০

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



ট্রাক্টরচাপায় মা বাবা মেয়েসহ নিহত ৪

রাজশাহীর নওহাটা এলাকায় গতকাল মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্বজনদের আহাজারি। ছবি : কালের কণ্ঠ

এক মোটরসাইকেলে স্বামী-স্ত্রী-মেয়ে আরোহী ছিলেন। আরেক মোটরসাইকেলে ছিলেন এক আরোহী। পথে মোটরসাইকেল দুটি মুখোমুখি সংঘর্ষে রাস্তায় ছিটকে পড়ার পর চার আরোহীকেই চাপা দেয় একটি ট্রাক্টর। এতে চারজনেরই মৃত্যু হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

গতকাল রবিবার সকালে রাজশাহীর পবা উপজেলার নওহাটা এলাকায় রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ঢাকাসহ আরো ৯ জেলায় গত শনিবার দুপুর থেকে গতকাল বিকেল পর্যন্ত সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শিক্ষার্থীসহ ১০ জন নিহত ও ১৮ জন আহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে চারজন মোটরসাইকেল আরোহী। প্রত্যক্ষদর্শী, থানা পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও হাসপাতাল সূত্রে সংশ্লিষ্ট এলাকার কালের কণ্ঠের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধির পাঠানো খবর :

পবায় নিহতরা হলেন নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার চণ্ডিপুর গ্রামের মো. আফতাব হোসেন, তাঁর স্ত্রী বিথি খাতুন (৩৩) ও মেয়ে মরিয়ম জান্নাত (৪), নওগাঁর মান্দা উপজেলার ছোট বিড়ালদহ গ্রামের মৃত ময়েজ উদ্দিনের ছেলে ও উপজেলা যুবদলের সহসভাপতি আবদুল মান্নান (৪৮)।

পবা থানার ওসি ফরিদ হোসেন জানান, আফতাব হোসেন সপরিবারে রাজশাহীতে থাকেন। তিনি তাঁর মোটরসাইকেলে স্ত্রী বিথি ও মেয়ে মরিয়মকে নিয়ে বিয়ের নিমন্ত্রণে নিয়ামতপুরে যাচ্ছিলেন। আর মান্নান মোটরসাইকেলে করে রাজশাহী থেকে মান্দা যাচ্ছিলেন। পথে দুই মোটরসাইকেলের ধাক্কা লাগলে চারজনই রাস্তায় ছিটকে পড়েন। এরপর একটি ট্রাক্টর এসে মোটরসাইকেল দুটিকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলে শিশু মরিয়ম ও মান্নানের মৃত্যু হয়। আর বিথি ও আফতাবকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিয়ে যান ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। সেখানে চিকিৎসক বিথিকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে বিকেলে চিকিৎসাধীন আফতাবের মৃত্যু হয়।

আরো ৯ জনের মৃত্যু

নড়াইল সদরের ধোপাখোলা মোড়ে গতকাল সকালে দ্রুতগতির মোটরসাইকেল পেছন থেকে ইঞ্জিনচালিত ভ্যানকে ধাক্কা দিয়ে পড়ে গেলে মোটরসাইকেলটির আরোহী কলেজছাত্রের প্রাণ গেছে। সংঘর্ষে ভ্যানে থাকা শিশুসহ (৬ মাস) চার যাত্রী রাস্তায় ছিটকে পড়ে আহত হয়েছে। নিহত শান্ত মণ্ডল (২০) পৌর এলাকার উজিরপুর গ্রামের রাজা মণ্ডলের ছেলে ও গোবরা মিত্র কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র।

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার চরফ্যাশন বাজারের তেলের পাম্পের সামনে শনিবার রাতে মালবাহী ট্রাকের চাপায় এক মোটরসাইকেল আরোহী নারী নিহত হয়েছেন। নিহত মোসা. নাহার বেগম (৪০) জাহানপুর ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের জাকির হোসেনের স্ত্রী। একই মোটরসাইকেলে নাহারের স্বামী ও মেয়ে ছিল।

ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার ঈদগাঁও বাজারের পাশে নেকমরদ-বালিয়াডাঙ্গি পাকা সড়কে গতকাল সকালে দ্রুতগতির বাসের ধাক্কায় এক ব্যক্তি নিহত হন। নিহত সোলায়মান আলী (৬৪) চন্দচহট নয়াবস্তি এলাকার ঘুটু মোহাম্মদের ছেলে।

টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার বানিয়াপাড়া ব্রিজপাড় এলাকায় গতকাল ভোরে পিকআপের চাপায় পথচারী বাদল মিয়া (৪৫) নিহত হন। তিনি বানিয়াপাড়া গ্রামের নওজেশ আলীর ছেলে। এদিকে শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে একই সড়কের কদমতলীতে ট্রাকচাপায় অটোচালক মুক্তার হোসেন গুরুতর আহত হন। গতকাল সকালে তাঁকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

মাগুরার শেখপাড়া এলাকায় মাগুরা-যশোর সড়কে গতকাল যাত্রীবাহী বাস ও ট্রাকের সংঘর্ষে অবসরপ্রাপ্ত এক সেনা সদস্য নিহত ও ছয়জন আহত হয়েছেন। নিহত বাসযাত্রী আবু হানিফ (৬০) যশোর পৌর এলাকার মৃত মোহাম্মদ আবদুল গনির ছেলে।

নেত্রকোনার আটপাড়া উপজেলার সালকিমাটিকাটা গ্রামে নেত্রকোনা-মদন সড়কে গতকাল বিকেলে লরিচাপায় শিশু মরিয়ম আক্তার তায়েবা (৪) নিহত হয়। সে সালকিমাটিকাটার মো. মোনায়েম মিয়ার মেয়ে।

সিলেটের জৈন্তাপুর ও ওসমানীনগর উপজেলায় গতকাল সড়ক দুর্ঘটনায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত ও সাতজন আহত হয়েছেন। ওসমানীনগরের গয়নাঘাটে ভোরে হানিফ পরিবহনের বাসের ধাক্কায় নিহত আব্দুল্লাহ আল মামুন হাওলাদার (২৫) পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ার বাদল হাওলাদারের ছেলে। এ ঘটনায় আহত তাঁর সঙ্গী মিরাজ হোসেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বিকেলে জৈন্তাপুরের পাখিটিখি এলাকায় দুটি মোটরসাইকেলের সঙ্গে লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত ও পাঁচজন আহত হন।

ফরিদপুরের বোয়ালমারী পৌরসভার সামনে শনিবার দুপুরে বাসের ধাক্কায় আহত অষ্টম শ্রেণির মাদরাসা শিক্ষার্থী তামান্না আক্তার (১২) এদিন রাত দেড়টায় মারা গেছে। ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। সে বোয়ালমারীর সোতাশী গ্রামের মো. সরোয়ার মোল্যার মেয়ে। সে মা ও ভাই-বোনের সঙ্গে মাদরাসা থেকে বাড়ি ফেরার পথে আহত হয়েছিল।

ঢাকায় মা নিহত, ছেলে আহত

রাজধানী ঢাকার তুরাগ থানার কামারপাড়া এলাকায় গতকাল সকালে ট্রাকের ধাক্কায় আম্বিয়া বেগম (৪৮) নামের এক নারী নিহত এবং তাঁর ছেলে মহিউদ্দিন (১৮) আহত হন। পুলিশ জানায়, আম্বিয়া চাঁদপুরের মতলব উত্তরের গোয়াল ভাওর গ্রামের মোজাম্মেল হকের স্ত্রী। তিনি পরিবারের সঙ্গে ঢাকার উত্তরার ১০ নম্বর সেক্টরে থাকতেন।

তুরাগ থানার এসআই মহুইমিনুর রহমান বলেন, সকাল ৬টার দিকে ট্রাকের ধাক্কায় মা ও ছেলে গুরুতর আহত হন। সকাল ৯টার দিকে তাঁদের উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নেওয়া হলে আম্বিয়া বেগমকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ট্রাকটির চালককে আটকের পর মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

নিহত আম্বিয়া বেগমের ছেলে শামসুদ্দিন বলেন, ‘আমরা চাঁদপুরে গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার জন্য মাসহ চারজন বাসা থেকে বের হই। কামারপাড়া বাসস্ট্যান্ডের সামনের রাস্তায় পেছন থেকে একটি ট্রাক মা ও ভাইকে ধাক্কা দিলে তারা রাস্তায় ছিটকে পড়ে। ’

 



সাতদিনের সেরা