kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

২৭ দিনেও ধরা পড়েননি ইমন

রেজোয়ান বিশ্বাস   

১৬ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



২৭ দিনেও ধরা পড়েননি ইমন

রাজধানীর নিউ মার্কেট এলাকায় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনায় কুরিয়ার সার্ভিসকর্মী নাহিদ হাসান হত্যা মামলার অন্যতম সন্দেহভাজন ইমনকে ২৭ দিনেও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

গত ১৮ এপ্রিল রাতে নিউ মার্কেটের দোকান মালিক-কর্মচারীদের সঙ্গে ঢাকা কলেজ শিক্ষার্থীদের প্রথম দফায় সংঘর্ষ বাধে। পরদিন ১৯ এপ্রিল দিনভর সংঘর্ষ চলে। এ ঘটনায় দুজন নিহত হন।

বিজ্ঞাপন

তাঁদের একজন কুরিয়ার সার্ভিসের কর্মী নাহিদ হাসান। অন্যজন নিউ সুপার মার্কেটের দোকানকর্মী মোহাম্মদ মোরসালিন। সংঘর্ষে আহত হয় দুই শতাধিক।

পুলিশ বলেছে, সংঘর্ষের ভিডিও ফুটেজ ও প্রাথমিক অনুসন্ধানের তথ্য অনুযায়ী ওই সংঘর্ষ চলাকালীন ইটের আঘাতে চন্দ্রিমা মার্কেটের সামনে লুটিয়ে পড়েন কুরিয়ার সার্ভিসকর্মী নাহিদ। এ সময় তাঁকে রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করেন ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী মাহমুদুল হাসান সিয়াম। এরপর নাহিদকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপান আরেক শিক্ষার্থী ইমন।

সংঘর্ষের ঘটনায় মোট পাঁচটি মামলা হয়েছে। এতে আসামির সংখ্যা এক হাজার ৭২৪। এর মধ্যে হত্যা মামলা দুটি। দুটি মামলার তদন্ত করছে ডিবি। অন্য তিনটি মামলা তদন্ত করছে নিউ মার্কেট থানার পুলিশ।

তদন্তসংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, গতকাল শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এ ঘটনায় ১১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। সব শেষ ১০ মে ডিবির অভিযানে গ্রেপ্তার হওয়া দুজন হলেন নিউ মার্কেট ক্যাপিটাল ফাস্ট ফুডের কর্মচারী কাউসার হোসেন ও মো. বাবু হোসেন। এর সাত দিন আগে মোয়াজ্জেম হোসেন ওরফে সজীব ও মেহেদী হাসান ওরফে বাপ্পি নামের দুই দোকানকর্মীকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এর আগে গ্রেপ্তার হন ঢাকা কলেজের ছয় শিক্ষার্থী। তাঁরা হলেন মো. আবদুল কাইয়ুম, পলাশ মিয়া, মাহমুদ ইরফান, মো. ফয়সাল ইসলাম, মো. জুনাইদ বোগদাদী ও মাহমুদুল হাসান সিয়াম। এ ছাড়া পুলিশের কর্তব্য কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে বিএনপি নেতা মকবুল হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ বিষয়ে রমনা বিভাগের উপকমিশনার মো. সাজ্জাদুর রহমান বলেন, ‘আমরা চাই শান্তি। তাই আমাদের মূল ফোকাস হচ্ছে নাশকতা এবং অ্যাসল্ট মামলার আসামিদের দিকে। তাঁদের একজন ওয়েলকাম ফাস্ট ফুডের দোকানকর্মী মেহেদী হাসান বাপ্পি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এখন ক্যাপিটাল ফাস্ট ফুডের কয়েকজনকে আমরা খুঁজছি। তবে হত্যা মামলার আসামিদের দিক থেকেও আমরা দৃষ্টি সরাচ্ছি না। ’

দোকানকর্মী মেহেদী হাসান বাপ্পি পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে করা মামলায় আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিতে বলেছেন, ক্যাপিটাল ও ওয়েলকাম নামের দুটি খাবারের দোকানের কর্মচারীদের বাগবিতণ্ডাকে কেন্দ্র করেই ঘটনার সূত্রপাত হয়েছিল। সেখানে একটি পক্ষ দুষ্কৃতকারীদের নিয়ে আসে আরেক পক্ষকে শক্তি দেখাতে। সেখান থেকেই ব্যাপক আকারে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।

ঈদের ছুটির পর ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীরা আজ সোমবার থেকে পুরোদমে ক্লাসে ফিরবেন। এ নিয়ে আবারও আতঙ্কে নিউ মার্কেট ও আশপাশের মার্কেটের ব্যবসায়ীরাও। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, সমঝোতা বৈঠক-পরবর্তী ঘোষিত মনিটরিং সেল গঠন না করার কারণে আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। ছাত্র ও ব্যবসায়ীদের কয়েকটি পক্ষ আবারও সহিংসতা উসকে দেওয়ার সুযোগ নিতে পারে।

এদিকে সংঘর্ষের পর সমঝোতা বৈঠকে গত ২০ এপ্রিল রাতে মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ডিজি অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেছিলেন, এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে একটি মনিটরিং সেল গঠনের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এ বিষয়ে ঢাকা কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ এ টি এম মইনুল হোসেন বলেন, ‘ক্যাম্পাস খোলা হয়েছে। ছাত্ররা এখনো পর্যন্ত ওইভাবে হলে ওঠেনি। তারা এলেই আমরা যেকোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়ানোর জন্য একটি কমিটি গঠন করব। ’

জানতে চাইলে নিউ মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি দেওয়ান আমিনুল ইসলাম শাহীন বলেন, ‘সংঘর্ষের পর ঘোষণা অনুযায়ী একটি কমিটি গঠন করার কথা থাকলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে এখনো কিছু জানানো হয়নি। তবে একবার ঢাকা কলেজের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক শিকদার আমাকে ফোন করে ব্যক্তিগতভাবে সহায়তা চেয়েছিলেন। আমিও তাঁকে আশ্বস্ত করেছি। তবে এর বাইরে নিউ মার্কেট এলাকার অন্যান্য মার্কেট সমিতির লোকজন আমার সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন। ’

 

 



সাতদিনের সেরা