kalerkantho

বুধবার ।  ২৫ মে ২০২২ । ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩  

সবিশেষ

বালুর নিচে ‘সোনার শহর’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বালুর নিচে ‘সোনার শহর’

তিন হাজার বছরেরও বেশি সময় আগে ‘হারিয়ে যাওয়া’ মিসরের প্রাচীন এক শহর আবিষ্কার করেছেন প্রত্নতাত্ত্বিকরা। গত বৃহস্পতিবার মিসরের প্রখ্যাত প্রত্নতাত্ত্বিক জাহি হাওয়াস এ ঘোষণা দেন। বলা হচ্ছে, এটি মরুভূমির বালুর নিচে হারিয়ে যাওয়া ‘সোনার শহর’। নীলনদের পূর্ব তীরে ইতিহাস খ্যাত লুক্সরের কাছে আটেন শহরে এর অবস্থান।

বিজ্ঞাপন

রাজধানী কায়রো থেকে জায়গাটি প্রায় পাঁচ শ কিলোমিটার দূরে।

প্রাচীন মিসরের সম্রাট (ফারাও) তৃতীয় আমেনহোটেপের রাজত্বকালে ওই শহর প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। জাহি হাওয়াসের নেতৃত্বে একদল প্রত্নতাত্ত্বিক ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে প্রথম এর খোঁজ পান। খননকাজ শুরুর পর মাটির নিচে তাঁরা ইটের কাঠামো দেখতে পান। জাহি হাওয়াস বলেন, ‘বালুর প্রতিটি স্তর মানুষের জীবনের কথা বলতে পারে। মিসর যখন বিশ্ব শাসন করত, সেই সময়ের মানুষ কীভাবে বাস করত, কীভাবে জীবন কাটাত—এ দেশের স্বর্ণযুগের মানুষ তা বলতে পারে বালুর একেকটি পরত। ’ যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের মিসরীয় শিল্প ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক বেস্টি ব্রায়ান বলেন, ‘এক শতাব্দী আগে ফারাও তুতানখামেনের সমাধি আবিষ্কারের পর এটি মিসরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক আবিষ্কার। ’ খননের পর অলংকারসামগ্রী, রঙিন মৃৎপাত্রের পাশাপাশি প্রাচীন মিসরীয় ধর্মের বিভিন্ন প্রতীক এবং তৃতীয় আমেনহোটেপের সীলমোহর পাওয়া গেছে।   জাহি হাওয়াস বলেন, ‘শহরটি খুব ভালোভাবে সংরক্ষিত রয়েছে। প্রায় সম্পূর্ণ দেয়ালসহ জিনিসপত্র দিয়ে ভরা অনেক কক্ষ রয়েছে সেখানে। ’

শহরটির খননকাজ এখনো শেষ হয়নি। কাজ শেষ হলে আরো প্রত্নতাত্ত্বিক সম্পদ উদ্ধার করা যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

সূত্র : বিবিসি



সাতদিনের সেরা