kalerkantho

বুধবার ।  ২৫ মে ২০২২ । ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৩ শাওয়াল ১৪৪৩  

তিক্ত অতীত

কালো অতীতের দাগ সোনালি শকটে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কালো অতীতের দাগ সোনালি শকটে

যে জমকালো গাড়ি নিয়ে নেদারল্যান্ডসে ঘনিয়ে উঠেছে বিতর্কের ঝড়। ছবি : সিএনএন

ঘোড়ায় টানা জমকালো গাড়িটি নেদারল্যান্ডসের রাজপরিবারের অন্যতম ঐতিহ্য, কিন্তু এই ঐতিহ্যের সঙ্গে জড়িয়ে আছে উপনিবেশের কালো অতীতের স্মৃতিও। এ কারণে দেশটিতে এই জাঁকালো যান নিয়ে সমালোচনার তাপ বাড়ছে। এ পরিস্থিতিতে রাজা ভিলেম-আলেকজান্ডার বলে দিলেন, ডাচ রাজপরিবার আপাতত এই সোনালি শকট ব্যবহার বন্ধ রাখবে। যত দিন না ‘নেদারল্যান্ডস এ জন্য প্রস্তুত হয়’ তত দিন তা বন্ধ থাকবে।

বিজ্ঞাপন

এক ভিডিও বার্তায় রাজা ভিলেম বলেছেন, ‘আমাদের ইতিহাসে গর্ব করার মতো অনেক কিছু রয়েছে। একই সঙ্গে তাতে আছে আমাদের ভুলগুলো চিনে ভবিষ্যতে সেগুলো এড়ানোর জন্য শিক্ষণীয় উপাদানও। ’ এ কালের রাজা বলে ভিলেমের আছে ইউটিউব অ্যাকাউন্ট। আর ভিডিওটা প্রকাশ করা হয়েছে সেখানেই।

নেদারল্যান্ডসের আলংকারিক শাসক রাজা বলেন, ‘আমরা অতীতকে নতুন করে লিখতে পারি না। তবে সবাই মিলে এর সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করতে পারি। কথাটা ঔপনিবেশিক অতীতের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। আমাদের চাই একটি সম্মিলিত প্রচেষ্টা, যা আরো গভীরে যাবে, হবে আরো দীর্ঘস্থায়ী। এ প্রচেষ্টা আমাদের বিভক্ত না করে বরং একত্রিত করবে। ’

‘ডি গুডেন কোটস’ নামে পরিচিত ঘোড়ায় টানা যানটি নিয়ে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে চলছে ব্যাপক বিতর্ক। ‘উপনিবেশ থেকে শ্রদ্ধা’ লেখা গাড়িটির একটি প্যানেলে রয়েছে উপনিবেশের অশ্বেতাঙ্গ মানুষজন নেদারল্যান্ডসের প্রতিনিধিত্বকারী এক শ্বেতাঙ্গ নারীর সামনে নতজানু হয়ে আছে। ইতিহাসের পাতা থেকে জানা যায়, ডাচ সাম্রাজ্য ১৭ থেকে ১৯ শতক পর্যন্ত ২৫০ বছর স্থায়ী ছিল। এ সাম্রাজ্য ক্যারিবিয়ান, ব্রাজিল, সুরিনাম, আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চল এবং এশিয়ার বিভিন্ন স্থানে বিস্তৃত ছিল। সেখানে স্থানীয় লোকজন সাম্রাজ্যবাদীদের হাতে ক্রীতদাস হওয়াসহ বিভিন্নভাবে শোষিত হয়েছিল।

১৯৯০ সালে ডাচ শাসনাধীন কুরাসাওয়া দ্বীপের শিল্পী রুবেন লা ক্রুজ রটারডামে এক উৎসবে এই ঔপনিবেশিক স্মারকের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছিলেন। এর পর থেকে একজন আন্দোলনকর্মী এবং ডাচ পার্লামেন্টের দুই সদস্যসহ একাধিক বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব এই গাড়িটি আর ব্যবহার না করার আহ্বান জানিয়ে আসছেন।

২০২০ সালে বিশ্বব্যাপী ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ বিক্ষোভের পরে এই দাবি আরো জোরেশোরে ওঠে।

১৮৯৮ সালে নেদারল্যান্ডসের প্রথম নারী নৃপতি রানি ভিলহেলমিনাকে এ গাড়ি দেওয়া হয়েছিল। তিনি সে বছর তাঁর ১৮তম জন্মদিন উদযাপন করেন। কিছুদিন পরেই তাঁর সিংহাসনে অভিষেক হয়। গাড়িটি এখন প্রধানত ‘প্রিন্স ডে’তে ব্যবহৃত হয়। তখন রাজা ভিলেম-আলেকজান্ডার সেপ্টেম্বরের তৃতীয় মঙ্গলবার ডাচ পার্লামেন্টের অধিবেশন চালু করেন। গাড়িটি রাজকীয় বিয়ে, উদ্বোধনসহ আরো কিছু মর্যাদাপূর্ণ অনুষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত।

সূত্র : সিএনএন



সাতদিনের সেরা