kalerkantho

সোমবার । ৩ মাঘ ১৪২৮। ১৭ জানুয়ারি ২০২২। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী

বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের নাটকে মুখর শিল্পকলা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের নাটকে মুখর শিল্পকলা

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে গতকাল বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে ১১ দিনব্যাপী ‘বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতা নাট্যোৎসব’ শুরু হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

শিল্পকলা একাডেমির খোলা মাঠে গতকাল ছুটির দিন বিকেল থেকেই ভিড় জমতে থাকে। তাঁদের মধ্যে ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধারাও। সবাই এসেছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে নাট্যোৎসবে নাটক দেখতে। সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির নন্দনমঞ্চে মহাকাল নাট্য সম্প্রদায় আয়োজিত ১১ দিনের বর্ণাঢ্য নাট্যোৎসব শুরু হয়।

দর্শকদের বাড়তি পাওনা জাতীয় নাট্যশালার লবিতে আলোকচিত্র শিল্পী পাভেল রহমানের ছবি নিয়ে ‘বঙ্গবন্ধুর জীবন’ স্থিরচিত্র প্রদর্শনী এবং বাংলাদেশ থিয়েটার আর্কাইভস কর্তৃক বাংলাদেশের ৫০ বছরের নাটকের পোস্টার ও স্থিরচিত্র প্রদর্শনী। 

সন্ধ্যায় জাতীয়সংগীতের মাধ্যমে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরু হয়। উদ্বোধন করেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। তিনি উত্তরীয় পরিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও অতিথিদের বরণ করে নেন। এরপর স্মরণে ৭১ শিরোনামে একটি নৃত্য পরিবেশিত হয়। উৎসব উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন মুক্তিযোদ্ধা ও নাট্যজন নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু ও মুক্তিযোদ্ধা ডা. ফওজিয়া মোসলেম।

মন্ত্রী মোজাম্মেল হক বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যথাযথ মর্যাদা প্রদর্শন এবং সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির জন্য বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিন নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ৩০ হাজার বীরনিবাস নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে। মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা মাসিক ২০ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়েছে।

স্বাগত বক্তব্যে উৎসব উদযাপন পরিষদের সদস্যসচিব মো. শাহনেওয়াজ জানান, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তন ও পরীক্ষণ থিয়েটার হলে এই উৎসবের নাটকগুলো মঞ্চায়ন করা হবে। ঢাকা ও ঢাকার বাইরের ১৪টি নাট্যদলের বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মঞ্চ সফল নান্দনিক নাটক মঞ্চায়ন করা হবে।

‘ঘুম নেই’ নাটকের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া উৎসবে আজ শনিবার চট্টগ্রামের উত্তরাধিকারের ‘মৃত্যু পাখি’, রবিবার দৃশ্যকাব্যের ‘বাঘ’, সোমবার শব্দ নাট্যচর্চা কেন্দ্রের ‘রাইফেল’, মঙ্গলবার বুনন থিয়েটারের ‘সিক্রেট অব হিস্ট্রি’ ও ঢাকা পদাতিকের ‘কথা ৭১’, ৮ ডিসেম্বর বাংলাদেশ পুলিশ থিয়েটারের ‘অভিশপ্ত আগস্ট’, ৯ ডিসেম্বর প্রাঙ্গণে মোর ‘কনডেমড সেল’ ও সংলাপ গ্রুপ থিয়েটারের ‘মানব সুরৎ’ মঞ্চস্থ হবে।

১০ ডিসেম্বর মহাকাল নাট্য সম্প্রদায় ‘শ্রাবণ ট্র্যাজেডি’ ও থিয়েটার আর্ট ইউনিট ‘কোর্ট মার্শাল’, ১১ ডিসেম্বর বরিশালের নাট্যম ‘তীলক’, ১২ ডিসেম্বর পদাতিক নাট্য সংসদ (টিএসসি) ‘কালরাত্রি’ এবং ১৩ ডিসেম্বর থিয়েটার মঞ্চায়ন করবে  নাটক ‘পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়’।

উৎসবে বাংলাদেশের ৫০ বছরে সংস্কৃতিচর্চা, মুক্তিযুদ্ধ এবং বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যেসব প্রতিষ্ঠান নিয়মিত গবেষণায় ভূমিকা রেখে চলেছে এমন ৯টি প্রতিষ্ঠানকে আগামী ১০ ডিসেম্বর সম্মাননা দেওয়া হবে। প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে—মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর, সিরাজগঞ্জ উত্তরণ মহিলা সংস্থা, থিয়েটার পত্রিকা, উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী, ছায়ানট, বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার, কেন্দ্রীয় কচিকাঁচার মেলা, পিপলস থিয়েটার অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ থিয়েটার আর্কাইভস।

গতকালের অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাঙালি সংস্কৃতির হাজার বছরের ঐতিহ্যের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ ও বিকশিত মাধ্যম নাটক। নাটকের মাধ্যমে মানুষের অনেক কাছাকাছি পৌঁছা যায়। জাতির পিতার শতবর্ষ এবং মাতৃভূমির ৫০ বছর উদযাপন জাতির সংস্কৃতিচর্চার শক্তি অর্জন এবং ধারাবাহিক সংস্কৃতিচর্চার জন্য অপরিহার্য। করোনা মহামারির দুঃসময় কাটিয়ে দর্শকদের হলমুখী করতে এবং মানসিকভাবে স্বস্তি দিতে এই নাট্যোৎসব অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে।



সাতদিনের সেরা