kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ মাঘ ১৪২৮। ২৭ জানুয়ারি ২০২২। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

মুগদায় আগুন

স্ত্রী-ছেলের পর চলে গেলেন সুধাংশু

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্ত্রী-ছেলের পর চলে গেলেন সুধাংশু

রাজধানীর মুগদার এক বাসায় গ্যাস লিকেজ থেকে আগুনের ঘটনায় স্ত্রী-সন্তানের পর চলে গেলেন সুধাশু মণ্ডল (৩৫)। ওই অগ্নিকাণ্ডে একই পরিবারের চারজন দগ্ধ হয়েছিল। গতকাল শনিবার ভোরে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিত্সাধীন অবস্থায় সুধাংশু মারা যান। এর আগে গত মঙ্গলবার সুধাংশুর স্ত্রী প্রিয়াঙ্কা বাড়ই এবং পাঁচ বছর বয়সী ছেলে অড়ব মণ্ডলের মৃত্যু হয়।

বিজ্ঞাপন

এ দুর্ঘটনায় সুধাংশুর শরীরের ২৫ শতাংশ, স্ত্রী প্রিয়াঙ্কার ৭২ শতাংশ, ছেলে অড়বের ৬৭ শতাংশ এবং চিকিত্সাধীন শাশুড়ি সেফালি বাড়ইয়ের শরীরের ৩৫ শতাংশ পুড়ে যায়। শাশুড়ির অবস্থাও আশঙ্কাজনক। তাঁর চিকিত্সা চলছে হাসপাতালের চতুর্থ তলার আইসিইউতে।

জানা যায়, চিকিত্সার জন্য সুধাংশু মণ্ডল স্ত্রী ও ছেলেকে নিয়ে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ থেকে ঢাকায় আসেন। ওঠেন উত্তর মুগদার মাতব্বর গলির পাঁচতলা ভবনের নিচতলায় শ্যালক পলাশ বাড়ইয়ের ভাড়া বাসায়। দুর্ঘটনার দিন গত সোমবার সুধাংশু বলেছিলেন, ‘নিজের চিকিত্সার জন্য এসে সব শেষ হয়ে গেল। ’

গত সোমবার সকালে ভাইয়ের বাসায় বেড়াতে আসা প্রিয়াঙ্কা সকালে নাশতা বানাতে রান্নাঘরে দিয়াশলাই জ্বালাতেই পুরো বাসায় আগুন ছড়িয়ে পড়ে। বিস্ফোরিত হয় ব্যবহূত গ্যাস সিলিন্ডার। দুর্ঘটনার পর দগ্ধদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। রাতে নিজের কাজে বের হয়ে যাওয়ায় বেঁচে যান প্রিয়াঙ্কার ভাই পলাশ।



সাতদিনের সেরা