kalerkantho

রবিবার । ৯ মাঘ ১৪২৮। ২৩ জানুয়ারি ২০২২। ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

এমপি তানভীরের হুঁশিয়ারি

বিদ্রোহী সিটে বসলে প্যান্ট পুড়ে যাবে

সিরাজগঞ্জ সংবাদদাতা   

১১ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বিদ্রোহী সিটে বসলে প্যান্ট পুড়ে যাবে

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে আচরণবিধি ভেঙে সিরাজগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) তানভীর ইমাম প্রচারণায় নেমেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গত মঙ্গলবার দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রকাশ্যে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে আলাদা তিনটি নির্বাচনী সমাবেশ করেন তিনি। এসব সভায় নৌকা প্রতীকে ভোট চাওয়ার পাশাপাশি বিদ্রোহী প্রার্থীদের প্রশ্নে কঠোর বার্তা দেন তিনি। এসব অনুষ্ঠানের ভিডিও এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ছড়িয়ে পড়েছে।

বিজ্ঞাপন

একটি ভিডিওতে এমপি তানভীরকে বলতে শোনা যায়, ‘দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে কেউ যদি জেদ করে বিদ্রোহী প্রার্থী হন, আপনি নির্বাচনে জিতে যে সিটে (চেয়ার) বসবেন, মনে রাখবেন, ওই সিট আমি আগুনের গোলা দিয়ে তৈরি করব। ওই আগুনে আপনার পরনের প্যান্ট পুড়ে যাবে। তার পরও যদি না মানেন, আমার কাছে আরো ব্যবস্থা আছে। সেই দিকে যাবেন না, নিজেদের শেষ করে দিয়েন না। আপনাদের মতো কিছু মানুষ আওয়ামী লীগ থেকে চলে গেলে দলের বেশি ক্ষতি হবে না। তাই বলছি, বিদ্রোহী হইয়েন না। আমরা চাই, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে ১৩টি নৌকা দিয়েছেন, সেই ১৩টি নৌকাই জয়ী হবে, এর বাইরে কিছু যেন না হয়। ’

আরেকটি ভিডিওতে এমপি তানভীরকে বলতে শোনা যায়, ‘আমি এখানে কোনো জনসভা করতে আসিনি। আমি এসেছি কিছু নির্বাচনী নির্দেশনা দিতে, যাতে ২৮ তারিখের নির্বাচনে নৌকা প্রতীক জয়ী হয়। এখানে আর কেউ জয়ী হতে পারবে না। এখন থেকে আমরা প্র্যাকটিস করতে থাকি, যাতে ধীরে ধীরে আমাদের কেন্দ্র বাড়তে থাকে। নির্বাচনের আগের কয়েক দিন শুধু নৌকার আওয়াজ থাকবে, আর কেউ থাকবে না। ’

উল্লাপাড়া সদর ইউনিয়ন পরিষদের স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আকমাল হোসেন বলেন, ‘মঙ্গলবার দুপুরে দলীয় প্রার্থী আব্দুস সালেকের পক্ষে বাকুয়া গ্রামে বিশাল নির্বাচনী সমাবেশ করেছেন এমপি সাহেব। ’

উপজেলার বড় পাঙ্গাসী ইউনিয়নের বিদ্রোহী প্রার্থী আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ‘মঙ্গলবার বিকেলে এমপি নৌকার প্রার্থী হুমায়ুন কবির লিটনের পক্ষে হাওড়া এলাকায় সমাবেশ করেছেন। এ ছাড়া এদিন সন্ধ্যায় সলপ ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী শওকত ওসমানের পক্ষে সমাবেশ করেন এমপি। ’ 

এমপি ও নৌকা প্রার্থীর এমন আচরণ ও হুমকি-ধমকির কারণে বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এবং ভোটাররা আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন। তবে এসব বিষয়ে অভিযোগ করতেও ভয় পাচ্ছেন তাঁরা। এখনো প্রতীক বরাদ্দ না হলেও নৌকার প্রার্থীরা এলাকায় বড় বড় শোডাউন করছেন।

এদিকে নির্বাচনী প্রচারণায় এমপির অংশ নেওয়ার বিষয়ে কিছু না বললেও নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন হাটিকুমরুল ইউনিয়নের বিদ্রোহী প্রার্থী আরাফাত রহমান। তিনি বলেন, ‘এখানে নৌকার প্রার্থী আলম রেজা প্রকাশ্যে বলে বেড়াচ্ছেন—চেয়ারম্যানের ব্যালট টেবিলে রেখে ভোটারদের মেম্বারের ব্যালট নিয়ে বুথের ভেতরে যেতে হবে। ’

অভিযোগ অস্বীকার করে নৌকার প্রার্থী আলম রেজা বলেন, ‘কেউ এমন কথা বলে থাকলে সেটা ভিত্তিহীন। ’

গতকাল বুধবার দুপুরে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে উল্লাপাড়ার উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মাসুদ রানা বলেন, ‘এমপি নির্বাচনী সমাবেশ করছেন—এমন অভিযোগ কেউ করেনি। আমাদের তো এসব বিষয় তদারকি করার মতো লোকবল নেই। আমরা শুধু অভিযোগ পেলে সেটির তদন্ত করি। ’ 

সিরাজগঞ্জ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘এমপির নির্বাচনী সভায় বা প্রচারণায় অংশ নেওয়ার সুযোগ নেই। এ ব্যাপারে অভিযোগ পেলে আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। ’  এ ব্যাপারে এমপি তানভীর ইমামের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তাঁর ফোন বন্ধ থাকায় বক্তব্য নেওয়া যায়নি।

আগামী ২৮ নভেম্বর তৃতীয় ধাপে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার ১৩টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। আজ বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হবে রবিবার।

 



সাতদিনের সেরা