kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

টাঙ্গাইলে স্কুলছাত্রীকে হত্যা, বন্ধু ক্ষতবিক্ষত

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি   

২৮ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



টাঙ্গাইলে স্কুলছাত্রীকে হত্যা, বন্ধু ক্ষতবিক্ষত

প্রতীকী ছবি

টাঙ্গাইলের কালিহাতীর এলেঙ্গায় গতকাল বুধবার সকালে কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে সুমাইয়া আক্তার (১৫) নামের এক স্কুলছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। এ সময় ওই ছাত্রীর বন্ধু মনির মিয়াকে (১৭) ছুরি দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে দুর্বৃত্তরা। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে, প্রেমঘটিত কারণে এ হত্যাকাণ্ড হতে পারে।

এলেঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী সুমাইয়া উপজেলার পালিমা গ্রামের ফেরদৌসুর রহমানের মেয়ে। এলেঙ্গা কলেজ মোড় এলাকায় মা-বাবার সঙ্গে ভাড়া বাসায় থাকত সুমাইয়া। অন্যদিকে আহত মনির উপজেলার মশাজান গ্রামের মেহের আলীর ছেলে।

পুলিশ ও ওই ছাত্রীর স্বজনরা জানায়, সুমাইয়া সকাল সাড়ে ৬টার দিকে স্থানীয় প্রাইম কোচিং সেন্টারে যাওয়ার জন্য বাসা থেকে বের হয়। সাড়ে ৭টার দিকে এলাকার লোকজন এলেঙ্গা সরকারি শামসুল হক কলেজের উল্টো পাশে খোকন মিয়ার ভবনের সিঁড়িকোঠায় সুমাইয়া ও তার বন্ধু মনিরকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে। পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে সুমাইয়ার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। গুরুতর আহত মনিরকে উদ্ধার করে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়।

এদিকে সুমাইয়াকে হারিয়ে তার বাড়িতে চলছে মাতম। তার চাচা ফিরোজ মিয়া বলেন, ‘আমার ভাই বউ-বাচ্চা নিয়ে এলেঙ্গায় ভাড়া থাকেন। বখাটেদের অত্যাচারে কিছুদিন আগে তাঁরা বাসা বদল করেছেন। কী কারণে এই নৃশংস হত্যা হয়েছে, সেটা বুঝতে পারছি  না। অপরাধীদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসা কর্মকর্তা রাজিব পাল চৌধুরী জানান, মনিরের গলা, ঘাড়সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছুরি দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করা হয়েছে। তার পেটের অভ্যন্তরীণ ক্ষত মারাত্মক।

কালিহাতী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার শরিফুল হক জানান, সুমাইয়াকে ছুরি দিয়ে জবাই করে হত্যা করা হয়েছে। মনিরকেও আহত করা হয়েছে ছুরি দিয়ে। কী কারণে এই হত্যা তা তদন্ত করা হচ্ছে।

কালিহাতী থানার ওসি মোল্লা আজিজুর রহমান জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। সুমাইয়ার মুঠোফোন জব্দ করা হয়েছে।

পটিয়ায় প্রেমে বাধা দেওয়ায় এক ব্যক্তি খুন : এদিকে পটিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, চট্টগ্রামের পটিয়ায় মো. ইউনুস (৪৬) নামের এক ব্যক্তিকে হত্যা করা হয়েছে। প্রেমে বাধা দেওয়ার জের ধরে গত মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার জিরি ইউনিয়নের দক্ষিণ মালিয়ারা গ্রামের মকবুল মুন্সির বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। ইউনুস ওই এলাকার মৃত ফজল আহমদের ছেলে।

ইউনুসের মামাশ্বশুর আবদুল মোতালেব মনু জানান, ইউনুসের চাচাতো ভাইয়ের মেয়ের সঙ্গে এক ছেলের প্রেমের সম্পর্কের জের ধরে বিরোধ চলছিল। গত মঙ্গলবার রাতে বেশ কয়েকজন লোক বাড়িতে এলে ইউনুস প্রতিবাদ করেন। স্ত্রী লাভলী আক্তার বাঁচাতে গেলে তাঁকেও ধাক্কা মারা হয়। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় ইউনুসকে শান্তিরহাট এলাকায় এক চিকিৎসকের কাছে নেওয়া হলে তিনি মৃত ঘোষণা করেন।

 

 

 



সাতদিনের সেরা