kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়

আন্দোলনরত দুই শিক্ষার্থীর আত্মহননচেষ্টা

সিরাজগঞ্জ সংবাদদাতা ও শাহজাদপুর প্রতিনিধি   

২৫ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



আন্দোলনরত দুই শিক্ষার্থীর আত্মহননচেষ্টা

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে চুল কাটার ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিনকে স্থায়ী বরখাস্ত না করায় ফের আন্দোলনে রয়েছেন শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনের মধ্যেই দুই ছাত্র পূর্বঘোষণা দিয়ে আত্মহননের চেষ্টা চালিয়েছেন। গতকাল রবিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের উপস্থিতিতে একাডেমিক ভবনের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র শামীম হোসেন কীটনাশক পান করেন এবং একই বিভাগের ছাত্র আবেদ হোসেন ব্লেড দিয়ে হাতের রগ কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা চালান।

এ ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা সিরাজগঞ্জ-নগরবাড়ী মহাসড়কের বিসিক মোড়ে সড়ক অবরোধ করেন। এতে মহাসড়কের দুই পাশে দীর্ঘ যানজট লেগে যায়। মহাসড়কে বিপুলসংখ্যক পুলিশ অবস্থান নিলে ঘণ্টাখানেক পর অবরোধ তুলে নেন তাঁরা। পরে ফের ক্যাম্পাসে ফিরে অবস্থান কর্মসূচিতে বসেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে সন্ধ্যায় রেজিস্ট্রারসহ ১৪ শিক্ষক ও ২৫ কর্মকর্তা-কর্মচারী বিসিক বাসস্ট্যান্ডের অস্থায়ী একাডেমিক ভবনে গেলে আন্দোলনরত ছাত্ররা সেখানে তালা দেন। ওই সময় তাঁরা অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। রেজিস্ট্রার সোহরাব আলীর সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘ছাত্ররা আলোচনার কথা বলে সন্ধ্যার কিছু আগে আমাদেরকে একাডেমিক ভবনে ডেকে নেয়।’ রাত সাড়ে ৯টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত শিক্ষক-কর্মচারীরা অবরুদ্ধ ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রবীন্দ্র অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান লায়লা ফেরদৌস হিমেল বলেন, ‘রবিবার ১২টার দিকে আত্মহত্যা করার ঘোষণা গত শনিবার রাতেই দিয়েছিল শামীম। এ পরিস্থিতিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের বোঝাতে রেজিস্ট্রার সোহরাব হোসেনসহ আমরা একাডেমিক ভবনের সামনে গিয়েছিলাম। কিন্তু আলোচনার এক পর্যায়ে শামীম কীটনাশক পান করে। এরপর শিক্ষক ও ছাত্রদের সহায়তায় দ্রুত তাকে পোতাজিয়া হাসপাতাল নেওয়া হয়। এরপরই আরেক শিক্ষার্থী আবেদ ব্লেড দিয়ে হাত কাটে। তাকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।’

এ ব্যাপারে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র জাহিদুর রহমান শিরাত বলেন, ‘মহাসড়ক অবরোধের কারণে দুই পাশে যানজট দেখা দেয়। এ কারণে মানুষের ভোগান্তির বিষয়টি চিন্তা করে ঘণ্টাখানেক পর আমরা অবরোধ তুলে নিয়েছি। সেখান থেকে ফিরে আমরা একাডেমিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়েছি। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অভিযুক্ত শিক্ষিকা ফারহানাকে স্থায়ী বরখাস্ত করা না হলে আমরা আবারও মহাসড়ক অবরোধ করব।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য আব্দুল লতিফ জানান, শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা চলছে। না বুঝে তাঁরা আন্দোলন করছেন। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে আবারও সিন্ডিকেট সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এর আগে শনিবার গভীর রাতে ফেসবুক লাইভে এসে শিক্ষার্থী শামীম অভিযুক্ত শিক্ষিকার বিষয়ে কর্তৃপক্ষ কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছতে না পারলে রবিবার দুপুর ১২টার পর একাডেমিক ভবনের সামনেই আত্মহত্যা করার ঘোষণা দেন। পরে বিষয়টি ভাইরাল হয়।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার সোহরাব আলীর কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন পাঁচ সদস্যের কমিটি। এরপর শুক্রবার বিকেলে ঢাকায় সিন্ডিকেট সভা হয়। আরো কিছু তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ বাকি রয়েছে জানিয়ে সিন্ডিকেট সভা মুলতবি করা হয়। ওই দিন রাত থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের সামনে ফের আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। তাঁদের মধ্যে সাতজন আমরণ অনশন ও বাকিরা দিন-রাত অবস্থান কর্মসূচি পালন করে যাচ্ছেন।

এর আগে ২৬ সেপ্টেম্বর রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের ১৪ শিক্ষার্থীর মাথার চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে ওই বিভাগের চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিনের বিরুদ্ধে। অপমান সহ্য করতে না পেরে নাজমুল হাসান তুহিন নামে এক ছাত্র অতিমাত্রায় ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালান। পরে ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা বর্জন করে একাডেমিক এবং প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে দিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকেন। এ অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনটি প্রশাসনিক পদ থেকে পদত্যাগ করেন শিক্ষক ফারহানা। ঘটনার তদন্তে গঠন করা হয় পাঁচ সদস্যের কমিটি। এরপর সিন্ডিকেট সভা শেষে শিক্ষিকা ফারহানাকে সাময়িক বরখাস্ত  করা হয়।

 



সাতদিনের সেরা