kalerkantho

বুধবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ১ ডিসেম্বর ২০২১। ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩

৪৭ বিশিষ্ট নাগরিকের বিবৃতি

সাম্প্রদায়িক হামলার নিন্দা ও বিচার দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সাম্প্রদায়িক হামলার নিন্দা ও বিচার দাবি

সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন স্থানে ধর্মীয় সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর পূজামণ্ডপ ও বাড়িঘরে হামলা, ভাঙচুরের ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন ৪৭ জন বিশিষ্ট নাগরিক। গতকাল শুক্রবার এক বিবৃতিতে তাঁরা বলেন,  আমরা মনে করি, যারা এসব ঘটনার সঙ্গে প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে জড়িত, তারা দেশের সব নাগরিকের সম-অধিকার প্রতিষ্ঠার বিরোধী, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকিস্বরূপ। অবিলম্বে এসব দুষ্কৃতকারীকে চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করার পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আহবান জানান তাঁরা। 

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, কুমিল্লার ঘটনার পর প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর আরো সতর্ক ও দায়িত্বশীল হওয়া উচিত ছিল। কারণ ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে পরে দেশের বিভিন্ন এলাকায় আরো সাম্প্রদায়িক হামলা হয়েছে; যার দায় প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী এড়াতে পারে না।

বিবৃতিদাতা ৪৭ নাগরিকের মধ্যে রয়েছেন—ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, সংবিধান প্রণয়ন কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম, অবসরপ্রাপ্ত মহাহিসাব নিরীক্ষক এবং সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা এম হাফিজউদ্দিন খান, অবসরপ্রাপ্ত মন্ত্রিপরিষদসচিব ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. আকবর আলি খান, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে. চৌধুরী, সুপ্রিম কোর্টের সাবেক বিচারপতি আব্দুল মতিন, সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন, মানবাধিকারকর্মী ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা সুলতানা কামাল,  মানবাধিকারকর্মী ড. হামিদা হোসেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহউদ্দিন আহমেদ, সাবেক মন্ত্রিপরিষদসচিব আলী ইমাম মজুমদার,    স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব আবু আলম শহীদ খান, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব মহিউদ্দিন আহমদ, অর্থনীতিবিদ ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, মানবাধিকারকর্মী খুশী কবির, সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক পারভীন হাসান, সুজনের (সুশাসনের জন্য নাগরিক) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক তোফায়েল আহমেদ, সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট ড. শাহদীন মালিক, সাবেক রাষ্ট্রদূত তারিক করিম, নারীপক্ষের সদস্য শিরিন হক, বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি  সালমা আলী, সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট ব্যারিস্টার সারা হোসেন, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম, অ্যাকশন এইডের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক গীতি আরা নাসরিন, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং, আলোকচিত্র শিল্পী ড. শহিদুল আলম, ব্রতীর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন মুরশিদ, সুপ্রিম কোর্টের অ্যাডভোকেট সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, লেখক অধ্যাপক রেহনুমা আহমেদ প্রমুখ।



সাতদিনের সেরা