kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২ ডিসেম্বর ২০২১। ২৬ রবিউস সানি ১৪৪৩

ছায়ানটের মানববন্ধন

অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও

কুমিল্লার ঘটনার জের ধরে দেশের বেশ কয়েকটি স্থানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মন্দির ও বাড়িঘরে হামলার প্রতিবাদে গতকাল রাজধানীর ধানমণ্ডির সাতমসজিদ রোডে নিজেদের ভবনের সামনে মানববন্ধন করে ছায়ানট। ছবি : কালের কণ্ঠ

‘সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও’—এই স্লোগান নিয়ে রাজধানীতে মানববন্ধন করেছে দেশের ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘ছায়ানট’। গতকাল শুক্রবার সকালে ধানমণ্ডি ছায়ানট সংস্কৃতি ভবনের সামনে অনুষ্ঠিত এই মানববন্ধন থেকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে বাঙালি সংস্কৃতি চর্চা ও বিকাশে জরুরি উদ্যোগ নেওয়ার আহবান জানানো হয়েছে।

শারদীয় দুর্গোৎসবে সাম্প্রদায়িক হামলা, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট ও হত্যার প্রতিবাদে আয়োজিত এই মানববন্ধনে ছায়ানটের কর্মী-সংগঠকরা ছাড়াও জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত সম্মিলন পরিষদ, আবৃত্তি সংগঠন কণ্ঠশীলন, ছায়ানট সংগীত বিদ্যায়তন, নালন্দা উচ্চ বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন সংগঠন ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে অংশ নেয়। মানববন্ধনের পুরোটা সময় সমবেত কণ্ঠে দেশাত্মবোধক ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার গান পরিবেশন করে তারা। এর মধ্যে রয়েছে ‘ও আমার দেশের মাটি, আমি মারের সাগর পাড়ি দেব, দুর্গম-গিরি-কান্তার মরু, ফুল খেলবার দিন নয় অদ্য, যশোর-খুলনা-বগুড়া-পাবনা এবং বাংলার হিন্দু বাংলার বৌদ্ধ।’

মানববন্ধনে অংশ নেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর আতিউর রহমান, ছায়ানটের নির্বাহী সভাপতি ডা. সারওয়ার আলী, সাধারণ সম্পাদক লাইসা আহমেদ লিসা, শিল্পী খায়রুল আনাম শাকিল, শিল্পী বুলবুল ইসলাম, শিক্ষক হাফিজুর রহমান প্রমুখ।

মানববন্ধন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ডা. সারওয়ার আলী বলেন, প্রতিনিয়ত দেশের বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটছে; যে কারণে হিন্দু সম্প্রদায় তাদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা নির্বিঘ্নে উদযাপন করতে পারেনি, যা অত্যন্ত দুঃখজনক। তিনি বলেন, দেশের সংবিধান সব ধর্মের মানুষের সম-অধিকার নিশ্চিত করেছে। কাজেই এই পরিস্থিতি কখনোই কাম্য হতে পারে না। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের দায়িত্ব শুধু রাষ্ট্রের একার নয়, সমাজের সবার।

সারওয়ার আলী বলেন, ‘আমরা বাঙালিরা সব সময় অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী। মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত এ দেশে ধর্মান্ধ শক্তির স্থান নেই। তাই সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ থেকে পরিত্রাণের জন্য বাঙালি সংস্কৃতি চর্চা ও বিকাশের একান্ত প্রয়োজন।’ একই সঙ্গে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি রুখে দিতে দেশবাসীকে প্রস্তুত থাকতে হবে। সম্প্রীতির বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান তিনি।



সাতদিনের সেরা