kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

গর্ভধারিণীকে নির্যাতন

ছেলে জেলে থাকবেন ১০ মাস ১০ দিন

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

১০ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ছেলে জেলে থাকবেন ১০ মাস ১০ দিন

মিশন মিয়া। শক্ত সামর্থ্যবান ২১ বছরের টগবগে যুবক। আয়-রোজগার না থাকলেও ঠিকই বেঁধেছেন গাঁটছড়া। তখন থেকেই তিনি কিছুটা বোহেমিয়ান। বাবা নেই, গর্ভধারিণী মা দরজির কাজ করে ঘোরান সংসারের চাকা। এমনিতেই খরচের টান, তার ওপর মায়ের ঘামে ভেজা টাকার জন্য ছেলে মিশনের উন্মাতাল আচরণ আর মানতে পারছিলেন না গর্ভধারিণী।

গত শুক্রবার সন্ধ্যায়ও নামে মায়ের ওপর নির্যাতনের খড়্গ। সেদিনও এক দফা মারধর ও ভাঙচুর শেষে মিশন দা নিয়ে ছোটেন মমতাময়ী মাকে কোপাতে। সে সময় ভয়ে জবুথবু মায়ের মর্মন্তুদ গোঙানি। চিত্কার শুনে এগিয়ে আসে আশপাশের মানুষ। প্রাণহরণ থেকে এ যাত্রায় বাঁচলেন মা। ঘটনাটি হবিগঞ্জের নবীগঞ্জের পূর্ব তিমিরপুর গ্রামের।

এ ঘটনা এক কান দুই কান হয়ে চলে যায় স্থানীয় প্রশাসনের কাছে। নবীগঞ্জ থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তুলে আনে মিশনকে। বসানো হয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। শুক্রবার রাত ১০টার দিকে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মহি উদ্দিন গর্ভধারিণীকে নির্যাতনের দায়ে মিশন মিয়াকে ১০ মাস ১০ দিন কারাদণ্ড দেন। মিশন পূর্ব তিমিরপুর গ্রামের মৃত হোসেন মিয়ার ছেলে।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহি উদ্দিন জানান, মাকে প্রায়ই নির্যাতন করতেন মিশন, আগে থেকেই অভিযোগ ছিল। শুক্রবার ফের নির্যাতনের খবর পেয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে তাঁকে ১০ মাস ১০ দিন বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।



সাতদিনের সেরা