kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩ কার্তিক ১৪২৮। ১৯ অক্টোবর ২০২১। ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে

দুই মাসের মধ্যে শুরু হবে মূল নির্মাণকাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দুই মাসের মধ্যে শুরু হবে মূল নির্মাণকাজ

ঢাকার সঙ্গে সাভার, আশুলিয়া, নবীনগর ও ইপিজেডসংলগ্ন শিল্প এলাকার যোগাযোগব্যবস্থা উন্নত করতে নির্মাণ করা হচ্ছে ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। এই এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের ফলে দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের প্রায় ২০টি এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রায় ছয়টি জেলার মানুষ আশুলিয়া-নবীনগর-বাইপাইল হয়ে সহজে ঢাকায় প্রবেশ করতে পারবে। আবার ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েটি নির্মাণাধীন ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের সঙ্গে বিমানবন্দর এলাকায় যুক্ত হবে। এতে করে সাভারের সঙ্গে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের যোগাযোগের সহজ পথ তৈরি হবে।

ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পটি সাভার ইপিজেড থেকে আশুলিয়া-বাইপাইল-আব্দুল্লাহপুর হয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এলাকায় নির্মাণাধীন ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে পর্যন্ত নির্মাণ করা হবে। এর মূল দৈর্ঘ্য হবে ২৪ কিলোমিটার। সঙ্গে এতে ওঠা-নামার পথ (র‌্যাম) থাকবে আরো ১০ কিলোমিটার। এই এক্সপ্রেসওয়ে পুরোটা উড়াল পথে হচ্ছে না। মোট পথের ১৪.২৮ কিলোমিটার এক্সপ্রেসওয়ে থাকবে সমতলে। এর দুই পাশে দুটি সার্ভিস লেনও থাকবে।

প্রকল্পের কাজ করছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইম্পোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশন। এই প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ১৬ হাজার ৯০১ কোটি টাকা। এর মধ্যে বাংলাদেশ সরকার দেবে পাঁচ হাজার ৯৫১ কোটি এবং চীন সরকার (জিটুজি) দেবে ১০ হাজার ৯৪৯ কোটি টাকা।

শনিবার সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের তুরাগ থানাধীন ধউর এলাকায় ঢাকা-আশুলিয়া এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের স্ট্যাটিকলোড টেস্টের পাইলট পাইলিংয়ের উদ্বোধন করেন।

২০২৬ সালের জুনের ভেতর শেষ হবে এই প্রকল্পের নির্মাণকাজ—জানিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এই প্রকল্পের লোন চুক্তি সম্পন্ন হবে। আমাদের তহবিলসংক্রান্ত কোনো সমস্যা নেই। এ ছাড়া বর্তমানে যে রাস্তাটি আছে, এটা যেভাবে আছে থাকুক। অনেক মানুষ বিকল্প পথ হিসেবে এটি ব্যবহার করে। এখানে মানুষের যেন ভোগান্তি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। রাস্তা যেন ব্যবহারের উপযোগী থাকে।’

প্রকল্প পরিচালক মো. শাহাবুদ্দিন খান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী দুই মাসের মধ্যে প্রকল্পের নির্মাণকাজ শুরু হবে। এই মুহূর্তে কোনো ধরনের জটিলতা নেই। জমি অধিগ্রহণসহ অন্য সব কাজ সময়মতো হচ্ছে।’



সাতদিনের সেরা