kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ কার্তিক ১৪২৮। ২৮ অক্টোবর ২০২১। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

বসুন্ধরার এমডির পক্ষ থেকে ছয় হাজার পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



বসুন্ধরার এমডির পক্ষ থেকে ছয় হাজার পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

নারায়ণগঞ্জের কাঞ্চন পৌরসভা, দাউদপুর ও রূপগঞ্জে ছয় হাজার পরিবারের মধ্যে বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরের পক্ষ থেকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

মহামারি করোনাভাইরাসের শুরু থেকেই সারা দেশের অসহায়, দরিদ্র, বেকার ও ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পপ্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপ। এরই মধ্যে দেশের প্রতিটি জেলার কয়েক লাখ হতদরিদ্র মানুষের মাঝে খাদ্য সহায়তা দিয়ে তাদের মুখে হাসি ফুটিয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপ। এর ধারাবাহিকতায় গতকাল শনিবার নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার কাঞ্চন পৌরসভা, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন ও দাউদপুর ইউনিয়ন—এই তিন স্থানে ছয় হাজার অসহায় ও হতদরিদ্র মানুষকে খাদ্যসামগ্রী দেওয়া হয়েছে। বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীরের পাঠানো এসব খাদ্যসামগ্রী পেয়ে তাদের মুখে ফোটে অমলিন হাসি।

দুস্থ-অসহায় মানুষজন বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলে, কয়েক দিন শান্তিমতো পেট ভরে খেতে পারব। আল্লাহ বসুন্ধরা গ্রুপকে আরো বড় করুক, যাতে তারা আমাদের পাশে আরো বেশি বেশি করে দাঁড়াতে পারে। এদিকে গরিব ও অসহায় মানুষের জন্য খাদ্যসামগ্রী পাঠানোর কারণে বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন এসব অঞ্চলের জনপ্রতিনিধিরা। তাঁরা বলেন, করোনার ক্রান্তিকালে বসুন্ধরা গ্রুপ সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। এতে গরিব-অসহায় মানুষজন উপকৃত হয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জের তিনটি স্থানের মধ্যে প্রথমে কাঞ্চন পৌরসভার কেন্দুয়াতে সকাল ১০টার দিকে দরিদ্রদের মাঝে চাল, ডাল, আটাসহ বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রীর দুই হাজার প্যাকেট বিতরণ করা হয়। এসব খাদ্যসামগ্রী কাঞ্চন পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম রফিক গরিব ও দুস্থদের হাতে তুলে দেন। প্রত্যেকে ভীষণ খুশি হন এ উপহার পেয়ে।

খাদ্যসামগ্রী পেয়ে বিলকিস বেগম বলেন, ‘স্বামী দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ, কাজ করতে পারে না। সন্তানদের নিয়ে খুবই কষ্টে দিন কাটাচ্ছি। বসুন্ধরা গ্রুপের এসব খাদ্যসামগ্রী পেয়ে আমি অনেক খুশি হয়েছি। আল্লাহ বসুন্ধরা গ্রুপকে আরো বড় করুক।’ ত্রাণ পেয়ে দেওয়ান কবির নামের একজন বলেন, ‘আমরা গরিব মানুষ, এখন কোনো কাজকাম নেই, খাদ্য সহায়তা পেয়ে আমরা অনেক খুশি হয়েছি। বসুন্ধরা গ্রুপকে অনেক ধন্যবাদ।’ 

খাদ্যসামগ্রী বিতরণ শেষে মেয়র রফিকুল ইসলাম রফিক বলেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপ সব সময় দরিদ্র ও অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ায়। এবারও খাদ্যসামগ্রী দিয়ে পাশে দাঁড়িয়েছে। বসুন্ধরা গ্রুপের দেওয়া দুই হাজার প্যাকেট খাদ্যসামগ্রী কাঞ্চন পৌরসভার মানুষের মাঝে সুষ্ঠুভাবে বিতরণ করেছি। বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীর এসব খাদ্যসামগ্রী দেওয়ায় কাঞ্চন পৌরসভার হতদরিদ্র মানুষের জন্য অনেক উপকার হয়েছে। আমরা তালিকা করে টোকেনের মাধ্যমে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছি। আমি বসুন্ধরা গ্রুপের এমডির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।’

এরপর দুপুর ১২টায় রূপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদে বসুন্ধরা গ্রুপের দেওয়া দুই হাজার প্যাকেট খাদ্যসামগ্রী দরিদ্র মানুষের মাঝে বিতরণ করেন রূপগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজি ছালাউদ্দিন ও ইন্সপায়ার প্রোপার্টিজ ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের এমডি তারিকুল ইসলাম মোগল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি হাফিজুর রহমান সজিব, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাছুম চৌধুরী অপু ও নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি মনিরুজ্জামান ভুঁইয়া।

খাদ্যসামগ্রী পেয়ে মো. আবু সাঈদ (৬২) বলেন, ‘আমরা গ্রামবাসী খুবই খুশি হয়েছি। করোনার কারণে গ্রামে বেকারের সংখ্যা অনেক বেড়ে গেছে। কোনো কর্ম না থাকায় মানুষজন খাবারের খুব কষ্ট করছে। এ সময় বসুন্ধরা গ্রুপ খাদ্য সহায়তা দেওয়ায় মানুষের অনেক উপকার হয়েছে। এখন সবাই বসুন্ধরা গ্রুপের জন্য দোয়া করবে।’

উতুল চন্দ্র মণ্ডল নামের আরেকজন বলেন, ‘খাদ্যসামগ্রী পেয়ে এলাকার সবাই খুশি। আমরা আশা করি, বসুন্ধরা গ্রুপ বারবার খাদ্য সহায়তা নিয়ে আমাদের গরিবদের পাশে থাকবে।’

রূপগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজি ছালাউদ্দিন বলেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে আমার ইউনিয়নের দুই হাজার মানুষের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছি। আমি আমার ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সাহেবের প্রতি খুবই কৃতজ্ঞতা জানাই। করোনার মাঝেও বসুন্ধরা গ্রুপ আমাদের উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছে। এতে আমাদের ইউনিয়নের কর্মহীন, দরিদ্র অসহায় মানুষজন খুবই উপকৃত হয়েছেন।’

ইন্সপায়ার প্রোপার্টিজের এমডি তারিকুল ইসলাম মোগল বলেন, ‘করোনা মহামারির শুরু থেকেই বসুন্ধরা গ্রুপ সারা দেশেই বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় ত্রাণসামগ্রী দিয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে আমরা রূপগঞ্জ উপজেলায় দুস্থ-অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছি।’ 

বিকেল ৪টায় দাউদপুর ইউনিয়নে বসুন্ধরার দেওয়া দুই হাজার প্যাকেট খাদ্যসামগ্রী তুলে দেন চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী হকার্স লীগের যুগ্ম সম্পাদক কামাল হোসেন কমল, দাউদপুর ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক সিকদার, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশিকুল ইসলাম খোকন, দাউদপুর ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিকান্দার আজাদ, দাউদপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির মোল্লা প্রমুখ।

ত্রাণ পেয়ে এই ইউনিয়নের ফিরোজ মিয়া বলেন, ‘অসুস্থতার জন্য কিছুদিন ধরে রিকশা নিয়ে বের হতে পারছি না। বসুন্ধরা গ্রুপের খাদ্য সহায়তা পেয়ে আমার জন্য অনেক ভালো হয়েছে। কিছুদিন সন্তানদের নিয়ে ভালোভাবে খেতে পারব।’

খাদ্যসামগ্রী পেয়ে সমলা বেগম নামের এক বৃদ্ধার মুখে ফুটে ওঠে হাসি। তিনি বলেন, ‘এই খাবারে আমার অনেক দিন চলে যাবে। বসুন্ধরা গ্রুপ আমাকে এতগুলো খাবার দিল। তারা আমাদের যেন সব সময় সহযোগিতা করতে পারেন এ দোয়া করি।’

দাউদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর বলেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে আমার ইউনিয়নের ৫৪টি গ্রামের গরিব, অসহায় ও নিম্ন আয়ের দুই হাজার মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছি। ইউনিয়নের ওয়ার্ড মেম্বারের সহায়তায় প্রতিটি গ্রাম থেকে তালিকা করে এসব খাদ্যসামগ্রী দিয়েছি। আমার ইউনিয়নবাসীর পাশে থাকার জন্য আমি বসুন্ধরা গ্রুপের এমডির প্রতি কৃতজ্ঞ।’



সাতদিনের সেরা