kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

তৃতীয় দিনের বৈঠক

‘আন্দোলনের জন্য তৈরি বিএনপির অঙ্গসংগঠন’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘আন্দোলনের জন্য তৈরি বিএনপির অঙ্গসংগঠন’

নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে রাজপথে আন্দোলনের বিকল্প নেই বলে জানিয়েছেন বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতারা। তাঁরা বলেছেন, দলের শীর্ষ পর্যায় থেকে যখনই আন্দোলনের ডাক আসবে, তখনই তাঁরা আন্দোলনে নামার জন্য প্রস্তুত আছেন।

গতকাল বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতাদের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর এসব কথা বলেন দলটির বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতারা। নির্বাচন সামনে রেখে দলের কর্মকৌশল ঠিক করতে গতকাল তৃতীয় দিনের মতো এই বৈঠক হয়। রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বৈঠক শুরু হয় বিকেল ৪টায়। শেষ হয় রাত ৯টার দিকে।

অনলাইনের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। এতে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু উপস্থিত ছিলেন।

গতকালের বৈঠকে যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, তাঁতী দল, উলামা দলসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের শীর্ষ পর্যায়ের ৯২ নেতা অংশগ্রহণ করেন। তাঁদের মধ্যে যুবদলের সাইফুল ইসলাম নিরব, সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, মোরতাজুল করীম বাদরু, নুরুল ইসলাম নয়ন, মামুন হাসান, স্বেচ্ছাসেবক দলের মোস্তাফিজুর রহমান, আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, ইয়াসীন আলী, সাদরেজ জামান, রফিকুল ইসলাম, নাজমুল হাসান, মহিলা দলের আফরোজা আব্বাস, সুলতানা আহমেদ, নেওয়াজ হালিমা আরলী, শাম্মী আখতার, জেবা খান, হেলেন জেরিন খান, চৌধুরী নায়াবা ইউসুফ, তাঁতী দলের আবুল কালাম আজাদ, মৎস্যজীবী দলের রফিকুল ইসলাম মাহতাব, ছাত্রদলের ফজলুর রহমান খোকন, ইকবাল হোসেন শ্যামল, কাজী রওনুকুল ইসলাম শ্রাবন, জাকিরুল ইসলাম, আশরাফুল আলম ফকির লিংকন, হাফিজুর রহমান, মামুন খান, পার্থদেব মণ্ডল, আমিনুর রহমান আমিন,  উলামা দলের শাহ নেসারুল হক, নজরুল ইসলাম তালুকদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের তিনটি সভা হলো। শনিবার দলের স্থায়ী কমিটির সভা আছে। সেখানে সিদ্ধান্ত নেব যে আরো সভা করব কি না।’ তিন দিনের বৈঠকে কোনো সিদ্ধান্ত এসেছে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা সময়মতো জানতে পারবেন। আমাদের প্রয়োজনেই আপনাদের জানাব।’

গতকালের বৈঠকে অনেক নেতা কৃষক দলের কমিটি নিয়ে লেজে-গোবরে অবস্থার কথা তুলে ধরেন। মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস তাঁর বক্তব্যে বলেন, মহিলা দলকে শক্তিশালী করতে সংগঠনের বাইরে থাকা অনেক নারী নেত্রী ও সাবেক এমপিকে সম্পৃক্ত করা প্রয়োজন। তাই নতুনভাবে এ সংগঠনকে ঢেলে সাজাতে হবে। শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, তাঁদের কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে অনেক আগে। সংগঠনের কেন্দ্রীয় ৩৫ সদস্যের অনেকে মারা গেছেন, অনেকে অসুস্থ। এ অবস্থায় নতুন কমিটি প্রয়োজন।

উলামা দলের আহ্বায়ক মাওলানা শাহ নেসারুল হক বলেন, সারা দেশের জনগণ বিএনপির দিকে তাকিয়ে আছে। তাদের ভোটাধিকার, মানবাধিকার পুনরুদ্ধার করতে বিএনপিকেই নেতৃত্ব দিতে হবে। ওই আন্দোলনে তাঁর মতো বয়োজ্যেষ্ঠরাও সাধ্যমতো ভূমিকা পালন করবেন বলে আশ্বাস দেন তিনি।

 



সাতদিনের সেরা