kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৯ ডিসেম্বর ২০২১। ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

আলোচনাসভায় ফখরুল

চার শর্ত পূরণ ছাড়া কোনো নির্বাচন নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চার শর্ত পূরণ ছাড়া কোনো নির্বাচন নয়

‘নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় নির্বাচন হতে হবে। আর সবার আগে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। একই সঙ্গে ৩৫ লাখ মানুষের বিরুদ্ধে যে মিথ্যা মামলা আছে তা প্রত্যাহার করতে হবে। এর আগে এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না।’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গতকাল শনিবার এক আলোচনাসভায় এসব কথা বলেছেন। জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এই সভার আয়োজন করা হয়।

আওয়ামী লীগ সভাপতিকে উদ্দেশ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘দলের কার্যনির্বাহী পরিষদের সভায় সবাইকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। কিন্তু কোন নির্বাচন? যে নির্বাচন শুধু আপনাকে নির্বাচিত করবে, জনগণ ভোট দিতে যেতে পারবে না এবং তাদের বাড়ি-ঘর আক্রমণ করা হবে, কেন্দ্রে গেলে বেইজ্জতি-নির্যাতন করা হবে, সেই নির্বাচন? বাংলাদেশে আর সে ধরনের নির্বাচন হবে না। নির্বাচন একটা হবে, তবে তা অবশ্যই হতে হবে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে, নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায়।’

নির্বাচন কমিশন গঠনে সংসদে আইন প্রণয়নের উদ্যোগে আপত্তি জানিয়ে ফখরুল বলেন, ‘যে পার্লামেন্টে আর কেউ নেই, কথা বলার সুযোগ নেই; নিজেদের সুবিধার জন্য সেখানে একতরফা আইন পাস করে নিয়ে যাবেন, তা দেশের মানুষ মেনে নেবে না।’

বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘আমাদের একটাই উদ্দেশ্য—শেখ হাসিনারে মারো টান, গদি হবে খান খান। শেখ হাসিনার পতন সব সমস্যা সমাধানের পথ খুলবে। সব দল-মত-নির্বিশেষ এখন একটাই ইস্যু—অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের গ্যারান্টি, হাসিনার পদত্যাগ।’ তিনি আরো বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন গঠনে হয়তোবা আমরা মতামত দেব। তবে শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রেখে ফেরেশতা এনে যদি নির্বাচন কমিশন করা হয়, তার পরও লাভ হবে না। কারণ শয়তান যেখানে আসর করে, সেখানে ফেরেশতারাও অসহায়।’

মহিলা দলের দুই গ্রুপে ঝগড়া : এদিকে প্রেস ক্লাবের তৃতীয় তলার সভাকক্ষে মহিলা দলের আলোচনাসভা চলাকালে সকাল ১০টার দিকে সংগঠনের দুই গ্রুপের নেতাকর্মীরা (সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক গ্রুপ) ঝগড়ায় লিপ্ত হলে তৈরি হয় বিশৃঙ্খলা। এক পর্যায়ে এক গ্রুপকে অনুষ্ঠানস্থল থেকে বের করে দেয় অন্য গ্রুপ। পরে নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

এ সময় নেতাকর্মীদের কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘পত্র-পত্রিকায় আপনাদের সম্পর্কে বিভিন্ন রকম লেখা দেখি। আপনারা নিজেদের মধ্যে কোন্দল করছেন, ঝগড়া করছেন। এই বিশৃঙ্খলা টলারেট করব না। যাঁরা করবেন তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। এগুলো বন্ধ করুন। চেয়ার দখল নয়, পদ দখল নয়; এখন আমাদের কাজ হলো রাজপথ দখল করা।’

মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদের সঞ্চালনায় আলোচনাসভায় নেওয়াজ হালিমা আরলি, হেলেন জেরিন খান, ইয়াসমীন আরা হক, চৌধুরী নায়াব ইউসুফ প্রমুখ বক্তব্য দেন।

স্থায়ী কমিটির বৈঠক : দেশের চলমান পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে গতকাল বৈঠক করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির নেতারা। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল এই সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যরা অংশ নেন।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন, করোনা পরিস্থিতি, দলের চেয়ারপারসনের চিকিৎসা এবং তাঁর বিরুদ্ধে মামলার অগ্রগতিসহ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে করা মামলার বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে। এ ছাড়া দলের বেশ কয়েকটি সাংগঠনিক বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন নেতারা।

 



সাতদিনের সেরা