kalerkantho

রবিবার । ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৫ ডিসেম্বর ২০২১। ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

ঘটনাস্থলের নামই ভুল, নতুন করে অভিযোগ গঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঘটনাস্থলের নামই ভুল, নতুন করে অভিযোগ গঠন

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় প্রথম দফা অভিযোগ গঠনের প্রায় এক বছর পর নতুন করে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। কিছু ভুল থাকার কারণে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২৫ আসামির বিরুদ্ধে আবার অভিযোগ গঠনের জন্য আদালত গতকাল বুধবার আদেশ দিয়েছেন।

গতকাল ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১-এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামানের আদালতে মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের দিন ধার্য ছিল। নতুন করে অভিযোগ গঠন করায় যুক্তিতর্ক উপস্থাপন পিছিয়ে গেল। আদালত আসামিদের আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করেছেন।

সংশ্লিষ্ট আদালতের সরকারি কৌঁসুলি আবু আব্দুল্লাহ ভুঁইয়া সাংবাদিকদের বলেন, আদালতে চার্জ ফরমে ঘটনাস্থলের নাম ভুল লেখা ছিল। এ রকম আরো কিছু ভুল ছিল। যেমন গেস্টরুমের স্থলে গেস্টহাউস লেখা হয়। কিন্তু বুয়েটে কোনো গেস্টহাউস নেই। তিনি বলেন, বিষয়টি রাষ্ট্রপক্ষের নজরে আসার পর তারা পুনরায় অভিযোগ গঠনের জন্য আবেদন করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে আদালত আদেশ দিয়েছেন। এতে করে মামলার বিচারকাজে বিলম্ব হবে না বলে তিনি মনে করেন।

গত বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর প্রথম দফায় আবরার হত্যা মামলার অভিযোগ গঠন করা হয়। এরপর ৫ অক্টোবর মামলার বাদী ও আবরারের বাবা বরকতউল্লাহ আদালতে সাক্ষ্য দেন। এর মধ্য দিয়ে এই মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। গত ২৪ জানুয়ারি তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. ওয়াহিদুজ্জামান মামলার শেষ সাক্ষী হিসেবে আদালতে জবানবন্দি দেন। এরপর গত ৪ মার্চ তদন্তকারী কর্মকর্তার জেরার মধ্য দিয়ে সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়। এই মামলায় মোট ৬০ জন সাক্ষীর মধ্যে ৪৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর রাতে বুয়েটের শেরেবাংলা হলের দ্বিতীয় তলার সিঁড়ি থেকে অচেতন অবস্থায় আবরার ফাহাদকে উদ্ধার করা হয়। পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। তখন অভিযোগ ওঠে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ক্ষমতাসীন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এই ঘটনায় জড়িত বলে অভিযোগ করা হয়। ঘটনার পরের দিন ৭ অক্টোবর চকবাজার থানায় আবরারের বাবা বরকতউল্লাহ হত্যা মামলা দায়ের করেন। গত ১৩ নভেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) পরিদর্শক ওয়াহিদুজ্জামান আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। অভিযোগপত্রে ২৫ আসামিকে অভিযুক্ত করা হয়।



সাতদিনের সেরা