kalerkantho

সোমবার । ৯ কার্তিক ১৪২৮। ২৫ অক্টোবর ২০২১। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয় হিন্দু মহাজোটের প্রতিবাদ

শাহীন আনাম সিন্ডিকেট দায় এড়াতে পারে না

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৯ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



শাহীন আনাম সিন্ডিকেট দায় এড়াতে পারে না

অভিযোগ করতে গিয়ে যাঁরা সাফাই গেয়েছেন, তাঁদের অনেকে এনজিওকর্মী। বিশেষ করে যাঁরা মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনামের এনজিও থেকে আর্থিক সহায়তাপুষ্ট এবং সুবিধাভোগী, তাঁদের বিবৃতি সাধারণ হিন্দু সমাজের প্রতিনিধিত্ব করে না। পাশাপাশি যাঁরা বিবৃতি দিয়েছেন, তাঁরা কেউ হিন্দু ধর্মীয় গুরু নন। তাই তাঁদের বক্তব্য গ্রহণযোগ নয় বলে মন্তব্য করেছে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট।

বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের বক্তব্যের সূত্র ধরে ‘হিন্দু আইন প্রণয়নে নাগরিক উদ্যোগ’-এর প্রতিবাদের পাল্টা প্রতিবাদ জানিয়েছেন হিন্দু মহাজোটের মহাসচিব গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক। প্রতিবাদলিপিতে বলা হয়েছে, হিন্দু আইন প্রণয়নে নাগরিক উদ্যোগের প্রতিবাদ হিন্দু মহাজোটের দৃষ্টিগোচর হয়েছে।

দেশে হিন্দু মা-বাবার সম্পত্তিতে সন্তানের সম-অধিকারের বিষয়ে আইন প্রণয়নের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নন এমন ব্যক্তি ও সংগঠন নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের বক্তব্যের প্রতিবাদে হিন্দু আইন প্রণয়নে নাগরিক উদ্যোগ বলেছে, শাহীন আনাম মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক; কিন্তু তিনি আইন প্রণয়নের সঙ্গে যুক্ত নন এবং ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনাম কোয়ালিশনের সঙ্গে কোনোভাবে যুক্ত নন।

এর জবাবে হিন্দু মহাজোটের নেতারা বলেছেন, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন তাদের ওয়েবসাইটে নিজেরাই উল্লেখ করেছে, ‘হিন্দু উত্তরাধিকার আইন ২০২০-এর খসড়া তৈরি করেছে নাগরিক উদ্যোগ আর মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন হচ্ছে এই কোয়ালিশনের সচিবালয়।’ এই খসড়া আইন আইনমন্ত্রীকে দেওয়ার জন্য তারা একটি ওয়েবিনার করে। ওই ওয়েবিনারে খসড়া উত্তরাধিকার আইন প্রণয়নের প্রেক্ষাপট আলোচনা করেন মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের পরিচালক রীনা রায়, আইনটি উপস্থাপন করেন প্রগ্রাম কো-অর্ডিনেটর অর্পিতা দাস, সভার প্রধান ছিলেন শাহীন আনাম।

আরো বলা হয়, ওয়েবিনারে বলা হয়েছে, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন ২০০৭ সাল থেকে বাংলাদেশের হিন্দু নাগরিকদের জন্য বিভিন্ন আইনের খসড়া প্রণয়নে সহায়তা করছে। ২০০৭ সালে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনসহ বিভিন্ন মানবাধিকার ও নারী অধিকার সংগঠনের সমন্বয়ে জাতীয় পর্যায়ে গঠন করা হয় হিন্দু আইন প্রণয়নে নাগরিক উদ্যোগ নামে একটি কোয়ালিশন। শুরু থেকেই এই কোয়ালিশনের সমন্বয়ের দায়িত্ব পালন করে আসছে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন। ৩০ মার্চ ২০২১-এর গোলটেবিল বৈঠকেও প্রধান আলোচক ছিলেন শাহীন আনাম। আলোচনায় তিনি স্পষ্ট করে বলেছেন, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনসহ আরো কয়েকটি সংগঠন এ বিষয়ে কাজ করেছে।

প্রথম আলো পত্রিকা ৬ এপ্রিল গোলটেবিল বৈঠকের বক্তব্য প্রকাশ করে। সেখানে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের আয়োজনে ভার্চুয়াল গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ২০০৭ সাল থেকে সব কিছুর মূলে কাজ করছে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন। অতএব তারা নিজেরাই তাদের ওয়েবসাইটে এবং প্রথম আলোর প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে। যেখানে সব কাজ শাহীন আনামের পরিকল্পনায়, নির্দেশে, উপস্থিতিতে ও আর্থিক সহযোগিতায় হচ্ছে, সেখানে তিনি তার দায় অস্বীকার করতে পারেন না।

মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন বিভিন্ন এনজিওকে অর্থ সহায়তা দেয়। সুতরাং মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের কাছ থেকে যারা অর্থ গ্রহণ করে, তারাও মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন নির্দেশিত পথেই কাজ করবে—এটাই স্বাভাবিক। সহায়তা পাওয়া কয়েকটি এনজিওর নাম যুক্ত করে শাহীন আনাম নিজের দায় এড়াতে পারেন না।

মাহফুজ আনাম ডেইলি স্টারের সম্পাদক। পত্রিকায় যা কিছু ছাপা হবে, আইন অনুযায়ী তার দায় এড়ানোর সুযোগ নেই। মাহফুজ আনামের পত্রিকায় (৬ এপ্রিল ২০২১) মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের সিনিয়র কো-অর্ডিনেটর শাহানা হুদা রঞ্জনার জাতিগত, হিন্দু ধর্ম বিদ্বেষী ও ধর্মীয় উসকানিমূলক ‘কল্পনা রাণীর জীবন ও সম্পদে হিন্দু নারীর সমানাধিকারের প্রশ্ন’ শিরোনামে একটি কল্পকাহিনি প্রচার করে। কল্পকাহিনিটি হিন্দুদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করেছে। আবার মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নানা বিতর্কিত কর্মসূচি বাছবিচার ছাড়াই ফলাও করে প্রচার করে যাচ্ছে পত্রিকাটি। ঘটনাগুলো একটির সঙ্গে আরেকটি যুক্ত।

হিন্দু মহাজোট দৃঢ়তার সঙ্গে ঘোষণা করছে, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম, ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনাম ও এঞ্জেলা গোমেজকে হিন্দু সমাজের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। তা না হলে হিন্দু ধর্ম, বিধি-বিধান ও শাস্ত্র অবমাননা, হিন্দু পরিবারে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য দেশজুড়ে গণস্বাক্ষর অভিযান চালিয়ে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন ও ‘বাঁচতে শেখা’র কার্যক্রম নিষিদ্ধের দাবি জানানো হবে। মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের অফিস ঘেরাও করা হবে। ধর্ম অবমাননার অভিযোগে দেশজুড়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে। পাশাপাশি মাহফুজ আনামকে ষড়যন্ত্রের পথ পরিহার করার আহবান জানানো হচ্ছে।



সাতদিনের সেরা