kalerkantho

বুধবার । ৪ কার্তিক ১৪২৮। ২০ অক্টোবর ২০২১। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

পানি বাড়ছে সব নদ-নদীর, তিস্তায় বিপৎসীমা পার

ছয় জেলায় বন্যা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে




পানি বাড়ছে সব নদ-নদীর, তিস্তায় বিপৎসীমা পার

দেশের প্রধান নদ-নদীগুলোর পানি বাড়ছে। তিস্তা নদীর পানি বিপত্সীমা অতিক্রম করেছে। বিভিন্ন জেলার নতুন নতুন নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে। এ অবস্থায় সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে আগামী ২৪ ঘণ্টায় দেশের ছয় জেলার নিম্নাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র থেকে গতকাল রবিবার বলা হয়েছে, দেশের প্রধান সব নদ-নদীর পানি বাড়ছে, যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় তিস্তা অববাহিকার অঞ্চলগুলোর বন্যা পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকতে পারে। তবে একই সময়ে সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার নিম্নাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। আগামী ৪৮ ঘণ্টায় পদ্মা নদীর গোয়ালন্দ পয়েন্টে পানি বিপত্সীমা অতিক্রম করতে পারে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় রাজবাড়ী, ফরিদপুর, শরীয়তপুর ও চাঁদপুর জেলার নিম্নাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে।

নীলফামারীতে তিস্তার পানি ফের বিপত্সীমা অতিক্রম করেছে। রবিবার বিকেল ৩টায় ডালিয়ায় তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে নদীর পানি বিপত্সীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। তিন দিন ধরে তিস্তার পানি বাড়া-কমায় বিপাকে পড়েছে জেলার ডিমলা উপজেলার পূর্ব ছাতনাই, খগাখড়িবাড়ী, টেপাখড়িবাড়ী, খলিশা চাপানী, ঝুনাগাছ চাপানী ও গয়াবাড়ী ইউনিয়নের ১৫টি চরের পাঁচ হাজার পরিবার। এসব পরিবারের বাড়িঘরে পানি প্রবেশ করায় ব্যাহত হচ্ছে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা।

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, রবিবার তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে নদীর পানি সকাল ৬টায় বিপত্সীমার দুই সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়ে সকাল ৯টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকে। দুপুর ১২টায় বিপত্সীমা অতিক্রম করে আট সেন্টিমিটার এবং বিকেল ৩টায় ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।

ডিমলা উপজেলার পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খান বলেন, ‘তিস্তার পানি বিপত্সীমা অতিক্রম করায় ইউনিয়নের ঝাড়সিংহেশ্বর ও পূর্ব ছাতনাই গ্রামের প্রায় এক হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়ে। শনিবার সকালে কিছুটা কমলেও বিকেলে পানি বাড়তে শুরু করেছে। তিস্তাবেষ্টিত ১৫টি চর গ্রামের পাঁচ হাজার পরিবার কষ্টে রয়েছে।’

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আসফাউদদৌলা বলেন, ‘উজানের ঢলে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে ব্যারাজের কয়েকটি (৪৪) জলকপাট খুলে রাখা হয়েছে।’

পাঁচ দিন ধরে টানা বৃষ্টিতে মেঘালয় থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ভারত সীমান্তবর্তী সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার নদ-নদীর পানি বেড়েছে। তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়কের উপজেলার আনোয়ারপুর সেতুর পূর্ব পাশের সংযোগ সড়ক এবং বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার শক্তিয়ারখলা অংশে ওপর দিয়ে চার ফুট উচ্চতায় ঢলের পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এ কারণে গত বৃহস্পতিবার থেকে তাহিরপুর উপজেলার সঙ্গে জেলা শহর সুনামগঞ্জের সরাসরি যানবাহন চলাচল বন্ধ আছে।

তাহিরপুর-সুনামগঞ্জ সড়ক থেকে মেঘালয় পাহাড়ের দূরত্ব সাত কিলোমিটার, কোথায়ও আরো কম। টানা বৃষ্টি হলেই মেঘালয় থেকে পাহাড়ি ঢল নামে। ফলে ঢলের পানির চাপ পড়ে এ সড়কে।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রায়হান কবির বলেন, পাহাড়ি ঢলের কারণে সড়কের এই দুটি স্থান ডুবন্ত সড়কের নকশায় নির্মিত হয়েছে। পানির অধিক চাপ পড়লে সড়কের এই দুটি অংশের ওপর দিয়ে পাহাড়ি ঢলের পানি প্রবাহিত হয়। তবে বৃষ্টি কমলে পানি সরে যায়।

গতকাল সকাল ৯টা থেকে আগামী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে—রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের বেশির ভাগ জায়গায়, ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রাজশাহী, বরিশাল ও খুলনা বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি ও বজ সহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে ভারি বর্ষণ হতে পারে। গতকাল সকাল ৬টা পর্যন্ত সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে রাজারহাটে ৮০ মিলিমিটার।

(প্রতিবেদনটি তৈরিতে সহায়তা করেছেন সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধিরা)।



সাতদিনের সেরা