kalerkantho

সোমবার । ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৭ মে ২০২১। ০৪ শাওয়াল ১৪৪

ইলিয়াস আলী ‘গুমের’ নতুন তথ্য

কাকে টার্গেট করলেন মির্জা আব্বাস

এনাম আবেদীন   

১৯ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



কাকে টার্গেট করলেন মির্জা আব্বাস

ইলিয়াস আলী নিখোঁজের ৯ বছর পর বিস্ফোরক মন্তব্য করে বিএনপির ভেতর ও বাইরে আলোচনার ঝড় তুলেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। কিন্তু ইলিয়াস আলী ‘গুমের’ জন্য যে বিএনপি নেতাদের দিকে তাঁর অভিযোগের আঙুল, সেই নেতারা কারা, সেটি দলের কোনো পর্যায়ের নেতাকর্মী খুঁজে বের করতে পারছেন না। পাশাপাশি ‘গুম’ হওয়ার আগের রাতে দলীয় কার্যালয়ে কোন ব্যক্তির সঙ্গে ইলিয়াসের বাগবিতণ্ডা হয়েছিল, তা নিয়ে ব্যাপক কৌতূহল ছড়ালেও কাউকে চিহ্নিত করা যাচ্ছে না। তবে আব্বাসের বক্তব্যে বিএনপির ভেতর তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে বলে জানা গেছে।

যদিও আব্বাস গতকাল রবিবার এক সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেছেন, তাঁর বক্তব্য বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে, কাটপিস করা হয়েছে। তবে আব্বাসের ওই বক্তব্যের ভিডিও ক্লিপ কালের কণ্ঠ’র হাতে রয়েছে।

গত শনিবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনা এবং সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলীকে ফিরে পাওয়ার দাবিতে এক ভার্চুয়াল সভায় দেওয়া বক্তব্যে মির্জা আব্বাস বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার ইলিয়াস আলীকে গুম করেনি।’ এর পেছনে দলের ভেতরে থাকা কয়েকজনকে দায়ী করে তিনি বলেন, ‘ওই নেতাদের সবাই চেনেন।’ ঘটনার আগের রাতে দলীয় কার্যালয়ে এক ব্যক্তির সঙ্গে ইলিয়াসের বাগবিতণ্ডা হয়েছিল বলেও দাবি করেন মির্জা আব্বাস।

২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল রাজধানীর বনানী থেকে গাড়িচালক আনসার আলীসহ নিখোঁজ হন ইলিয়াস আলী। এত দিন বিএনপি অভিযোগ করে আসছিল, তাঁকে সরকারই ‘গুম’ করে রেখেছে।

জানা গেছে, কী কারণে মির্জা আব্বাস ওই বক্তব্য দিয়েছেন, সরাসরি সংবাদ সম্মেলন ডেকে সে বিষয়টি ‘ক্লিয়ার’ করতে নির্দেশনা দিয়েছেন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলন বা সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এ ঘটনার ব্যাখ্যা আব্বাস দিতে চাইলেও ক্ষুব্ধ তারেক তা নাকচ করে দেন। তারেক ছাড়াও দলটির বেশির ভাগ নেতাকর্মী, এমনকি আব্বাসের ঘনিষ্ঠজনরাও তাঁর বক্তব্যে হতবাক হয়েছেন বলে জানা গেছে।

সূত্র মতে, ঘনিষ্ঠজনদের অনেকেই ফোন করে এই বিষয়ে আব্বাসের কাছে জানতে চেয়েও কোনো উত্তর পাননি।

জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আব্বাসের মতো পুরনো একজন রাজনীতিক এ ধরনের কথা বলবেন, সেটি চিন্তাও করতে পারি না। এ বিষয়ে অবশ্যই তাঁর কৈফিয়ত দিতে হবে।’ প্রশ্ন তুলে সাবেক এই স্পিকার বলেন, ‘ইলিয়াসের গুমের সঙ্গে সরকার জড়িত, এটাই আমরা জানি। এখন উনি (আব্বাস) অন্য লোকদের কথা বলে থাকলেও সেটা উনারই ক্লিয়ার করা উচিত।’

দলটির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় মনে করেন, ‘মির্জা আব্বাস হয়তো দলের খারাপ লোকদের সম্পর্কে কিছু বলতে চেয়েছেন। কিন্তু ঠিকমতো গুছিয়ে না বলতে পেরে তালগোল পাকিয়েছেন।’ ‘তা ছাড়া এ ধরনের কথা বলার জন্য কেউ তাঁকে ফাঁদেও ফেলতে পারে’—সংশয় প্রকাশ করে বলেন গয়েশ্বর।

দলটির বিভিন্ন পর্যায়ের আরো অন্তত এক ডজন নেতার সঙ্গে কথা বললেও আব্বাসের বক্তব্যের বিষয়ে তাঁরা কোনো প্রতিক্রিয়া জানাতে রাজি হননি। তবে আলাপচারিতায় তাঁরা প্রায় সবাই উষ্মা প্রকাশ করেন। জ্যেষ্ঠ একজন নেতা বলেন, বিএনপির রাজনীতিতে আব্বাসের সারা জীবনের অর্জন এক বক্তব্যে তিনি নিজেই শেষ করে দিয়েছেন।

আরেক নেতা কালের কণ্ঠকে জানান, নিখোঁজের আগের দিন খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শিমুল বিশ্বাসের সঙ্গে ইলিয়াস আলীর বাগবিতণ্ডা হয়েছে বলে শুনেছেন তিনি। কিন্তু ইলিয়াস আলীর মতো নেতাকে গুম করার মতো ‘লম্বা হাত’ শিমুলের রয়েছে বলে দলটির কোনো নেতা বিশ্বাস করেন না।

বেশ কয়েকজন নেতা জানান, খালেদা জিয়া রাজনীতিতে সক্রিয় থাকার সময় দলটির বেশ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতার পাশাপাশি প্রয়াত সাদেক হোসেন খোকার সঙ্গেও কয়েকবার তর্ক হয়েছে শিমুল বিশ্বাসের। খোকা একদিন গুলশান কার্যালয়ে প্রকাশ্যে শিমুলকে ধমকান। কিন্তু এসব ঘটনার আলাদা তাৎপর্য রয়েছে বলে বিএনপিতে কখনো আলোচনা হয়নি। ফলে হঠাৎ করে আব্বাসের বক্তব্য নিয়ে বিএনপিতে নানামুখী আলোচনা ও বিশ্লেষণ শুরু হয়েছে। কারো মতে, ঘরোয়া আলোচনায় যেসব কথাবার্তা হয়, আগপাছ না ভেবে সেগুলোই সভায় বলে ফেলেছেন আব্বাস। আবার কারো মতে, রাজনৈতিক আলোচনায় বেশ সতর্ক আব্বাস পরিকল্পিতভাবে এবং বিশেষ কোনো মহল বা সরকারকে সুবিধা করে দিতে বিএনপিকে বিপাকে ফেলেছেন। কারণ এরই মধ্যে ওই ঘটনায় বেশ কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতা সরব হয়েছেন। তাঁরা বলছেন, ইলিয়াস আলীকে নিয়ে বিএনপির মিথ্যাচারের ভয়ংকর রূপ এত দিনে উন্মোচিত হয়েছে। শনিবার রাতেই সরকার সমর্থক অনেকে আব্বাসের ওই বক্তব্যের ভিডিও আপলোড করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন। বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা মনে করেন, বিএনপির বিরুদ্ধে সরব হওয়ার একটি ‘অস্ত্র’ বহুদিন পর সরকারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, এমন আলোচনায় বিএনপিতে আব্বাসের বর্তমান অবস্থান, তাঁর চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য এবং আব্বাসের অতীত ও বর্তমানের নানা ঘটনা যুক্ত করে হিসাব মেলানোর চেষ্টা করছেন নেতারা। তাঁরা বলছেন, বিএনপি নেতাদের মধ্যে আব্বাস কিছুটা ‘ধনাঢ্য’ হিসেবে পরিচিত। তাঁর টিকে থাকার ব্যাপার আছে। আবার কেউ কেউ মনে করেন, ইলিয়াস আলী ‘গুমের’ সঙ্গে শক্তিশালী একটি দেশ এবং ওই দেশটির প্রতি আনুগত্য থাকা বিএনপির একটি অংশের জড়িত থাকার কথাই বলতে চেয়েছেন আব্বাস। কিন্তু ওই দেশের কথা না বলে সরাসরি তিনি বিএনপি নেতাদের টার্গেট কেন করলেন, সে হিসাব মিলছে না। ঢাকা মহানগরের রাজনীতিতে একসময় আব্বাসের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন সাদেক হোসেন খোকা। কিন্তু এখন তিনিও নেই। অনেকের মতে, বিএনপিতে আব্বাসের ওইভাবে প্রকাশ্যে-অপ্রকাশ্যে কোনো শত্রুও নেই। তাই তাঁর ওই বক্তব্য অনেকের কাছেই ‘রহস্যময়’ ঠেকছে।