kalerkantho

রবিবার। ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৬ মে ২০২১। ০৩ শাওয়াল ১৪৪২

লুডুর হারজিত গড়াল নির্বাচনী সহিংসতায়

প্রাণ গেল একজনের

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি   

১৬ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লুডুর হারজিত গড়াল নির্বাচনী সহিংসতায়

মাদারীপুরের শিবচরে লুডু খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনা রূপ নেয় নির্বাচনী সহিংসতায়। এতে ইলিয়াছ ঢালী (৪০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় চারজনকে আটক করেছে পুলিশ। উপজেলার ডিক্রিরচরের বাসিন্দা ইলিয়াস রাজধানীতে ফলের ব্যবসা করতেন।

স্থানীয় ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, বুধবার বিকেলে ডিক্রিরচরের ইলিয়াছ ঢালী ও জলিল মোল্লার ছেলে শাহিন বাজি ধরে মোবাইলে লুডু খেলেন। বাজিতে ইলিয়াছ জিতলে টাকা নিয়ে দুজনের মধ্যে হাতাহাতি বাধে। পরে শাহিন লোকজন নিয়ে ইলিয়াসের ওপর হামলা চালান। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে কয়েকজন আহত হন। গুরুতর আহত ইলিয়াছকে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী বি এম জাহাঙ্গীর বেপারীর সমর্থক ইউপি সদস্য আব্বাস ঢালী। সেখানে তাঁর ওপর আবারও হামলা চালায় আরেক চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মো. শাহালম তালুকদার চাঁন মিয়ার সমর্থকরা। এ অবস্থায় ইলিয়াছকে সেখান থেকে সরিয়ে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে নিজ বাড়িতে ইলিয়াসের দাফন সম্পন্ন হয়।

ইলিয়াসের স্ত্রী ফাতেমা আক্তার এ হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি করে বলেন, ‘ওকে (ইলিয়াছ) হাসপাতালে চিকিত্সা দিতে পারলে মারা যেত না। শাহালম তালুকদারের লোকজন হাসপাতালে মেম্বারসহ সবার ওপর হামলা চালিয়েছে।’

জাহাঙ্গীর বেপারী বলেন, ‘গণ্ডগোলটা প্রথমে কোনো পক্ষের ছিল না। আমি দুই পক্ষকে হাসপাতালে পাঠালে শাহালম তালুকদার লোকজন নিয়ে ইউপি সদস্য আব্বাস ঢালীসহ অনেককে হাসপাতালে মারধর করে। মারধরের ভিডিও ফেসবুকে আছে।’

শাহালম তালুকদার বলেন, ‘আমি হাসপাতালে রোগী দেখতে দোতলায় গিয়েছিলাম। নিচে কী হয়েছে আমি জানি না।’

শিবচর থানার ওসি মিরাজ হোসেন জানান, এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। উভয় পক্ষের দুটি মামলা হয়েছে।