kalerkantho

রবিবার । ২৬ বৈশাখ ১৪২৮। ৯ মে ২০২১। ২৬ রমজান ১৪৪২

শ্বাস নিতেই নাভিশ্বাস

১৪০০ লিটারের এক সিলিন্ডার অক্সিজেনের দামই সাড়ে ১৬ হাজার টাকা

তামজিদ হাসান তুরাগ   

১৪ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে




শ্বাস নিতেই নাভিশ্বাস

দেশে করোনা সংক্রমণের পাশাপাশি দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। সঙ্গে বাড়ছে মুমূর্ষু রোগীর জন্য হাসপাতালগুলোতে অক্সিজেনের চাহিদা। হাসপাতালে আইসিইউয়ের সংখ্যা সীমিত থাকায় অনেকে বাধ্য হয়ে বাসায় অক্সিজেন সিলিন্ডার রেখে করোনা চিকিৎসা নিচ্ছে। ব্যাপক চাহিদার কারণে দাম বেড়েছে এসব অক্সিজেন সিলিন্ডারের।

বর্তমান বাজারে এক হাজার ৪০০ লিটারের একেকটি অক্সিজেন সিলিন্ডার কিনতে গুনতে হচ্ছে কমপক্ষে সাড়ে ১৬ হাজার টাকা। আর একবার গ্যাস রিফিল করতে খরচ হচ্ছে কমপক্ষে ৩০০ টাকা। তবে সেই এক হাজার ৪০০ লিটারের অক্সিজেন সিলিন্ডার ব্যবহারে রয়েছে নানা সীমাবদ্ধতা। স্বাভাবিক গতিতে এই অক্সিজেন রোগীর শ্বাস নিতে সহায়তা করবে এক হাজার ৫০০ মিনিট আর ঘণ্টার হিসাবে ২৫ ঘণ্টা। তবে এই অক্সিজেন ব্যবহার কতটা স্বাস্থ্যসম্মত, তা নিয়েও রয়েছে নানা প্রশ্ন।

রাজধানীতে মূলত বাণিজ্যিকভাবে অক্সিজেন সিলিন্ডার বিক্রি হয় মগবাজার ও সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল এলাকায়। এসব সিলিন্ডার রাজধানীসহ সারা দেশে বাজারজাত করে চট্টগ্রামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ডা. কাজী সাইফুদ্দিন বেন্নুর বলেন, ‘আসলে এভাবে সিলিন্ডারে করে অক্সিজেন বিক্রি অত্যন্ত ঝুঁকির ব্যাপার। কোনোভাবে যদি এই সিলিন্ডারে লিকেজ হয় তাহলে ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। ফলে এই বিষয়গুলো নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে।’

সিলিন্ডার ব্যবহারকারীদের পরামর্শ দিয়ে তিনি আরো বলেন, ‘আসলে করোনা সংক্রমিত সবার জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার লাগে না। আতঙ্কিত হয়ে দোকান থেকে সিলিন্ডার কিনে এনে বাসায় মজুদ করবেন না, এতে অসাবধানতার কারণে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।’

গতকাল মঙ্গলবার সরেজমিনে রাজধানীর বেশ কিছু দোকানে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বাজারে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে এক হাজার ৪০০ লিটারের অক্সিজেন সিলিন্ডার। ২০ হাজার লিটার অক্সিজেন সিলিন্ডারেরও রয়েছে চাহিদা। কারণ এই দুই সাইজের সিলিন্ডার সহজে পরিবহন করা যায়। দামের পার্থক্যও রয়েছে অনেকটা। এক হাজার ৪০০ লিটারের অক্সিজেন গ্যাস সিলিন্ডারসহ দাম পড়ে সাড়ে ১৬ হাজার টাকা। আর ২০ হাজার লিটার অক্সিজেন গ্যাস সিলিন্ডারের দাম পড়ছে ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা। এই পরিমাণের সিলিন্ডারটির দাম দুই মাস আগেও ছিল ১০ হাজার টাকা। ফলে দরিদ্র মানুষের ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে গেছে এসব অক্সিজেন সিলিন্ডার। বাজারে যে শুধু সিলিন্ডারের দাম বেড়েছে, তা নয়। এর সঙ্গে বেড়েছে আনুষঙ্গিক জিনিসপত্রের দামও। এগুলোর মধ্যে রয়েছে মাস্ক, থার্মোমিটার ও অক্সিমিটার। বর্তমান বাজারে ‘জাম্পার’ ব্র্যান্ডের একটি অক্সিমিটার এক হাজার ৭০০ টাকায় এবং অন্য ব্র্যান্ডগুলো এক হাজার থেকে এক হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কিছুদিন আগেও জাম্পার অক্সিমিটারের দাম ছিল এক হাজার ১০০ টাকার কাছাকাছি। অন্য ব্র্যান্ডগুলোর দাম ছিল ৬০০ টাকা।

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, আগের চেয়ে বাজারে অক্সিজেনের চাহিদা বাড়লেও দাম তেমন বাড়েনি। তবে দাম বেড়েছে সিলিন্ডারের সঙ্গে ব্যবহার করা কিছু সরঞ্জামের। রাজধানীর মগবাজারের ব্যবসায়ী শরিফুর রহমান বলেন, ‘সিলিন্ডারের চাপ আগের চেয়ে খানিকটা বেশি। তবে দিন দিন সিলিন্ডারের চাহিদা বাড়ছে। তার পরও আগের দামেই বিক্রি করছি। এক হাজার ৪০০ লিটারের সিলিন্ডারের ফুল সেটআপ সাড়ে ১৬ হাজার টাকা চলছে। ২০ হাজার লিটারের সিলিন্ডার বিক্রি হচ্ছে ২০ হাজার টাকায়।’

গেল বছর পরিবারের জন্য ২০ হাজার লিটারের অক্সিজেন সিলিন্ডার কিনেছিলেন রুমেল আবেদিন। তিনি বলেন, ‘আগের বছর মায়ের জন্য এক হাজার ৪০০ লিটারের সিলিন্ডার কিনেছিলাম ১৫ হাজার টাকায়। সেই সিলিন্ডার এখন সাড়ে ১৬ হাজার টাকা। আগের তুলনায় দাম খুব বেশি বাড়েনি।’ তবে ভিন্ন কথা বললেন আরেক সিলিন্ডার ব্যবহারকারী খোরশেদ। তাঁর দাবি, দুই মাস আগে তিনি ২০ হাজার লিটারের সিলিন্ডার কিনেছিলেন ১০ হাজার টাকায়, এখন সেটার দাম ২০ হাজার টাকা। তিনি বলেন, ‘এখন বাজারে চাহিদা বেশি, তাই ব্যবসায়ীরা দাম রাখছে বেশি। মাস দুয়েক আগে যখন দেশে করোনা সংক্রমণ কম ছিল তখন ২০ হাজার লিটারের এই সিলিন্ডারগুলো বিক্রি হতো সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকায়। এখন চাহিদা বেশি, তাই দামও বেশি চাচ্ছে।’

 



সাতদিনের সেরা