kalerkantho

বুধবার । ১১ কার্তিক ১৪২৮। ২৭ অক্টোবর ২০২১। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট বললেন

বঙ্গবন্ধু অনুপ্রেরণা স্বাধীনতার প্রতীক

অব্যাহত সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারের কাছে আমরা ঋণী : ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ্

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

১৭ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বঙ্গবন্ধু অনুপ্রেরণা স্বাধীনতার প্রতীক

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে কেবল বাংলাদেশের নয়, বিশ্বজুড়ে মানুষের নিরবচ্ছিন্ন অনুপ্রেরণার প্রতীক হিসেবে উল্লেখ করেছেন মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ্। আজ বুধবার বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার আগে এক বার্তায় তিনি এই সফরকে তাঁর জন্য সম্মানের বলে উল্লেখ করেছেন।

মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘বাঙালির অধিকার প্রতিষ্ঠায় অনেক ত্যাগ ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য বঙ্গবন্ধু চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন। তাঁর উত্তরাধিকার ও রাষ্ট্রনায়কোচিত দৃষ্টান্ত আগামী প্রজন্মকে অনুপ্রেরণা জোগাবে। টেকসই শান্তি ও সমৃদ্ধির বিষয়ে শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন থেকে আমরা শিক্ষা নেওয়া অব্যাহত রাখব। তাঁর (বঙ্গবন্ধুর) উত্তরাধিকার আরো দীর্ঘস্থায়ী হোক।’

জাতিসংঘের স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের জন্য বঙ্গবন্ধুর এই জন্মদিনে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশের সরকার ও জনগণকে অভিনন্দন জানান। কভিড-১৯ মোকাবেলায় দৃষ্টান্তমূলক উদ্যোগ নেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ্ বলেন, ‘এ বছর বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের ৪৩তম বার্ষিকী। পারস্পরিক আস্থা ও সম্মানের ভিত্তিতে এই সম্পর্ক পরিচালিত হয়ে আসছে। আমাদের দুই সম্প্রদায়ের ঐতিহাসিক যোগসূত্র অনেক পুরনো। এই সম্পর্ক সেই প্রাচীন মালদ্বীপ-বেঙ্গলের কড়ি বাণিজ্য থেকে।’ তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের অনেক সাদৃশ্য। আমরা উভয়েই মুসলিম রাষ্ট্র। আমরা আমাদের জনগণের জন্য উচ্চ পর্যায়ের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নপ্রত্যাশী। জলবায়ু পরিবর্তন ও সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির মতো অভিন্ন উদ্বেগের কারণে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আমাদের অবস্থান অভিন্ন।’

মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মালদ্বীপে মানবসম্পদ উন্নয়নে অন্যতম প্রধান সহযোগী বাংলাদেশ। মালদ্বীপে বিপুলসংখ্যক বাংলাদেশি রয়েছে। তারা মালদ্বীপের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।’

বিভিন্ন সময়ে মালদ্বীপের প্রতি বাংলাদেশের সহযোগিতার উল্লেখ করে প্রেডিডেন্ট সলিহ্ বলেন, ‘কভিড-১৯ মহামারির সময়েও এই সহযোগিতা প্রতিফলিত হয়েছে। বাংলাদেশ মালদ্বীপে ত্রাণ সহায়তা পাঠিয়েছে, বাংলাদেশ ও নেপালে আটকে পড়া মালদ্বীপের নাগরিকদের স্থানান্তরের পাশাপাশি মালদ্বীপকে স্বাস্থ্যসেবা খাতে সহযোগিতা হিসেবে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর চিকিৎসকদল মোতায়েন করেছে। অব্যাহত সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারের কাছে মালদ্বীপের জনগণ ও আমি ঋণী।’

প্রেসিডেন্ট সলিহ্ বাংলাদেশের জনগণের অব্যাহত শান্তি, অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন। এর পাশাপাশি আগামী দিনগুলোতে সম্পর্ক আরো জোরদারে মালদ্বীপ সরকারের পক্ষে তিনি অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন।

আরো জোরালো সম্পর্কের আশা মালদ্বীপের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর : এদিকে মালদ্বীপের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল্লাহ শহিদ এক বার্তায় বাংলাদেশের সঙ্গে তাঁর দেশের সম্পর্ক আরো জোরদার হওয়ার আশা প্রকাশ করেছেন। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে বাংলাদেশের জনগণ ও সরকারকে শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেছেন, ‘দূরদর্শী নেতা হিসেবে বঙ্গবন্ধু আমাদের হৃদয়ে আছেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও উন্নয়নে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা অপরিমেয়।’

মালদ্বীপের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাঙালি জনগণের জন্য একটি স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্রের স্থপতি হিসেবে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা সব সময় স্মরণ করা হবে। বঙ্গবন্ধুর জোরালো উত্তরাধিকারের উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়নে বাংলাদেশ উন্নতি ও অগ্রগতির পথে যাত্রা অব্যাহত রাখবে বলে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি।’

আবদুল্লাহ শহিদ বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর এই বছরে বাংলাদেশ-মালদ্বীপ সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় উন্নীত হয়েছে। দুই দেশের মধ্যে জোরালো রাজনৈতিক সম্পর্ক এবং গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন খাতে জোরালো সহযোগিতা রয়েছে। চিকিৎসা ও প্রতিরক্ষা খাতে সক্ষমতা উন্নয়নসহ বিভিন্ন খাতে মালদ্বীপকে বাংলাদেশ সহযোগিতা করছে।



সাতদিনের সেরা