kalerkantho

রবিবার। ২৮ চৈত্র ১৪২৭। ১১ এপ্রিল ২০২১। ২৭ শাবান ১৪৪২

নোয়াখালী সদর ও কোম্পানীগঞ্জে পৃথকভাবে ৭ই মার্চ উদযাপন

নোয়াখালী প্রতিনিধি   

৮ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নোয়াখালী সদর ও কোম্পানীগঞ্জে পৃথকভাবে ৭ই মার্চ উদযাপন

কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই গতকাল রবিবার নোয়াখালী জেলা শহর ও কোম্পানীগঞ্জে পৃথক আয়োজনে উদযাপন করা হয়েছে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ। এর অংশ হিসেবে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, শোভাযাত্রা, সমাবেশ ও ঐতিহাসিক ভাষণ প্রচার করা হয়েছে।

গতকাল সকাল সাড়ে ৯টায় জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল ওয়াদুদ পিন্টুর নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। একই সময় নোয়াখালী পৌরসভা কার্যালয়ে শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র শহীদ উল্যাহ খান সোহেলের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানানো হয়। সকাল ১১টায় জেলা শহরের হাউজিং বালুর মাঠে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

অন্যদিকে বিকেল ৩টায় সোনাপুর ডিগ্রি কলেজ মাঠে সমাবেশে বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী। তিনি বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জাকে ইঙ্গিত করে বলেন, ‘পূর্বদিকে একটা পাগল হইছে। কোম্পানীগঞ্জে একটা পাগল হইছে। আমি নেত্রী এবং কাদের ভাইয়ের কাছে নোয়াখালীর পৌর মেয়র হিসেবে নতুন নেতৃত্ব চাই। আমরা সেই নেতৃত্ব চাই, যারা প্রতিটি মুহূর্ত শহরকে এবং শহরের নেতাকর্মীদের বুকে আগলে রাখতে পারবে।’

সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এ কে এম সামছুউদ্দিন জেহান, জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ইমন ভট্ট, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আসাদুজ্জামান আরমান প্রমুখ।

কোম্পানীগঞ্জে মির্জাবিরোধীদের সমাবেশ : আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার সঙ্গে বিরোধের জের ধরে কোম্পানীগঞ্জে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপ গতকাল পৃথকভাবে ৭ই মার্চ পালন করেছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের আয়োজনে মির্জাবিরোধী পক্ষ সকাল ১১টায় বসুরহাট নুরুল হক বীর-উত্তম (ডাকবাংলো) প্রাঙ্গণে সমাবেশ করে। সমাবেশ শেষে তারা উপজেলা পরিষদ কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানায়। সমাবেশে বক্তারা মেয়র আবদুল কাদের মির্জাকে অপরাজনীতির হোতা হিসেবে অবহিত করে তাঁর কঠোর সমালোচনা করেন।

কাদের মির্জার সমাবেশ : অন্যদিকে আবদুল কাদের মির্জার নেতৃত্বে  সকাল ১১টায় বসুরহাট পৌর হলে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে সকাল ১০টার দিকে কাদের মির্জার নেতৃত্বে বসুরহাট বাজারের বঙ্গবন্ধু চত্বরে ৭ই মার্চ উপলক্ষে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।

সমাবেশে কাদের মির্জা বলেন, ‘আমাদের নেতা ওবায়দুল কাদের সাহেব আজকে দিশেহারা। কিছু ষড়যন্ত্রকারীর খপ্পরে পড়ে আজকে তাঁর উসকানিতে এখানে তারা সমাবেশ করছে। অথচ আমাদের দল সমাবেশ বন্ধ করেছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমার অপরাধ, আমি কেন শেখ হাসিনার সঙ্গে ডাইরেক্ট যোগাযোগ করি। এটা উনি বরদাশত করতেছেন না। আমি তো নেত্রীর সঙ্গে প্রথম থেকে যোগাযোগ করে নির্বাচনও করতেছি, সব কিছু করতেছি। আমি এটা থেকে সরতে পারব না। আমাদের শেষ ঠিকানা হচ্ছেন নেত্রী। আজকে আমরা তাঁর নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ।’

কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ তিন ভাগ্নে : বসুরহাট পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের বীর-উত্তম নুরুল হক মিলনায়তনে গতকাল কাদের মির্জার বিরোধী পক্ষ আয়োজিত সমাবেশে বক্তব্য দিতে গিয়ে আপন তিন ভাগ্নে কাদের মির্জার কঠোর সমালোচনা করেন। এই তিনজন একটি সময়ে কাদের মির্জার বিশ্বস্ত ও ঘনিষ্ঠ সহচর হিসেবে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগে সক্রিয় ছিলেন। কাদের মির্জার এই তিন ভাগ্নে হলেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রশীদ মঞ্জু, স্বাধীনতা ব্যাংকার্স পরিষদ সদস্য ফখরুল ইসলাম রাহাত ও রামপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ছালেকীন রিমন।

 

মন্তব্য