kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

লিবিয়া থেকে ফেরত ১৪৮ জন, সঙ্গে ৭ লাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লিবিয়া থেকে ফেরত ১৪৮ জন, সঙ্গে ৭ লাশ

কেউ সহায়-সম্বল বিক্রি করে, কেউ বা জমি, বাড়িঘর বন্ধক রেখে, আবার কেউ উচ্চ সুদে ঋণ নিয়ে পাড়ি দিয়েছিলেন স্বপ্নের ইউরোপে। কেউ কেউ পৌঁছে গেলেও বেশির ভাগের ভাগ্য থেমে যায় লিবিয়ায়। কেউ কেউ মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরতে পারলেও অনেকের সলিলসমাধি রচিত হয় ভূমধ্যসাগরে।

গতকাল বুধবার বিশেষ বিমানে লিবিয়া থেকে এমন ১৪৮ হতভাগ্য বাংলাদেশি এবং অন্য সাতজনের লাশ দেশে ফিরেছে। গতকাল সকাল সাড়ে ৯টায় বিশেষ বিমানটি ঢাকায় পৌঁছায়।

প্রবাসী কল্যাণ ডেস্ক ও আর্মড পুলিশের সহায়তায় (এপিবিএন) তাঁদের দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। বিমানবন্দরে এই বাংলাদেশিদের খাবারসহ জরুরি সহায়তা দেয় ব্র্যাকের একটি টিম। আর আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) তাঁদের বাড়ি পৌঁছে দিতে অর্থ সহায়তা দিয়েছে বলে জানান ব্র্যাকের মাইগ্রেশন কর্মসূচি প্রধান শরিফুল হাসান।

বিশেষ বিমানটি সকালে অবতরণ করলেও বিমানবন্দরে নানা আনুষ্ঠানিকতা শেষে বিকেলে তাঁদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

শরিফুল হাসান জানান, এই বাংলাদেশিরা ইউরোপ যাওয়ার উদ্দেশে লিবিয়া গিয়েছিলেন। বিমানবন্দরের কর্মকর্তারা আমাদের জানিয়েছেন, লিবিয়া থেকে বাংলাদেশিদের নিয়ে বিমানটি বেনিনা বিমানবন্দর থেকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উড্ডয়ন করে। ফেরত আসা এই বাংলাদেশির বেশির ভাগ ভ্রমণ ভিসায় দুবাই হয়ে ইউরোপের উদ্দেশে লিবিয়া যান।

অভিবাসী পরিচয়ে হাজারো মানুষের সীমানা পেরোনোর সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে লাশের সংখ্যাও।

স্বপ্নের দেশগুলোয় ঢুকতে গিয়ে অনেকের সলিলসমাধি রচিত হচ্ছে সমুদ্রে। অনেকে লিবিয়ার ডিটেনশন সেন্টারগুলোয় নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন মাসের পর মাস।

 

মন্তব্য