kalerkantho

সোমবার । ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭। ৮ মার্চ ২০২১। ২৩ রজব ১৪৪২

থমথমে বসুরহাট

নোয়াখালী প্রতিনিধি   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



থমথমে বসুরহাট

বসুরহাটের রূপালী চত্বরে একই স্থানে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা এবং কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদলের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি ঘোষণাকে ঘিরে বসুরহাট পৌর এলাকায় স্থানীয় প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করায় গতকাল সোমবার দিনভর বসুরহাটে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করেছে। কাদের মির্জা রূপালী চত্বরের পাশে দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান নেন। আর মিজানুর রহমান বাদল সেখানে পৌর এলাকার বাইরে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চর কাঁকড়া ইউনিয়নের টেকেরহাট বাজারে সমর্থকদের নিয়ে সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যার প্রতিবাদে সমাবেশ করেন।

রবিবার রাত ১১টায় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন বসুরহাট পৌর এলাকায় সোমবার সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সব ধরনের সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করে ১৪৪ ধারা জারি করে। রাতে ১৪৪ ধারা জারির বিষয়ে মাইকিং করার পর বসুরহাট পৌর এলাকায় থমথমে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। ভোররাতে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা শহরে আসার মূল সড়কে কাদের মির্জার সমর্থকরা গাছের গুঁড়ি ফেলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। পরে পুলিশ এসে গাছের গুঁড়ি সরিয়ে ফেলে।

গতকাল সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বসুরহাটের বেশির ভাগ দোকানপাট বন্ধ ছিল। ব্যবসায়ীরা জানান, তাঁরা জান-মালের নিরাপত্তার স্বার্থে দোকানপাট খোলেননি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বসুরহাট পৌর এলাকার প্রবেশপথগুলো গাছের গুঁড়ি, ইটপাটকেল ফেলে আটকে রাখা হয়েছে। পুলিশ এসে সেসব সরিয়ে চলে গেলে আবারও রাস্তা অবরোধ করে রাখা হয়।

সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যার বিচারের দাবিতে গতকাল দুপুর আড়াইটায় বসুরহাট পৌরসভার রূপালী চত্বরে শোকসভা ও মিলাদ মাহফিলের ঘোষণা দেন আবদুল কাদের মির্জা। এর আগে শনিবার সংবাদ সম্মেলন থেকে একই স্থানে বিকেল ৩টায় সমাবেশ করার ঘোষণা দেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল।

এদিকে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বসুরহাট পৌর এলাকায় সোমবার সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করেন।

জেলা পুলিশ সুপার মো. আলমগীর হোসেন জানান, কাউকে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করতে দেওয়া হয়নি। কোথাও সরকারি আদেশ অমান্য করে সভা-সমাবেশ করার চেষ্টা হলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কঠোর ছিল বলে কেউ তা করেনি। গতকাল বিকেলে দলীয় কার্যালয়ে কাদের মির্জা নেতাকর্মীদের জানান, নেত্রী তাঁকে মেসেজ পাঠিয়েছেন শান্ত থাকতে। তিনি বিষয়টি দেখছেন।

মির্জা কাদেরের নেতৃত্বে সাংবাদিকের ওপর হামলার অভিযোগ

কোম্পানীগঞ্জে চরফকিরা ইউনিয়নে সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কিরের দাফন সম্পন্ন হওয়ার আগেই আরেক সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বসুরহাট রূপালী চত্বরের কাছে অনলাইন নিউজ পোর্টাল বার্তা২৪ ও স্বদেশ প্রতিদিন পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি গিয়াস উদ্দিন রনিরকে বসুরহাট রূপালী চত্বরের পাশে তাঁর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের সামনে মারধর করে কাদের মির্জার সমর্থকরা। এ সময় কাদের মির্জা নিজে গালমন্দ করতে করতে সাংবাদিকের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের দিকে এগিয়ে যান।

টেকেরহাটে প্রতিবাদ সমাবেশ 

পূর্বনির্ধারিত স্থান বসুরহাট রুপালী চত্বরে ১৪৪ ধারা জারির কারণে সেখানে সমাবেশ করতে না পারায় গতকাল বিকেলে টেকেরহাট বাজারে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল। গতকাল বিকেল ৪টায় এই সমাবেশ শুরু হয়ে চলে রাত ৮টা পর্যন্ত।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা