kalerkantho

বুধবার । ৮ বৈশাখ ১৪২৮। ২১ এপ্রিল ২০২১। ৮ রমজান ১৪৪২

ল্যানসেটের গবেষণা

মৃত সন্তান প্রসব গর্ভপাতের কারণ বায়ুদূষণও

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৯ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মৃত সন্তান প্রসব গর্ভপাতের কারণ বায়ুদূষণও

বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি গর্ভপাত ও মৃত সন্তান প্রসবের ঘটনা ঘটে দক্ষিণ এশিয়ায়। এ অঞ্চলের তিনটি দেশে জনসংখ্যা তাত্ত্বিক ও স্বাস্থ্যগত জরিপ চালিয়ে গবেষকরা বলছেন, বায়ুদূষণের কারণেও মৃত সন্তান প্রসব কিংবা গর্ভপাতের মতো ঘটনা ঘটতে পারে। এসংক্রান্ত গবেষণা প্রতিবেদন আন্তর্জাতিক চিকিৎসা সাময়িকী ‘দ্য ল্যানসেট’-এ গত বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হয়েছে।

চীনের ন্যাচারাল সায়েন্স ফাউন্ডেশন এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে দেশটির বিজ্ঞানীরা এই গবেষণাটি করেছেন। এতে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানের মোট ৩৪ হাজার ১৯৭ জন মায়ের তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়েছে। এই মায়েদের অন্তত একবার গর্ভপাত হয়েছে কিংবা তাঁরা একটি মৃত সন্তান প্রসব করেছেন। তাদের প্রত্যেকের এক বা একাধিক সন্তান আছে। এই মায়েদের মধ্যে বাংলাদেশির সংখ্যা তিন হাজার ৬৮৭।

গবেষকরা বলছেন, ১৯৯৮ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত গর্ভপাত কিংবা মৃত সন্তান প্রসবের ইতিহাস আছে—এমন মায়েদের তথ্য গবেষণায় ব্যবহার করা হয়েছে। সংগৃহীত উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ২০০০ থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে প্রতিবছর প্রায় সাড়ে তিন লাখ এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে দক্ষিণ এশিয়ায়, যার মধ্যে অন্তত ৭.১ শতাংশ ঘটনার জন্য দূষিত বায়ু দায়ী।

গবেষণা প্রতিবেদনের অন্যতম লেখক তিয়ানজিয়া গুয়ান বলছেন, গর্ভপাত কিংবা মৃত সন্তান প্রসবের ঘটনা মায়েদের ওপর মানসিক, শারীরিক ও অর্থনৈতিক প্রভাব ফেলে। সে কারণে এসব ঘটনা কমানো গেলে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে লিঙ্গসমতার সূচক ভালো হতে পারে।

এর আগে ল্যানসেটের আরেক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৯ সালে ভারতে ১৬ লাখ ৭০ হাজার মানুষের প্রাণহানির কারণ ছিল বায়ুদূষণ, যা দেশটির মোট মৃত্যুর ১৮ শতাংশ। একই কারণে ২০১৭ সালে মারা যায় ১২ লাখ ৪০ জন।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা