kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল

তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক হান্নান খান চলে গেলেন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩০ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক হান্নান খান চলে গেলেন

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হান্নান খান আর নেই। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল রবিবার দুপুরে তিনি মারা যান। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর।

বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলারও প্রধান তদারকি কর্মকর্তা ছিলেন হান্নান খান। এ ছাড়া জেলহত্যা মামলা এবং বুদ্ধিজীবী হত্যা মামলারও তদন্ত তদারকি কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি স্ত্রী ও দুই ছেলে-মেয়ে রেখে গেছেন।

তাঁর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আইনমন্ত্রী আনিসুল হকসহ বিশিষ্টজনরা গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা ও জেলহত্যা মামলার তদন্তসহ দায়িত্ব পালনে হান্নান খানের নিষ্ঠা ও দক্ষতার কথা শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করে তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার সহসমন্বয়ক সানাউল হক জানান, গত বৃহস্পতিবার হান্নান খানের জ্বর আসে। সেদিনই করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা করলে রেজাল্ট পজিটিভ আসে। জ্বর বেড়ে গেলে সিএমএইচে নেওয়া হয়। সেখানে দুই দিন শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছিল। কিন্তু গতকাল  সকালে হঠাৎ করে অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে। দুপুর পৌনে ১টার দিকে তিনি মারা যান।

হান্নান খান পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি হিসেবে অবসরে যাওয়ার পর ২০১১ সালের ১২ জানুয়ারি তাঁকে আইজিপি পদমর্যাদায় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।

আব্দুল হান্নান খানের জন্ম নেত্রকোনার পূর্বধলা খলিশাউর খানপাড়ায়। তিনি ১৯৬২ সালে হামদুর রহমান শিক্ষা কমিশন আন্দোলনে কিশোরগঞ্জ মহকুমার ছাত্র সংগ্রাম কমিটির সভাপতি ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের এই ছাত্র আইয়ুব খানবিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় অংশ নেন। ১৯৬৪ সালে তিনি ডাকসু নির্বাচনে সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি ১৯৭১ সালে ১১ নম্বর সেক্টর থেকে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। ১৯৭৩ সালে বিসিএস প্রথম ব্যাচে এএসপি হন; প্রশিক্ষণে প্রথম স্থান অর্জন করেন তিনি। পরে ঢাকা মহানগর পুলিশ, পুলিশ সিকিউরিটি সেল ও সিআইডিতে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা