kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ১ ডিসেম্বর ২০২০। ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী রুট

ফেরি চালুর পাঁচ ঘণ্টার মধ্যে ফের বন্ধ

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৭ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফেরি চালুর পাঁচ ঘণ্টার মধ্যে ফের বন্ধ

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌ রুটে ফেরি চলাচল দীর্ঘ ১১ দিন বন্ধ থাকার পর গতকাল সোমবার শুরু হলেও তা পুনরায় বন্ধ হয়ে গেছে। পদ্মা সেতু কর্তৃপক্ষের আপত্তির মুখে চালুর পাঁচ ঘণ্টার ব্যবধানে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বিআইডাব্লিউটিসি। এ অবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ এই নৌ রুটে নদী পারাপারে যাত্রীদের ভোগান্তি আরো দীর্ঘায়িত হলো। কবে নাগাদ আবার ফেরি সার্ভিস শুরু হবে তা-ও সংশ্লিষ্ট কেউ বলতে পারছে না।

পরীক্ষামূলকভাবে গত রবিবার ‘কুমিল্লা’ ফেরি চালু করা হয় এই নৌ রুটে। আর গতকাল থেকে ফেরি চলাচল শুরু হয়েছিল পদ্মা সেতুর নিজস্ব চ্যানেলে। কিন্তু এই চ্যানেলে ফেরি চলাচল করলে পদ্মা সেতু প্রকল্পের অধীনে থাকা ৪০০ কেভিএ বিদ্যুৎ টাওয়ার নির্মাণকাজে ব্যবহৃত ক্রেন ও গুরুত্বপূর্ণ নৌযান চলাচলে জটিলতা তৈরি হয়। তাই ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়।

বিআইডাব্লিউটিসি শিমুলিয়া ঘাটের এজিএম শফিকুল ইসলাম জানান, গতকাল ভোর ৬টায় মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের শিমুলিয়া ঘাট থেকে মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ী ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে যায় ফেরি ‘কিশোরী’ ও ‘কাকলি’। ফেরিগুলো নদীর লৌহজং পয়েন্ট পদ্মা সেতুর ৩৭-৩৮ নম্বর পিয়ারের মধ্যে বিকল্প চ্যানেলে পদ্মা পাড়ি দেয়। পরে কাঁঠালবাড়ী ঘাট থেকেও দুটি ফেরি শিমুলিয়া ঘাটে আসে। কিন্তু সকাল ১১টার দিকে পদ্মা সেতুর কাজ ব্যাহত হচ্ছে বলে জানায় সেতু কর্তৃপক্ষ। এর পরই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বিআইডাব্লিউটিএ চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক গত রবিবার শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌ রুট পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি দুই মাস ধরে একটি চ্যানেল তৈরি করতে না পারায় ড্রেজিং বিভাগের কর্মকর্তাদের ভর্ত্সনা করেন। পরে তিনি পদ্মা সেতুর নিজস্ব চ্যানেল দিয়ে ফেরি চালু করতে বলেন বিআইডাব্লিউটিসিকে। কুমিল্লা নামের ফেরিটি ওই দিনই পরীক্ষামূলকভাবে শিমুলিয়া থেকে কাঁঠালবাড়ীর উদ্দেশে রওনা হয়। কিন্তু পদ্মা সেতুর ২৬ নম্বর পিয়ারের কাছে ফেরিটি নাব্যতা সংকটে ডুবোচরে আটকে যায়। এ অবস্থায় বাধ্য হয়ে ফেরিটি শিমুলিয়া ঘাটে ফিরে আসে। বিআইডাব্লিউটিএ চেয়ারম্যান গতকাল থেকে পদ্মা সেতুর নিজস্ব চ্যানেল দিয়ে ফেরি চলাচলের নির্দেশনা দেন। গতকাল থেকে এই চ্যানেল দিয়ে ফেরি চলাচল শুরু হলেও সেতু কর্তৃপক্ষের আপত্তির কারণে তা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয় বিআইডাব্লিউটিসি।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) আব্দুল কাদের জানান, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত সেতুর পাশ দিয়ে চ্যানেলে ফেরি চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা সেই চ্যানেল ব্যবহার না করে অনুমতি না নিয়েই বিকল্প চ্যানেলে ৪০০ কেভিএ বিদ্যুৎ লাইনের টাওয়ার নির্মাণের রুট দিয়ে চলাচল করছিল। এতে সেতুর কাজে গুরুত্বপূর্ণ নৌযান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সেতুর কাজে জটিলতা তৈরি হওয়ার বিষয়টি তাদের জানানো হয়েছে। তারা মন্ত্রণালয় থেকে অনুমতি পেলে অবশ্যই চ্যানেলটি ব্যবহার করতে পারবে।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা