kalerkantho

সোমবার । ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৩০ নভেম্বর ২০২০। ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২

হেফাজতে রায়হানের মৃত্যু

জবানবন্দি দিলেন তিন কনস্টেবল

সিলেট অফিস   

২০ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জবানবন্দি দিলেন তিন কনস্টেবল

সিলেটের বন্দর বাজার ফাঁড়িতে পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনে রায়হানের মৃত্যুর ঘটনায় আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন তিন পুলিশ সদস্য। গতকাল সোমবার সিলেটের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে তাঁরা ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। তাঁরা হলেন পুলিশ কনস্টেবল সাইদুর রহমান, দেলোয়ার হোসেন ও শামীম মিয়া। রায়হানকে নির্যাতনের ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে তাঁরা এই জবানবন্দি দিয়েছেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পরিদর্শক মহিদুল ইসলাম এই খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তবে আদালতে এই তিনজনের জবানবন্দির বক্তব্য সম্পর্কে কিছু বলতে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন।

জানা গেছে, গতকাল বিকেল ৩টায় অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক মো. জিহাদুুর রহমানের আদালতে বন্দর বাজার ফাঁড়ির এই তিন কনস্টেবলকে হাজির করে মামলার তদন্তকারী সংস্থা পিবিআই। আদালতে তাঁরা রায়হান হত্যা মামলার সাক্ষী হিসেবে জবানবন্দি দেন। বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত প্রায় দেড় ঘণ্টাব্যাপী জবানবন্দি গ্রহণ করা হয়।

প্রসঙ্গত, রায়হান আহমদ আখালিয়ার নেহাড়িপাড়া এলাকার বাসিন্দা। গত ১০ অক্টোবর মধ্যরাতে রায়হানকে তুলে নিয়ে কোতোয়ালি থানাধীন বন্দরবাজার ফাঁড়িতে আটকে রেখে নির্যাতন করা হয়। পরদিন সকালে তিনি মারা যান। নির্যাতনের সময় এক পুলিশের মোবাইল ফোন থেকে রায়হানের পরিবারের কাছে কল করে টাকা চাওয়া হয়। পরদিন রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে মামলা করেন।

সিলেট মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (উত্তর) আজবাহার আলী শেখের তত্ত্বাবধানে তিন সদস্যের একটি কমিটি তদন্ত করে পুলিশ হেফাজতে রায়হানের মৃত্যুর ব্যাপারে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হয়। এ ঘটনায় ১২ অক্টোবর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াসহ চারজনকে সাময়িক বরখাস্ত এবং তিনজনকে ফাঁড়ি থেকে প্রত্যাহার করা হয়। এর পর থেকে প্রধান অভিযুক্ত এসআই আকবর পলাতক। গত ১৩ অক্টোবর মামলাটি পিবিআইয়ে হস্তান্তর করা হয়।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা