kalerkantho

সোমবার । ১০ কার্তিক ১৪২৭। ২৬ অক্টোবর ২০২০। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

মন্টু সাইয়িদ সুব্রতসহ ৮ জনকে গণফোরাম থেকে বহিষ্কার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মন্টু সাইয়িদ সুব্রতসহ ৮ জনকে গণফোরাম থেকে বহিষ্কার

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে মোস্তফা মহসিন মন্টু, অধ্যাপক আবু সাইয়িদসহ আটজনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানোর পর এবার দল থেকে বহিষ্কার করেছে গণফোরামের ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন অংশ। গতকাল শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে গণফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির সভায় এই বহিষ্কারের পাশাপাশি আগামী ১২ ডিসেম্বর জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এ ছাড়া সুব্রত চৌধুরী ও জগলুল হায়দার আফ্রিককে দলের প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। একইভাবে আগে সাময়িকভাবে বহিষ্কৃত মো. হেলালউদ্দিন, লতিফুল বারী হামিম, খান সিদ্দিকুর রহমান ও আব্দুল হাসিব চৌধুরীকে দলের প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

সভার শুরুতে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘দেশে গণতন্ত্রকে কার্যকর করতে হবে। গণতন্ত্র শুধু বইয়ের পাতায় থাকলে চলবে না, মানুষকে অধিকার ভোগ করতে দেওয়ার সুযোগ তৈরি করে দিতে হবে।’ 

গত ১২ মার্চ কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটি গঠনের পর এটিই কমিটির প্রথম সভা। সভায় আহ্বায়ক কমিটির ৭০ সদস্যসহ ১৩০ জন প্রতিনিধি অংশ নেন। আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও সংসদ সদস্য মোকাব্বির খানের সভাপতিত্বে সভায় সাধারণ সম্পাদক রেজা কিবরিয়া ছাড়াও দলের নেতা আ ও ম শফিক উল্লাহ, মহসিন রশিদ, সুরাইয়া বেগম, জানে আলম ও মোশতাক আহমেদ মূল মঞ্চে ছিলেন। সভায় বিভিন্ন জেলা থেকে আগত প্রতিনিধি ও কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা বক্তব্য দেন।

ড. কামাল বলেন, ‘দলে তরুণ ও নারীদের সংখ্যা বাড়ান। দলের পক্ষ থেকে সারা দেশে সভা-সমাবেশ করুন এবং গণফোরামের নীতি-আদর্শ মানুষের কাছে তুলে ধরুন। দেশের মানুষ সচেতন হলে আমাদের সংবিধানের যে লক্ষ্যগুলো আছে—গণতন্ত্র, মানুষের মৌলিক অধিকার, সেগুলো তারা বুঝলে কার্যকরভাবে নিজের অধিকার রক্ষা করতে পারবে।’

সংসদ সদস্য মোকাব্বির খান বলেন, ‘গণফোরামকে নিয়ে কিছু ব্যক্তি জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করেছেন, একটা খেলায় মেতে উঠেছেন। গণফোরাম কোনো এজেন্সির পারপাস সার্ভ করার জন্য গঠিত হয়নি।’

গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘আপনারা যদি তাঁদের আদর্শ, ব্যক্তিত্ব, দেশের জন্য কী চিন্তা করছেন তাঁরা, যদি আপনাকে তাঁরা বেশি আকৃষ্ট করে তাহলে তাঁদের দিকে যেতে পারেন। আর যদি ড. কামাল হোসেনের চিন্তাধারা আপনাকে বেশি আকৃষ্ট করে তাহলে এদিকে থাকবেন।’ 

এদিকে গত ২৬ সেপ্টেম্বর জাতীয় প্রেস ক্লাবে গণফোরামের বিদ্রোহী অংশ বর্ধিত সভায় কাউন্সিলরদের সিদ্ধান্তে আগামী ২৬ ডিসেম্বর গণফোরামের কাউন্সিল অনুষ্ঠানের ঘোষণা দেয়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা