kalerkantho

বুধবার । ৫ কার্তিক ১৪২৭। ২১ অক্টোবর ২০২০। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সবিশেষ

মাঝসমুদ্রে ঝাঁপ দুই বছর পর জীবিত উদ্ধার

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মাঝসমুদ্রে ঝাঁপ দুই বছর পর জীবিত উদ্ধার

মাত্র কয়েক বছরের মধ্যেই হারিয়েছে দাম্পত্য সম্পর্কের উষ্ণতা। অশান্তি করেই দিন কাটত স্বামী-স্ত্রীর। কথা-কাটাকাটি হতো, তবে তাতে আমল দিতেন না স্ত্রী। মারধর যেন সহ্য হচ্ছিল না। একসময় বেঁচে থাকার ইচ্ছাও হারিয়েছিলেন কলম্বিয়ার নারী অ্যাঞ্জেলিকা গাইতান। তাই ঝাঁপ দিয়েছিলেন মাঝসমুদ্রে। মাঝে দুই বছর আর কোনো খোঁজ ছিল না তাঁর। যদিও দুই বছর পর মাঝসমুদ্রে ভাসমান কলম্বিয়ার ওই নারীকে উদ্ধার করেন মৎস্যজীবী রোলান্ডো ভিসবাল ও তাঁর এক বন্ধু। এভাবেও বেঁচে ফেরা যায়!

৪৬ বছরের ওই নারী জানান, প্রায় ২০ বছরের দাম্পত্য সম্পর্ক তাঁর। প্রথমবার অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর থেকেই সম্পর্ক উষ্ণতা হারায়। মারধর শুরু হয়। তাতেও সংসার চলছিল। পরে দ্বিতীয়বার অন্তঃসত্ত্বা হন। অর্থনৈতিক দিক থেকে কোনো সংগতি নেই। তার ওপর আবার দুটি সন্তান। তাই স্বামীকে ছেড়ে চলে আসতে পারেননি কখনোই। বাধ্য হয়ে একবার পুলিশের দ্বারস্থ হন তিনি। তবে থানা থেকে ছাড়া পাওয়ার পর অত্যাচার আরো বাড়ে। মারধর করে হাত-পা ভেঙে দেওয়া হয় তাঁর। সাংসারিক অশান্তি সহ্য করতে না পেরে সমুদ্রে ঝাঁপ দেন ওই নারী। মাঝে কেটে যায় দুটি বছর। মাঝে কী হয়েছিল, তা ওই মহিলার নিজেরও অজানা।

ফেসবুকে ভিডিওটি শেয়ার করেন মৎস্যজীবী রোলান্ডো। দেখা যায়, একজন মাঝসমুদ্রে ভেসে যাচ্ছেন।

তখনই মৎস্যজীবীরা তৎপরতার সঙ্গে ওই নারীকে উদ্ধার করেন। স্থানীয় সময় শনিবার সকাল ৬টার সময় ওই নারীকে উদ্ধারের কিছুক্ষণ পরই তাঁর জ্ঞান ফিরে আসে। এর পরই নিজের দাম্পত্য অশান্তির কথা জানান তিনি। এরপর তাঁর বোনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। আপাতত তাঁর কাছেই আছেন ওই নারী।

তবে পারিবারিক সহিংসতার কথা অস্বীকার করেছেন ওই নারীর দুই মেয়ে। অবশ্য মাকে নিজেদের কাছে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছেন মেয়েরা। সূত্র : আজকাল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা