kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ কার্তিক ১৪২৭। ২০ অক্টোবর ২০২০। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সম্মেলন ডেকেছে গণফোরামের একাংশ

রেজা কিবরিয়াসহ চারজন ‘বহিষ্কার’

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সম্মেলন ডেকেছে গণফোরামের একাংশ

দলের সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে রেজা কিবরিয়াসহ চারজনকে বহিষ্কারের পাশাপাশি ২৬ ডিসেম্বর জাতীয় কাউন্সিল ডেকেছে গণফোরামের একাংশ। গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই সিদ্ধান্ত জানানো হয়। তবে গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ‘কাউন্সিল ডাকার কোনো সাংগঠনিক ক্ষমতা ওদের নেই।’

গতকাল সংবাদ সম্মেলনের আগে জাতীয় প্রেস ক্লাবে বর্ধিত সভা করেন একাংশের নেতারা। এতে সভাপতিত্ব করেন আবু সাইয়িদ। সভায় টানানো ব্যানারে লেখা ছিল, ‘অর্থবহ পরিবর্তনের লক্ষ্যে চাই জাতীয় ঐক্য : বর্ধিত সভা; গণফোরাম।’

বর্ধিত সভার মূল মঞ্চে ছিলেন সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, সাবেক নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, কেন্দ্রীয় নেতা জগলুল হায়দার আফ্রিক, আসাদুজ্জামান, খান সিদ্দিকুর রহমান, আবদুর রায়হান, মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর, ফজলুল হক সরকার ও এম এ মতিন।

সংবাদ সম্মেলনে আবু সাইয়িদ বলেন, দলকে শক্তিশালী, গণমুখী এবং তৃণমূলে সংগঠনকে শক্তিশালী করার লক্ষ্যে আগামী ২৬ ডিসেম্বর জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বর্ধিত সভার সিদ্ধান্ত পড়ে শোনান জগলুল হায়দার আফ্রিক। তিনি বলেন, ‘দলের ঐক্য ও স্বার্থবিরোধী কর্মকাণ্ডের জন্য’ সাধারণ সম্পাদক রেজা কিবরিয়া এবং কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মহসীন রশিদ, আ ও ম শফিকউল্লাহ ও মোশতাক আহমেদকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

২০১৯ সালের এপ্রিলে গণফোরামের পঞ্চম জাতীয় কাউন্সিল হয় গুলিস্তানের মহানগর নাট্যমঞ্চে। তিন বছর পর পর জাতীয় কাউন্সিল হওয়ার বিধান থাকলেও দলটির একাংশ এক বছরের মাথায় আবার কাউন্সিল আহ্বান করল।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু বলেন, ‘আমরা উনাকে (ড. কামাল হোসেন) বারবার বলেছি কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক ডাকেন, সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করেন। কয়েক দিন আগে উনি বলেছেন, বসেন। তার পরে এখন বলেন, না এ রকম কোনো কথা তিনি বলেননি। আমার মনে হয়, উনার স্মৃতিবিভ্রাট ঘটছে।’

এদিকে ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ‘ওদের কোনো সাংগঠনিক ক্ষমতা এবং বৈধতা নেই এ ধরনের মিটিং করার। এই মিটিংয়ের সঙ্গে আমাদের দল গণফোরামের কোনো সম্পর্ক নেই। তারা যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সেটি আমাদের দলের কোনো সিদ্ধান্ত না। যেহেতু এটি আমাদের দলের বিষয় না, সে জন্য এই বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না।’

গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া সাংবাদিকদের বলেন, ‘এই যে মিটিং হলো, এটা গণফোরামের মিটিং না। তাঁরা গণফোরাম থেকে চলে গিয়ে সভা করতে পারেন; কিন্তু গণফোরামকে ক্ষতি করে যাচ্ছেন। এটা খুবই দুঃখজনক। তাঁরা নিজেদের গণফোরাম থেকে সরিয়ে নিয়েছেন এই অগঠনতান্ত্রিক কাজটি করার মধ্য দিয়ে। সাধারণ সম্পাদক ছাড়া কেউ সভা ডাকতে পারেন না। তাঁরা এ রকম সভা করে গর্হিত কাজ করেছেন।’

ওদের বর্ধিত সভা ডাকার বৈধতা নেই : ড. কামাল

‘ওদের কোনো সাংগঠনিক ক্ষমতা এবং বৈধতা নেই এ ধরনের মিটিং করার। এই মিটিংয়ের সঙ্গে আমাদের দল গণফোরামের কোনো সম্পর্ক নেই। তারা যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সেটি আমাদের দলের কোনো সিদ্ধান্ত না। যেহেতু এটি আমাদের দলের বিষয় না সেজন্য এই বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না।’ গতকাল শনিবার গণফোরামের ব্যানারে জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সালাম হলে সংগঠনটির একাংশের বর্ধিত সভা এবং আগামী ২৬ ডিসেম্বর জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠানের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে গণফোরামের সভাপতি গণমাধ্যমকে এমন মন্তব্য করেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা