kalerkantho

বুধবার । ১৩ মাঘ ১৪২৭। ২৭ জানুয়ারি ২০২১। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

তিন কিশোরের মৃত্যু মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণে

আরো ৪ কর্মকর্তা সাময়িক বরখাস্ত

যশোর প্রতিনিধি   

১৯ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে




তিন কিশোরের মৃত্যু মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণে

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের তিন কিশোর নির্যাতনের সময় মাথায় আঘাত পেয়ে মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণে মারা যায়। যশোর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দিলীপ কুমার রায় বলেন, মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণে তাদের মৃত্যু হয়েছে। পা ও পিঠের পাশাপাশি তাদের তিনজনের মাথায় আঘাত লাগে। এ সময় মস্তিষ্কও জখম হয়। তিনি বলেন, গত সোমবার দুপুরে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন সিভিল সার্জনের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

এদিকে তিন কিশোর হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার আরো চার কর্মকর্তাকে গত সোমবার সাময়িক বরখাস্ত করেছে সমাজসেবা অধিদপ্তর। এ নিয়ে মোট পাঁচজনকে সাময়িক বরখাস্ত করল কর্তৃপক্ষ। তাঁরা হলেন সহকারী তত্ত্বাবধায়ক (প্রবেশন অফিসার) মাসুম বিল্লাহ,  কারিগরি প্রশিক্ষক (ওয়েল্ডিং) মো. ওমর ফারুক, ফিজিক্যাল ইনস্ট্রাক্টর এ কে এম শাহানুর আলম ও সাইকোসোশ্যাল কাউন্সিলর মুশফিকুর রহমান। এর আগে গত শুক্রবার কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক (সহকারী পরিচালক) আব্দুল্লাহ আল মাসুদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছিল।

এদিকে যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ গ্রেপ্তার ও সাময়িক বরখাস্ত হওয়ার পর ওই পদে সমাজসেবা অধিদপ্তরের আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র খুলনার সহাকারী পরিচালক জাকির হোসেনকে নিযুক্ত করা হয়েছে। এরই মধ্যে তিনি সেখানে যোগ দিয়েছেন। যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন বলেন, গত সোমবার রাতেই ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পুলিশ সুপারের কাছে পাঠানো হয়েছে। ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর রকিবুজ্জামান বলেন, ‘প্রতিবেদনটি গতকাল দুপুর পর্যন্ত আমার হাতে এসে পৌঁছেনি।’ উল্লেখ্য, গত ১৩ আগস্ট শিশু উন্নয়ন কেন্দ্র্রে সালিসের নামে ১৮ বন্দি কিশোরের ওপর নির্যাতন চালানো হয়। এতে তিন কিশোর মারা যায়। কিশোর পারভেজের বাবা রোকা মিয়ার দায়ের করা মামলায় আটক ওই পাঁচ কর্মকর্তা বর্তমানে পুলিশ রিমান্ডে রয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা