kalerkantho

বুধবার । ১৩ মাঘ ১৪২৭। ২৭ জানুয়ারি ২০২১। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

তালায় বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা

গ্রামবাসীর থানা ঘেরাও, জড়িত আওয়ামী লীগ নেতা গ্রেপ্তার

সাতক্ষীরা ও তালা প্রতিনিধি   

১৯ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে




তালায় বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা

সাতক্ষীরার তালায় চিংড়িঘেরে মাছ চুরির অভিযোগ এনে এক বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, ঘেরের মালিক সরদার মশিয়ার রহমান ও তাঁর লোকজন এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। অভিযুক্ত মশিয়ার রহমান তালা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করেছে। এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ ও বিচার দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেছে গ্রামবাসী।

জানা গেছে, নিহতের নাম লুত্ফর নিকারী (৬০)। তিনি তালা সদরের জেয়ালানলতা এলাকার মৃত আইজুল নিকারীর ছেলে। গত সোমবার রাতে উপজেলার নলবুনিয়া এলাকায় সরদার মশিয়ার রহমানের মালিকানাধীন মৎস্য ঘেরে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় তালা থানায় হত্যা মামলা হয়েছে। মামলায় সরদার মশিয়ার ছাড়াও তালা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তুহিন ও ঘেরের কর্মচারী রনিকে আসামি করা হয়েছে।

নিহতের ভাতিজা রুহুল আমিন জানান, সোমবার রাতে হাজরাকাটি-জেয়ালানলতা গ্রামের মধ্যবর্তী নলবুনিয়া বিলের সরকারি খালে মাছ ধরছিলেন লুত্ফর নিকারীর ছেলে সেলিম নিকারী। খালের সঙ্গে সরদার মশিয়ার রহমানের মৎস্যঘেরের বেড়িবাঁধ রয়েছে। সেলিমকে খাল থেকে ধরে এনে আটকে রাখেন সরদার মশিয়ারের ঘেরের কর্মচারীরা। রাত ১১টার দিকে সরদার মশিয়ার ঘটনাস্থলে যান। এ সময় কৃষক লুত্ফর নিকারী ছেলেকে উদ্ধার করতে গেলে সরদার মশিয়ার ও ঘের কর্মচারীরা বাবা-ছেলেকে বেদম মারধর করেন। পরে গ্রামবাসী দুজনকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে লুত্ফর নিকারী মারা যান। তাঁর ছেলে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

লুত্ফর নিকারীর স্ত্রী ছবিরন নেছা কাঁদতে কাঁদতে বলেন, ‘আমার স্বামী কৃষিকাজ করে সংসার চালাতেন। অভাব-অনটনের কারণে মাঝেমধ্যে খাল-বিলে মাছ ধরে বাজারে বিক্রি করতেন। খালে মাছ ধরার সময় ছেলেকে ধরে নিয়ে মারধরের খবর পেয়ে তিনি ঘেরে যান। এ সময় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও তাঁর লোকজন তাঁকে পিটিয়ে মেরে ফেলেছে। আমি এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।’

স্থানীয়রা জানায়, লুত্ফর নিকারী গরিব কৃষক। উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা সরদার মশিয়ার তাঁকে পিটিয়ে হত্যা করেছে—এই খবর ছড়িয়ে পড়লে শত শত নারী-পুরুষ তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও থানা ঘেরাও করে হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানায়। তারা তালা-পাইকগাছা সড়ক অবরোধ করে রাখে। একপর্যায় পুলিশ সরদার মশিয়ারের নামে মামলা নিলে গ্রামবাসী অবরোধ তুলে নেয়।

হাজতে থাকা অবস্থায় সরদার মশিয়ার সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, লুত্ফর নিকারী অসুস্থ ছিলেন। তাঁকে মারধর করা হয়নি। আর ওই সময় তিনি ঘেরে উপস্থিত ছিলেন না। তাঁকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. রাজিব সরদার জানান, লুত্ফর নিকারীকে মৃত অবস্থায় এখানে আনা হয়।

তালা থানার ওসি মেহেদী রাসেল বলেন, নিহতের ছেলে সেলিম নিকারী বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেছেন। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সরদার মশিয়ার রহমানকে থানায় আনা হয়। মামলা হওয়ার পর তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। ময়নাতদন্তের জন্য নিহতের মরদেহ সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা